দায়িত্ব হারানো আসগর আফগানিস্তানের অধিনায়কের অধিনায়ক!

গুলবাদিন নাইব

বহু লড়াই সংগ্রাম পেরিয়ে যাদের হাত ধরে আফগান ক্রিকেট মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়েছে তাদের একজন দলটির সদ্য সাবেক হওয়া অধিনায়ক আসগর আফগান। অথচ বিশ্বকাপের ঠিক আগেই নেতৃত্ব থেকে তাকে সরিয়ে আফগানিস্তান ক্রিকেট বোর্ড জন্ম দেয় বিতর্কের, আফগান ক্রিকেটে বয়ে যায় সমালোচনার ঝড়। তার স্থলাভিষিক্ত হওয়া গুলবাদিন নাইবও বলছেন আসগরকেই এখনো অধিনায়ক মানেন তিনি, দলের স্বার্থে তার সিদ্ধান্ত অপরিহার্য।

যুদ্ধবিধ্বস্ত আফগানিস্তান ক্রিকেট দলের উত্থানের গল্পটা সিনেমার মত। যথেষ্ট সুযোগ সুবিধার অভাবের পরও নিজেদের ভালোবাসা, ত্যাগ আর নিবেদন দিয়ে জায়গা করে নিয়েছে ক্রিকেট ইতিহাসের অন্যতম অধ্যায়ে। ২০১৫ সালের অক্টোবর থেকে দলকে অগ্রসর করার দায়িত্ব পান আসগর আফগান। এখনো পর্যন্ত অধিনায়ক হিসেবে আফিগানিস্তানের সবচেয়ে সফল তিনিই।

৫৬ ম্যাচে নেতৃত্ব দিয়ে জিতিয়েছেন ৩১টি, যা থেকে স্পষ্ট বোঝা যায় তার অধীনে উন্নতির ধারাবাহিকতা কতটা ছিল। দেশের ইতিহাসের ৫৭ ওয়ানডে জয়ের ৩১ টি তার অধীনে, যেখানে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ১৩ জয় আসে মোহাম্মদ নবির অধিনায়কত্বে। এমন সাফল্য ঠাসা পরিসংখ্যানের পরও হঠাৎ কেন কেড়ে নেওয়া হল আসগরের অধিনায়কত্ব? এ নিয়ে কম সমালোচনা হয়নি দেশটির ক্রিকেট মহলে। নবি-রাশিদদের মত ক্রিকেটাররা করেছেন প্রকাশ্যে সমালোচনা।

তবে মত বদলায়নি আফগান বোর্ড, তিন ফরম্যাটে তিন অধিনায়ক নীতিতে ঢুকে পড়া আফগানদের ওয়ানডে দায়িত্ব থাকে গুলবাদিন নাইবের কাঁধেই। বিশ্বকাপে তিনিই দিচ্ছেন আফগানিস্তানকে নেতৃত্ব৷ হঠাৎ করে অধিনায়কত্ব পাওয়া গুলবাদিন স্বীকার করছেন কাগজে কলমে তিনি অধিনায়ক হলেও গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্তে এখনো ছুটে যান আসগরের কাছে, তাকেই মানেন নিজের অধিনায়ক। গতকাল (২৩ মে) এবারের বিশ্বকাপ আসরে অংশ নেওয়া দলগুলোর অধিনায়কদের নিয়ে আয়োজিত আইসিসির এক অনুষ্ঠানে একথা জানান নাইব।

বিশ্বকাপ নিয়ে নিজেদের ভাবনা, সম্ভাবনা, দলের গভীরতা নিয়ে আলোচনা করতেই দলগুলোর অধিনায়কদের নিয়ে বিশেষ এই আয়োজন। আর সেখানেই আসগরের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা, ভালোবাসা আর আস্থার কথা জানান বিশ্বকাপ আফগান দলপতি গুলবাদিন।

বিশ্বকাপের আগে স্কটল্যান্ড-আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে অধিনায়কত্বের স্বাদ পেয়েছেন নাইব। সেখানে আসগরের সাহায্য ছিল অসাধারন উল্লেখ করে ২৮ বছর বয়সী আফগান দলপতি জানান, ‘সবশেষ আয়ারল্যান্ড ও স্কটল্যান্ডে আমরা যে ম্যাচগুলো খেলেছি সেখানে আসগর আমাকে অনেক সাহায্য করেছে। দুর্দান্ত গাইড করেছে সে। আমার কাছে সে দলে শুধু একজন ক্রিকেটার নয়, এখনও আমার অধিনায়ক সেই।’

অ্যাডমিন

Read Previous

বিশ্বকাপে পরিবার সঙ্গে রাখার অনুমতি পায়নি পাকিস্তান দল

Read Next

‘কাগজ-কলমের’ হিসাব চুকাতে চান রাশিদ খান

Leave a Reply

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।