বুমরাহ-আর্চারকে নিয়ে চিন্তিত নন রাবাদা

কাগিসো রাবাদা

আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে বয়সটা ৫ বছর ছুঁইছুঁই করছে। অভিষেকের পর থেকেই ছড়িয়েছেন আলো। তার সাথে অভিষেক হওয়া জাসপ্রীত বুমরাহ ও ইংলিশ জার্সিতে কদিন আগেই অভিষেকের পর তাক লাগিয়ে দেওয়া জফরা আর্চারকে ভাবা হচ্ছে দক্ষিণ আফ্রিকা পেসার কাগিসো রাবাদার প্রতিদ্বন্দ্বী। কিন্তু রাবাদা ভাবছেননা এমন কিছু বরং দুজনের জন্য প্রশংসা ঝরেছে তার কন্ঠে।

কাগিসো রাবাদা

চলতি বছর উইকেট সংখ্যায় জাসপ্রীত বুমরাহ, জফরা আর্চারের চেয়ে এগিয়ে থাকলেও দর্শক আগ্রহে কিংবা মিডিয়ার প্রচারণায় খুব একটা ছিলেন না দক্ষিণ আফ্রিকান পেসার রাবাদা। চোটের কারণে মিস করেছেন কিছু ম্যাচও। টেস্ট ও ওয়ানডে বোলিং র‍্যাংকিংয়ে আছেন যথাক্রমে দুই ও তিন নম্বরে। চলতি মাসেই ভারত সফরে যাবে দক্ষিণ আফ্রিকা দল, তার আগেই নিজের প্রতিদ্বন্দ্বীদের নিয়ে ভাবনা তুলে ধরেছেন এক সাক্ষাৎকারে।

বুমরাহ-আর্চারের আলোচনায় মুখরিত ছিল চলতি বছর বিশ্ব ক্রিকেট, আর এতেই কিছুটা আড়ালে পড়েছিলেন প্রোটিয়া পেসার রাবাদা। তবে জফরা আর্চার – বুমরাহকে নিজের প্রতিদ্বন্দ্বী ভাবতে নারাজ রাবাদা, “আমি তাদের প্রশংসা করি, তারা আসলেই ভালো বোলার। তবে মিডিয়া কিছু নির্দিষ্ট খেলোয়াড়কে ফোকাসে রাখে আর এটা কোন ব্যাপার না।”

নিজের ভালো খেলার ব্যাপারটা আত্মবিশ্বাসের সাথে বলার পাশাপাশি আর্চার-বুমরাহকে নিয়ে বলতে গিয়ে ২৪ বছর বয়সী প্রোটিয়া পেসার যোগ করেন, “আমি জানি আমি বেশ ভালোই খেলেছি। আর্চার একজন প্রকৃত প্রতিভা, বুমরাহ বিস্ময়কর কাজ করে যা আপনাকে উৎসাহী করতে বাধ্য করবে।”

ক্যারিয়ারে যেটুক সময় পার হয়েছে এতেই রাবাদা দেখে ফেলেছেন মুদ্রার এপিঠ ওপিঠ, সময় কখনই একই গতিতে যাবেনা। বুমরাহ-আর্চারকে নিয়ে চিন্তিত নয় উল্লেখ করে তিনি বলেন, “আপনি সবসময় শীর্ষে থাকবেন না। ক্যারিয়ার পরিচালনা এত সহজ নয়। আমি শিখেছি যে এখানে প্রচুর উত্থান পতন ঘটে। আমি বিশ্বের সেরা হতে চাই। এখানে প্রতিযোগিতা করেই টিকে থাকতে হয়। আমি এটা (আর্চার-বুমরাহ) নিয়ে খুব চিন্তিত নই। বেশ সহজ , স্বাভাবিকভাবেই নিচ্ছি।”

৯৭ ডেস্ক

Read Previous

ঝোরার ঝড়ো ফিফটিতে বাংলাদেশকে বড় লক্ষ্য দিল নেপাল

Read Next

অধিনায়ক আকবরের ব্যাটে চড়ে নেপালকে হারালো টাইগার যুবারা

Leave a Reply

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।