‘স্কিল নয় ঘাটতি আত্মবিশ্বাসে’

মাঠে যতটা না বাউন্সার সামলাতে হয়েছে বাংলাদেশ দলকে সংবাদ সম্মেলনে তার চেয়ে ঢের সামলাতে হয়েছে কথার বাউন্সার। কারণ মাঠে ব্যাটসম্যানদের যাচ্ছেতাই পারফরম্যান্স আবারো প্রশ্নের মুখে ফেলেছে বাংলাদেশ দলের টি-টোয়েন্টি স্কিল। কারণ র‍্যাংকিংয়ে বাংলাদেশ পিছিয়ে রয়েছে আয়ারল্যান্ডেরও পরে। আর ‘ডট বল’ কান্ড নিয়ে সমালোচিত হতে হচ্ছে দলকে। তাই সংবাদ সম্মেলনে সবচেয়ে বেশি এসেছে দলের এতো বেশি ডট বলের বিষয়। অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ স্বিকার করেছেন, ভারতের বিপক্ষে অতিরিক্ত ডট বলই ডুবিয়েছে বাংলাদেশকে।

নিদাহাস ট্রফিতে বাংলাদেশ তাদের প্রথম ম্যাচে ৬ উইকেটে হেরেছে ভারতের বিপক্ষে। ভারতের সাদামাটা বোলিংয়ের সামনে বড়ই ছন্নছাড়া লেগেছে বাংলাদেশের ব্যাটিং লাইনআপ। বাংলাদেশ ম্যাচ হেরেছে ৬ উইকেটে। ম্যাচ শেষ হারার কারণ খুঁজতে গিয়ে উঠেছে পুরনো রোগ ডট বেশি খেলার কুফল।

অনেক আগে থেকে বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানদের ডট বল খেলার প্রবণতা বেশি। আর ছোট দৈর্ঘ্যের ক্রিকেটে যা বড়ই বেমানান। কারণ টি-টোয়েন্টি বেশি ডট হলে সেটা আর রিকাভারি করা কঠিন। আর এই নিয়েই মাহমুদউল্লাহ বেশি বিরক্ত। তিনি বলেন, “টি-টোয়েন্টিতে মাঝের ওভারগুলোতে আমরা ধুঁকছি। অনেক বেশি ডট বল খেলছি, তার পরও উইকেট বিলিয়ে আসছি। আজকেও আমরা ভালোই শুরু করেছিলাম, কিন্তু পরে নিয়মিত উইকেট হারিয়েছি।”

“টি-টোয়েন্টিতে মাঝের ওভারগুলোতে একটু পিছিয়ে আছি আমরা। বরাবরই এখানে খেই হারিয়ে ফেলি। সিঙ্গেল নিতে পারছি না, ডাবলসও না। পাশাপাশি বাউন্ডারিও হচ্ছিল না আজ। একই সঙ্গে উইকেটও দিয়ে এসেছি।”

দলকে বারবার সতর্ক করার পরও ব্যাটসম্যানদের অত্মবিশ্বাসের ঘাটতি থাকায় ডট বেশি হচ্ছে। আর এটা নিয়ে আগেও কাজ করা হয়েছে কিন্তু কিছুতেই সুফল মিলছে না।

“আমার মনে হয়, হ্যাঁ (সংশয় ছিল)। ডট বলগুলোতে সেটিরই প্রমাণ মিলেছে। আমি নিজেই যেমন মনে হয় ৭টি ডট বল খেলেছি। তার পর আউট হয়ে গেছি। ডট বলস…উই নিড টু টেক কেয়ার অফ ইট। এই জায়গাটায় আমাদের কাজ করতেই হবে। এত ডট বল খেলে এগিয়ে যাওয়া কঠিন। শুধু বাউন্ডারির ওপর নির্ভর করে চলবে না। সিঙ্গেলের পাশাপাশি বাউন্ডারি হলে ব্যাটসম্যানরা চাপে থাকে না।”

মাহমুদউল্লাহ ব্যাটসম্যানদের নিজেদেরকে আয়নার সামনে দাড়াতে বলেছেন। দলের ব্যর্থতার দায় সবাইকে নিতে হবে, কারণ কেউ ধর্য্যের পরীক্ষা দিতে পারেনি গত ম্যাচে। আসলে সমস্যা তাদের আত্মবিশ্বাসে বলে মনে করে রিয়াদ,

“মানসিকভবে প্রস্তুত হতে হবে। সবাইকে ভাবতে হবে কোথায় ভুল করেছি। আমি যেমন আজকে অনেক ডট বল খেলেছি। এই ছোট জিনিসগুলো নিয়ে যদি আমরা একটু সেন্সিবল হই, তাহলেই হবে। সবাই বসে যদি ঠিক করতে পারি, তাহলে ভালো কিছু হবে।”

৯৭ ডেস্ক

Read Previous

পরাজয়ের বৃত্তেই ঘুরপাক খাচ্ছে টাইগাররা

Read Next

‘আমাদের মনে হয় ক্রিকেট ছেড়ে দেওয়া উচিত’

Leave a Reply

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Total
0
Share