লামিচানের দুর্দান্ত বোলিং, যুক্তরাষ্ট্রের লজ্জার বিশ্বরেকর্ড

স্বন্দ্বীপ লামিচানে

২০০৪ সালে হারারেতে লঙ্কান পেস ত্রয়ী চামিন্দা ভাস, দিলহারা ফার্নান্দো ও পারভেজ মাহরুফের তোপে মাত্র ৩৫ রানে অল আউট হয়ে ওয়ানডেতে সর্বনিম্ন রানের লজ্জার রেকর্ড গড়ে জিম্বাবুয়ে। প্রায় ১৬ বছর ধরে বয়ে বেড়ানো এক কলঙ্কিত রেকর্ডে এবার সঙ্গী পেল আফ্রিকার এই দেশটি। চলতি বিশ্বকাপ লেগ ২ এ যুক্তরাষ্ট্রকে সমান রানে অল আউট করে নেপাল। স্বন্দ্বীপ লামিচানের কাছে অসহায় আত্মসমর্পন দলটির, একাই ৬ উইকেট নেন এই লেগব্রেক বোলার।

কীর্তিপুরে ত্রিভূবন বিশ্ববিদ্যালয় আন্তর্জাতিক ক্রিকেট মাঠে টস হেরে ব্যাট করতে নেমে কোন রান না তুলেই প্রথম উইকেট হারায় যুক্তরাষ্ট্র। ওপেনার হোলল্যান্ড খালি হাতে ফিরলে জাভিয়ের মার্শাল ও মোনাক প্যাটেল মিলে যোগ করেন ২৩ রান। ১৬ রান করে মার্শালের বিদায়ের পরই রীতিমত ঝড় বয়ে যায় যুক্তরাষ্ট্রের উপর দিয়ে।

একমাত্র ব্যাটসম্যান হিসেবে দুই অঙ্ক ছুঁতে পারেন মার্শাল। স্বন্দীপ লামিচানের লেগ স্পিনের সাথে সুশান বারির বাঁহাতি অর্থোডক্স, দুইয়ে মিলে ওয়ানডে ইতিহাসের লজ্জার রেকর্ডে ভাগ বসায় অক্ষয় হোমরাজের দল।

ওয়ানডেতে সর্বনিম্ন দলীয় সংগ্রহ-

৩৫- জিম্বাবুয়ে, যুক্তরাষ্ট্র
৩৬- কানাডা
৩৮- জিম্বাবুয়ে
৪৩- শ্রীলঙ্কা, পাকিস্তান
৪৪- জিম্বাবুয়ে

লামিচানে-বারি মিলে মাত্র ১২ ওভারেই অল আউট করে দেন যুক্তরাষ্ট্রকে। মার্শালের ১৬ রান ছাড়া দ্বিতীয় ব্যক্তিগত সর্বোচ্চ ৪ রান আসে মোনাক প্যাটেল, অ্যারন জোন্স ও অক্ষয় হোমরাজের ব্যাট থেকে। তিন ব্যাটসম্যান ফিরেছেন খালি হাতে। ৬ ওভারে মাত্র ১৬ রান খরচায় ৬ উইকেট তুলে নেন লামিচানে, ৩ ওভারে ৫ রান খরচায় ৪ উইকেট তুলে নেন সুশান।

জবাবে নেপালের শুরুটাও বেশ বাজে হয়, দুই ওপেনার গিয়ানান্দ্রো মাল্লা ও সুবাশ খাকুরেল ফিরেছেন দলীয় ১ রানে। এরপর অবশ্য আর কোন বিপদ ঘটতে না দিয়ে দলোকে জয়ের বন্দরে পৌঁছে দেন পরশ খাড়কা (২০*) ও দীপেন্দ্র সিং (১৫*)। ৮ উইকেট ও ২৬৮ বল হাতে রেখে ম্যাচ জিতে নেয় নেপাল। ম্যাচ সেরার পুরষ্কার উঠে লামিচানের হাতে।

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

যুবাদের আচরণে হতাশ ভারতীয় কিংবদন্তিরা, বোর্ডের কাছে শাস্তি দাবি

Read Next

ম্যাক্সওয়েল দলে ঢুকলেন, আবার বাদ পড়লেন

Leave a Reply

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।

Total
8
Share
error: Content is protected !!