বাধ্য ছেলে মাহমুদুলের আদর্শ রাহুল দ্রাবিড়

মাহমুদুল হাসান জয়

প্রতিটি ক্রিকেটারেরই ক্রিকেটার হওয়ার পেছনে একজন মানুষের নিবিড় ভালোবাসা, ত্যাগ থাকেই। যাদের সমর্থন না পেলে দেশের ক্রিকেট পেতনা তারকা ক্রিকেটারদের। মুস্তাফিজের ভাই, মাশরাফির মামা, তামিমের বাবারা ছিলেন সেইসব মানুষদের কয়েকজন। বিশ্ব জয় করে আসা যুব দলের মাহমুদুল হাসান জয়ের ক্ষেত্রে সেই ভূমিকাটা তার বড় ভাই রাশেদুল হাসান জুমুনের।

ক্রিকেটে আসারা পেছনে চাঁদপুরে ফরিদগঞ্জে জন্ম নেওয়া মাহমুদুল হাসান জয়ের পরিবার সমর্থন দিয়েছে সবসময়ই। তবে কাছ থেকে পরামর্শ, অনুপ্রেরণা, সাহস জুগানোর কাজটা সরাসরি করেছেন, করছেন বড় ভাই রাশেদুল হাসানই। ২০১২ সালে বিকেএসপিতে ভর্তি হন মাহমুদুল হাসান জয়, কিন্তু দূর থেকে সাহস দিয়ে যাওয়াটা ঠিকই চালিয়ে গেছেন রাশেদুল হাসান।

যুব বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে সেঞ্চুরি করে দলকে প্রথমবার ফাইনালে পৌঁছে দেওয়ার নায়ক মাহমুদুল হাসানকে ম্যাচের আগের রাতেও ফোনে বেসিক নিয়ে পরামর্শ দিয়েছেন রাশেদুল। মাহমুদুল হাসান জয়ের আগে নিজেই যে ক্রিকেটার হওয়ার স্বপ্ন বুনতেন রাশেদুল। সময়ের পরিক্রমায় নিজে ব্যর্থ হলেও ছোট ভাই জয়ের উপর রাখছেন আস্থা। বাধ্য ছেলে মাহমুদুল হাসান জয়ও অক্ষরে অক্ষরে মেনে চলেন পরিবারে পরামর্শ।

পারিবারিক বিধিনিষেধ ভালোই জানা ডানহাতি ব্যাটসম্যান মাহমুদুলের। পরিবারের কথার বাইরে যাননা বলে ভারতীয় গণমাধ্যম ‘ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস বাংলাকে’ দেওয়া সাক্ষাৎকারে জানান বড় ভাই রাশেদুল, ‘ও আমাদের কথার বাইরে যায় না। আমার মায়ের কথা অক্ষরে অক্ষরে পালন করে। ম্যাচের আগে ভোরে উঠে ফজরের নামায আদায় করে। তারপর মাঠে যাওয়ার আগেও আমাদের পরিবার থেকে কিছু জিনিস পালন করতে বলা হয়, সেগুলো করে যায়।’

আদর্শ হিসেবে মানেন রাহুল দ্রাবিড়কে, ‘ও রাহুল দ্রাবিড়ের মতো ব্যাটিং করতে চায়। ওর আদর্শও দ্রাবিড়। উনি যেভাবে স্ট্রাইক রোটেট করে খেলতে পছন্দ করতেন জয়ও তাই।’

যেখানেই যাক যুব দলের নিয়মিত সদস্য মাহমুদুল নিয়মিত যোগাযোগ রেখেছেন বড় ভাই রাশেদুল হাসানের সাথে। রাশেদুলও দিয়েছেন বুদ্ধি, পরামর্শ, সাহস। এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘ও ম্যাচের আগের রাতে ফোন জমা দেওয়ার আগে আমার সঙ্গে কথা বলে। আমি ওকে সবসময় বলি, বাউন্ডারি মারার মানসিকতা আগে ত্যাগ করতে হবে। আগে তুই স্ট্রাইক রোটেট করে একটা জায়গায় যাবি। তারপর বাউন্ডারি মারার চিন্তা করবি।’

ছোট ভাইয়ের সাথে ছায়াসঙ্গী হিসেবে থাকা রাশেদুল জানান আশায় আছেন মাহমুদুল হাসান একদিন তার স্বপ্ন পূরণ করবে, আদর্শ হবে অন্যদের কাছে, ‘এক কথায় বলতে পারেন আমি ওর ছায়াসঙ্গী। আমাকে ছাড়া ও এক পা হাঁটবে না। আমার স্বপ্ন মানে ওর স্বপ্ন। আমি ওকে বলেছি, ভাই তুই আমাদের স্বপ্ন পূরণ করবি। জাতীয় দলের জার্সি গায়ে তুলবি। হাশিম আমলা, ভিরাট কোহলিদের মতো হবি যেন গোটা ক্রিকেট দুনিয়া তোকে রোল মডেল ভাবে।’

৯৭ ডেস্ক

Read Previous

লাহোরের সেই ঘটনা শিক্ষা দিয়েছে সাঙ্গাকারাকে

Read Next

নাইম হাসানের ৮ উইকেটে মলিন হল মুশফিকের সেঞ্চুরি

Leave a Reply

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Total
22
Share