ওয়ালশের ঘরেও বাউন্সি উইকেট!

অ্যান্টিগাতে রীতিমত বিধ্বস্ত হয়েছে টিম বাংলাদেশ। বিশ্বস্ত হয়েছে ক্যারিবিয়ানদের আগুনে বোলিংয়ের সামনে, আরো নির্দিষ্ট করে বললে পেসারদের সামনে। ৪৩ রানের লজ্জাতে লুকাতে হয়েছে মাথা। এবার অ্যান্টিগা ছেড়ে লড়াইটা জ্যামাইকাতে। যেটা কীনা আবার টাইগারদের বোলিং গুরু কোর্টনি ওয়ালশের আপন নিবাস। সেই জ্যামাইকাতে কি ঘুরে দাঁড়াতে পারবে বাংলাদেশ, নাকি সেখানেও অপেক্ষা করছে আরেক লজ্জা?

সেই লজ্জার শঙ্কাটা কিন্তু উড়িয়ে দেওয়ার জো নেই একদম। অ্যান্টিগা থেকে জ্যামাইকা, বাড়িতে ফেরা ওয়ালশে। কেননা এই জ্যামাইকাতেই যে জন্ম বাংলাদেশের বোলিং কোচ কোর্টনি ওয়ালশের। এখানকার আলো-বাতাসে বেড়ে ওঠা। জ্যামাইকার হয়ে খেলেই ওয়েস্ট ইন্ডিজে সুযোগ পাওয়া আর বিশ্ব ক্রিকেট মাতানো। সেই জ্যামাইকাতে ফিরেও স্বস্তিতে নেই ওয়ালশ!

থাকবেনই বা কি করে? ক্যারিবিয়ান কিংবদন্তি এই ক্রিকেটার এখন যতটা না উইন্ডিজের তার থেকে ঢের বেশি বাংলাদেশের। সেই বাংলাদেশ দলের জন্যই যে এই জ্যামাইকা আরেক মরণ ফাদ। অ্যান্টিগার মতো জ্যামাইকাও হবে সবুজের মহারণ্য, বাউন্সি উইকেট। তবে এসব এখন ভাবনাতে আনতে চাননা ওয়ালশ, নিতে চান এখানকার চ্যালেঞ্জটা।

ওয়ালশ বলেন, ‘ঘরে ফিরে অবশ্যই ভালো লাগছে। আমরা দ্বিতীয় টেস্ট ম্যাচটির জন্য মুখিয়ে আছি। আশা করছি এখানকার (জ্যামাইকা) উইকেটেও ঘাস থাকবে, বাউন্স থাকবে।’

অ্যান্টিগায় পেসারদের জন্য মনের মতো উইকেটেও ভীষণ রকম বিবর্ণ ছিলেন রুবেলরা। জ্যামাইকায় শিষ্যদের জ্বলে উঠতে দেখতে চান ওয়ালশ। তিনি বলেন, ‘প্রথম টেস্ট অবশ্যই আমাদের প্রত্যাশা মতো ভালো যায়নি। তবে আরেকটি টেস্ট আছে। আমাদের সুযোগ আছে ঘুরে দাঁড়ানোর। আমাদের আরও মনোযোগী হতে হবে। ধারাবাহিকভাবে ভালো বোলিং করতে হবে। আমাদের ফাস্ট বোলারদের জন্য এটি আরেকটি ভালো সুযোগ।’

97 Desk

Read Previous

নির্ধারিত হল সেমিফাইনালে বাঘিনীদের প্রতিপক্ষ

Read Next

ক্রিকেটকে বিদায় বলবেন হেরাথ

Leave a Reply

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Total
0
Share