হ্যামিল্টন টেস্টের প্রথমদিন নিউজিল্যান্ডের

হ্যামিল্টনে ঝড়ো সেঞ্চুরি তুলে নিয়েছেন তামিম ইকবালতবে যথারীতি ব্যর্থ বাকি ব্যাটসম্যানরা। শেষদিকে রোবটের মতো চেষ্টা করলেন লিটন দাস। তাতেও কাজ হয়নি। শেষ পর্যন্ত ২৩৪ রানে গুটিয়ে গেছে সফরকারীরা। নিজেদের মাটিতে অবশ্য নিউজিল্যান্ডের সামনে এই রান কিছুই নয়। দিন শেষে দুই ওপেনার মিলেই তুলে ফেলে ৮৬ রান। স্বাগতিকরা পিছিয়ে আছে মাত্র ১৪৮ রানে। অতিথিদের জন্য বড় লিড দাঁড় করাবে কেন উইলিয়ামসনের দল।

টস জিতে বাংলাদেশকে ব্যাটিংয়ের আমন্ত্রণ জানান নিউজিল্যান্ড অধিনায়ক কেন উইলিয়ামসন। তবে শুরুটা শুভ হয় টাইগারদের। উড়ন্ত সূচনা এনে দেন তামিম ইকবাল ও সাদমান ইসলাম। ৩২ বলে ২৪ রান করে ট্রেন্ট বোল্টের বলে বোল্ড হয়ে মাঠ ছাড়েন সাদমান। এতে ভাঙে ৫৭ রানের উদ্বোধনী জুটি।

এরপর নতুন ব্যাটসম্যান মুমিনুল হককে দর্শক বানিয়ে শটের রোমাঞ্চ ছড়ান তামিম। ১৩ ওভারের প্রথম তিন বলে বোল্টকে টানা তিনটি চার মেরে মাত্র ৩৭ বলে হাফসেঞ্চুরি করেন তিনি।

৩৭ বলে ফিফটির পর ১০০ বলে ক্যারিয়ারের নবম সেঞ্চুরিতে পৌঁছান তামিম। কিন্তু চোখ ধাঁধানো এক ইনিংস খেলে তামিমের বিদায়ও হয়েছে বাজে শটে। কলিন ডি গ্র্যান্ডহোমকে দুবার ক্যাচ দিয়ে বেঁচেছিলেন কিন্তু তৃতীয় বারের আর হয়নি। অনেক বাইরের শর্ট ডেলিভারিতে তামিম ক্যাচ দেন গালিতে।

তার আগে লাঞ্চ থেকে ফিরেই অদ্ভুত বাজে শটে ইনিংসের ইতি টানেন মোহাম্মদ মিঠুন। ওয়ানডেতে ভালো খেলা এই ব্যাটসম্যান টেস্টে তার পজিশনকে প্রশ্নবিদ্ধ করে শর্ট বলে ক্যাচ উঠান মিডউইকেটে। করেন মাত্র ৮ রান।

সৌম্য সরকার অবশ্য নিজেকে সামলেই খেলতে চেয়েছিলেন। টিম সাউদির বেরিয়ে যাওয়া বল ছেড়ে দিচ্ছিলেন কিন্তু হালকা স্যুয়িং করে তা ছুঁয়ে যায় তার গ্লাভস।

তামিমের ফেরার পর সব দায়িত্ব নিতে পারতেন মাহমুদউল্লাহ। কিন্তু অধিনায়ক ফেরেন সবচেয়ে দায়িত্বহীন শটে। নিল ওয়েগনারকে পুল করতে গিয়ে টপ এজ হয়ে তার ক্যাচ যায় লং লেগে। ওয়গনারকেই ক্যাচ দিয়ে চা-বিরতির ঠিক আগে বিদায় নেন মেহেদী হাসান মিরাজ।

একমাত্র স্বীকৃত ব্যাটসম্যান হিসেবে শেষ পর্যন্ত ছিলেন লিটন। কিন্তু টেল এন্ডারদের নিয়ে লড়াই লম্বা করতে পারেননি তিনি। শেষ ব্যাটসম্যান হিসেবে আউট হন ২৯ রান করে।

নিজেদের প্রথম ইনিংসে ব্যাট করতে নেমে ধীরে চলো নীতি গ্রহণ করেন রাভাল-লাথাম। প্রথমে ধীর-লয়ে হাঁটেন তারা। ক্রিজে সেট হওয়ার পর হাত খোলেন। বাজে বল পেলেই সীমানাছাড়া করেন। দারুণ মেলবন্ধন গড়ে ওঠে তাদের মধ্যে। পথিমধ্যে ক্যারিয়ারে অষ্টম টেস্ট ফিফটি তুলে নেন রাভাল। ৫১ রানে অপরাজিত থেকে মাঠ ছাড়েন তিনি। ফিফটির দোরগোড়ায় লাথামও। তিনি অপরাজিত আছেন ৩৫ রানে। ১৪৮ রানে পিছিয়ে থেকে দ্বিতীয় দিনে খেলা শুরু করবেন এ জুটি।

শুন্যতে ফিরতে পারতেন টম ল্যাথাম, এবাদতের বলে স্লিপে সৌম্য ক্যাচ ছাড়ায় সেটা হয়নি। শুরুতে বেশ কিছু মুভমেন্ট জাগিয়েছিল সম্ভাবনা, বিশেষ করে এবাদত ও আবু জায়েদের বোলিংয়ে। তবে সেসব কাটিয়ে উঠেছেন রাভাল ও ল্যাথাম।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

বাংলাদেশ প্রথম ইনিংস: ৫৯.২ ওভারে ২৩৪ (তামিম ১২৬, সাদমান ২৪, মুমিনুল ১২, মিঠুন ৮, সৌম্য ১, মাহমুদউল্লাহ ২২, লিটন ২৯ মিরাজ ১০; বোল্ট ১/৬২, সাউদি ৩/৭৬, ডি গ্র্যান্ডহোম ১/৩৯, ওয়েগনার ৫/৪৭

নিউজিল্যান্ড ১ম ইনিংস: ৮৬/০* (২৮ ওভার)

97 Desk

Read Previous

রেকর্ড বুকে গেইল, ছুঁয়েছেন অনন্য এক মাইলফলক

Read Next

ভারতের নিরাপত্তা দাবি মেনে নিল আইসিসি

Leave a Reply

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।