মিঠুনের লড়াকু ফিফটি, ২৩৩ এ থেমেছে বাংলাদেশ

আইসিসি ওয়ার্ল্ড টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপে নিজেদের তৃতীয় ম্যাচে পাকিস্তানের মুখোমুখি হয়েছে বাংলাদেশ। রাওয়ালপিন্ডিতে দুই টেস্ট ম্যাচের সিরিজের ১ম ম্যাচে মাঠে নেমেছে মুমিনুল হকের নেতৃত্বাধীন দল।

সংক্ষিপ্ত স্কোরঃ (১ম দিন শেষে)

বাংলাদেশ ২৩৩/১০ (৮২.৫), তামিম ৩, সাইফ ০, শান্ত ৪৪, মুমিনুল ৩০, মাহমুদউল্লাহ ২৫, মিঠুন ৬৩, লিটন ৩৩, তাইজুল ২৪, রুবেল ১, রাহি ০, এবাদত ০*; আফ্রিদি ২১.৫-৩-৫৩-৪, আব্বাস ১৭-৯-১৯-২, হারিস ৬-২-১১-২, নাসিম ১৬-০-৬১-১।

নতুন বল নিয়েই পাকিস্তানের বাজিমাতঃ

৮০ ওভার পার হতেই দ্বিতীয় নতুন বল নিতে দেরি করেননি পাকিস্তান দলপতি আজহার আলি। নতুন বল শাহীন শাহ আফ্রিদির হাতে তুলে দেন আজহার। ওভারের ১ম ৫ বল কোনভাবে রুবেল হোসেন পার পেলেও শেষ বলে বোল্ড হন তিনি। রুবেলকে ফিরিয়ে আফ্রিদি পান নিজের ৪র্থ উইকেট। পরের ওভারে নাসিম শাহের বলে উইকেটের পেছনে ক্যাচ দেন মোহাম্মদ মিঠুন। ১৪০ বলে ৭ চার, ১ ছয়ে ৬৩ রান করে থামেন মিঠুন। কোন রান না করে রান আউট হন আবু জায়েদ রাহি। ৮২.৫ ওভারে ২৩৩ রানে অলআউট হয় বাংলাদেশ। এরপর আলোক স্বল্পতায় আর ব্যাটিংয়ে নামেনি পাকিস্তান।

 

View this post on Instagram

 

Not big enough, but good knock from Mohammad Mithun. #PAKvBAN

A post shared by cricket97 (@cricket97bd) on

মিঠুনের ফিফটিঃ

নিজের খেলা ১৩৭ নম্বর বলে ইয়াসির শাহের বল পুল করে মিডউইকেট দিয়ে সীমানা ছাড়া করে ফিফটি পূর্ন করেন মোহাম্মদ মিঠুন। যা কিনা মিঠুনের টেস্ট ক্যারিয়ারের ২য় ফিফটি। পরের বলেই লং অফ দিয়ে হাঁকান ইনিংসের প্রথম ছক্কা।

 

View this post on Instagram

 

2nd test fifty for Mohammad Mithun. #PAKvBAN

A post shared by cricket97 (@cricket97bd) on

তাইজুলের ধৈর্যচ্যুতিঃ

মোহাম্মদ মিঠুনকে ভালোই সঙ্গ দিচ্ছিলেন তাইজুল ইসলাম। ৭ম উইকেটে ১০০ এর বেশি বল খেলে এই দুজন জুটিতে তোলেন ৫৩ রান। ধৈর্যশীল হয়ে পাকিস্তানের বোলারদের মোকাবেলা করছিলেন। তবে নিজের খেলা ৭২ তম বলে হারিস সোহেলকে উড়িয়ে মারার চেষ্টায় মিড অফে ইয়াসির শাহ’র হাতে ধরা পড়েন তাইজুল, ৪ চারে তাইজুল করেন ২৪ রান।

সংক্ষিপ্ত স্কোর (১ম দিন ২য় সেশন শেষে):

বাংলাদেশ ১৭২/৬ (৬৩), তামিম ৩, সাইফ ০, শান্ত ৪৪, মুমিনুল ৩০, মাহমুদউল্লাহ ২৫, মিঠুন ৩০*, লিটন ৩৩, তাইজুল ১*; আফ্রিদি ১৫-০-৪৫-৩, আব্বাস ১৭-৯-১৯-২, হারিস ৪-১-৬-১।

আরো এক সম্ভাবনার অপমৃত্যুঃ

মুমিনুল হক ও নাজমুল হোসেন শান্ত’র পর ভালো শুরু করে ইনিংস বড় করতে ব্যর্থ হলেন লিটন দাসও। পার্ট টাইমার হারিস সোহেলের বলে এলবিডব্লিউ হয়ে সাজঘরে ফিরেছেন লিটন। তাতে ভেঙেছে লিটন ও মিঠুনের মধ্যকার ৫৪ রানের জুটি। ৪৬ বলে ৭ চারে ৩৩ রান করা লিটনকে অবশ্য অনফিল্ড আম্পায়ার নাইজেল লং আউট দেননি। পরে রিভিউ নিয়ে সফল হয় পাকিস্তান।

আফ্রিদির তৃতীয় শিকার মাহমুদউল্লাহঃ

মাহমুদউল্লাহ রিয়াদকে ফিরিয়ে নিজের ৩য় উইকেটের দেখা পেলেন শাহীন শাহ আফ্রিদি। ৪৮ বলে ৪ চারে ২৫ রান করে মাহমুদউল্লাহ থার্ড স্লিপে থাকা আসাদ শফিককে ক্যাচ দেন।

লাঞ্চ ব্রেকের পরেই ফিরলেন শান্তঃ

৪৪ রান নিয়ে লাঞ্চ ব্রেকে গিয়েছিলেন নাজমুল হোসেন শান্ত। লাঞ্চ ব্রেক থেকে ফিরে আর কোন রান যোগ না করতে পেরেই সাজঘরে ফেরেন তিনি। মোহাম্মদ আব্বাসের দ্বিতীয় শিকার শান্ত উইকেটের পেছনে থাকা মোহাম্মদ রিজওয়ানকে ক্যাচ দেন।

 

View this post on Instagram

 

Shanto departs after the lunch break. #PAKvBAN

A post shared by cricket97 (@cricket97bd) on

আশা দেখাচ্ছেন শান্তঃ

মুমিনুল হকের সঙ্গে জুটি বেঁধে স্কোরবোর্ডে যোগ করেছিলেন ৫৮ রান। এবারে জুটি বেঁধেছেন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের সঙ্গে। ১ম দিন লাঞ্চ বিরতির আগে শান্ত পাচ্ছেন ফিফটির সুবাস।

১ম দিন লাঞ্চ বিরতি পর্যন্ত বাংলাদেশ ৯৫/৩ (৩৩), তামিম ৩, সাইফ ০, শান্ত ৪৪*, মুমিনুল ৩০, মাহমুদউল্লাহ ১৭*; আফ্রিদি ১০-০-৩০-২, আব্বাস ১০-৬-৭-১।

ফিরলেন মুমিনুলঃ

৩ রানেই ২ উইকেট পড়ে যাবার পর অধিনায়ক মুমিনুল হক ও তিনে নামা নাজমুল হোসেন শান্ত বিপর্যয় কাটানোর চেষ্টা করছিলেন। ধীর লয়ে ব্যাটিং করে দুজনের জুটি ৫০ এর গন্ডিও পার করে। তবে জুটি থামে ৫৮ রানে, ৫৯ বলে ৫ চারে ৩০ রান করে শাহীন শাহ আফ্রিদির দ্বিতীয় শিকারে পরিণত হন মুমিনুল হক। পাঁচ নম্বরে ব্যাট করতে নেমেছেন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ।

তামিমকে ফেরালেন আব্বাসঃ

প্রথম ওভারে সাইফকে ফেরান শাহীন শাহ আফ্রিদি, দ্বিতীয় ওভারে তামিম ইকবালকে ফেরালেন মোহাম্মদ আব্বাস। বাংলাদেশের ইনিংসের প্রথম ১০ বলেই নেই ২ উইকেট। আব্বাসের বলে লেগ বিফোর উইকেটের ফাঁদে পড়েন তামিম। শুরুতে অবশ্য অন ফিল্ড আম্পায়ার আউট দেননি, রিভিউ নিয়ে সফল হন আব্বাস।

শুন্য হাতে ফিরলেন সাইফঃ

টেস্ট অভিষেক রাঙাতে পারলেন না সাইফ হাসান। শাহীন শাহ আফ্রিদির করা প্রথম ওভারেই সাজঘরে ফিরেছেন এই ডানহাতি ওপেনার। সেকেন্ড স্লিপে ক্যাচ ধরেছেন বাবর আজম।

বাংলাদেশ একাদশ-

তামিম ইকবাল, সাইফ হাসান, নাজমুল হোসেন শান্ত, মুমিনুল হক (অধিনায়ক), মোহাম্মদ মিঠুন, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, লিটন দাস (উইকেটরক্ষক), তাইজুল ইসলাম, রুবেল হোসেন, আবু জায়েদ চৌধুরী রাহি ও এবাদত হোসেন।

পাকিস্তান একাদশ-

শান মাসুদ, আবিদ আলি, আজহার আলি (অধিনায়ক), বাবর আজম, হারিস সোহেল, আসাদ শফিক, মোহাম্মদ রিজওয়ান (উইকেটরক্ষক), ইয়াসির শাহ, মোহাম্মদ আব্বাস, নাসিম শাহ ও শাহীন শাহ আফ্রিদি।

টস আপডেটঃ

টসে জিতে আগে বাংলাদেশকে ব্যাট করতে পাঠিয়েছেন পাকিস্তান দলপতি আজহার আলি।

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

সিলেটে তাসকিন আহমেদের বোলিং তোপ

Read Next

অনূর্ধ্ব-১৯ দলের যে ‘৪’ জনকে জাতীয় দলে দেখতে চান সুজন

Leave a Reply

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।

Total
16
Share
error: Content is protected !!