বাংলাদেশের দশক সেরা টেস্ট দল

বাংলাদেশ টেস্ট

এই দশকে (২০১০-২০১৯) বাংলাদেশ খেলেছে ৫৬ টেস্ট, জিতেছে ১০ টিতে, ড্র হয়েছে ১০ টি ম্যাচ। বাংলাদেশের হয়ে টেস্ট খেলেছেন ৫৬ জন ক্রিকেটার। ৫০ এর বেশি টেস্ট খেলেছেন কেবল মুশফিকুর রহিম। ৪০ এর বেশি টেস্ট খেলেছেন সাকিব আল হাসান (৪২), তামিম ইকবাল (৪৬) ও মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ (৪৬)। ৩০ এর বেশি ম্যাচ খেলেছেন মুমিনুল হক (৩৮) ও ইমরুল কায়েস (৩৩)।

বাংলাদেশের দশকের সেরা টেস্ট দল গড়তে ক্রিকেট৯৭ বিবেচনায় নিয়েছে এই ৫৬ জন ক্রিকেটারের এই দশকে খেলার ব্যাপ্তি, ম্যাচ সংখ্যা ও অবস্থান বিবেচনায় পারফরম্যান্স। সেক্ষেত্রে অনেকে দাপুটে পারফরম্যান্স দেখিয়েও ম্যাচ সংখ্যা ও অভিষেকের পর থেকে জাতীয় দলে কাটানোর সময় বিবেচনায় পিছিয়ে পড়েছেন।

আগে দেখা নেওয়া যাক এই দশকে ব্যাটিং, বোলিং ও উইকেটকিপিং এ বাংলাদেশের সেরা/সফল ছিলেন কারা।

এই দশকে টেস্টে বাংলাদেশের হয়ে সর্বোচ্চ রান-

১. তামিম ইকবাল- ৩৭১৯
২. মুশফিকুর রহিম- ৩৫৩১
৩. সাকিব আল হাসান- ৩১৪৭
৪. মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ- ২৬৯৪
৫. মুমিনুল হক- ২৬৫৭

৬. ইমরুল কায়েস- ১৬৩৬
৭. নাসির হোসেন- ১০৪৪
৮. সৌম্য সরকার- ৮১৮
৯. লিটন দাস- ৭৪৪
১০. মেহেদী হাসান মিরাজ- ৬৩৮

এই দশকে টেস্টে বাংলাদেশের হয়ে সবচেয়ে বেশি উইকেট শিকার-

১. সাকিব আল হাসান- ১৬২
২. তাইজুল ইসলাম- ১০৬
৩. মেহেদী হাসান মিরাজ- ৯০
৪. সোহাগ গাজী- ৩৮
৫. মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ- ৩১

৬. রুবেল হোসেন- ৩০
৭. মুস্তাফিজুর রহমান- ২৮
৮. রবিউল ইসলাম- ২৫
৯. আব্দুর রাজ্জাক- ২১
১০. শাহাদাত হোসেন- ১৯

এই দশকে বাংলাদেশের হয়ে উইকেটরক্ষক-

মুশফিকুর রহিম- ৯১ ডিসমিসাল
লিটন দাস- ২২ ডিসমিসাল
নুরুল হাসান সোহান- ৮ ডিসমিসাল।

ওপেনার হিসাবে এই দশকে সবচেয়ে বেশি রান তামিম ইকবালের (৩৬৮০)। দ্বিতীয় স্থানে আছেন ইমরুল কায়েস (১৪০৭)। সৌম্য সরকার ওপেন করতে নেমে ২৭.৬৬ গড়ে ৪৯৮ রান করলেও পাননি কোন সেঞ্চুরির দেখা। এছাড়া আর কোন ব্যাটসম্যান ওপেনার হিসাবে ১০ টেস্ট বা তার বেশি খেলেননি।

তিনে নেমে এই দশকে সবচেয়ে বেশি সফল বাংলাদেশি ব্যাটসম্যানের নাম মুমিনুল হক। ২৭ ম্যাচের ৫০ ইনিংসে তিন নম্বরে ব্যাট করতে নেমে ৩৩.৯৭ গড়ে ১৬৬৫ রান করেছেন মুমিনুল। ৭ ফিফটির সাথে আছে ৫ সেঞ্চুরি।

চার নম্বরে নেমেও এই দশকে বাংলাদেশের পক্ষে সর্বোচ্চ টেস্ট রানের মালিক মুমিনুল হক। ১১ ম্যাচের ১৯ ইনিংসে ব্যাট করে ৬০ গড়ে মুমিনুলের রান ৯৬০। ৬ ফিফটির সাথে আছে ৩ সেঞ্চুরি। তবে এই সময়কালে ২৫ ইনিংসে চার নম্বরে ব্যাট করেছেন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। ৩১.৮০ গড়ে রান করেছেন ৭৯৫। সেঞ্চুরি না থাকলেও ফিফটি আছে ৫ টি।

পাঁচ নম্বরে নেমে এই দশকে বাংলাদেশের পক্ষে সর্বোচ্চ টেস্ট রান সাকিব আল হাসানের। ২৬ ম্যাচের ৪৫ ইনিংসে ৫ নম্বরে ব্যাট করে সাকিবের রান ১৮০১। গড় ৪৫.০২, সেঞ্চুরি ২ টি, ফিফটি ১৩ টি। ক্যারিয়ারের একমাত্র ডাবল সেঞ্চুরিও সাকিব করেছেন ৫ নম্বরে নেমে।

এই দশকে সবচেয়ে সফল বাংলাদেশি উইকেটরক্ষক মুশফিকুর রহিম। টেকনিক্যালি দলের সেরা ব্যাটসম্যান হলেও গ্লাভস হাতে উইকেটের পেছনে দাঁড়ানো মুশফিকের ব্যাটিং অর্ডার নিচে নেমেছে। এই দশকে ২৯ ম্যাচের ৪৭ ইনিংসে ৬ নম্বরে ব্যাট করেছেন মুশফিক। সেখানে ৩৮.৭৯ গড়ে রান করেছেন ১৭০৭। ৬ ফিফটির সাথে আছে ৪ টি সেঞ্চুরি, যার একটি আবার ডাবল সেঞ্চুরি।

এই দশকে টেস্টে ৭ নম্বরে নেমে সবচেয়ে বেশি টেস্ট রান করা ব্যাটসম্যানের নাম নাসির হোসেন। ৩৮.৬০ গড়ে এই সময়ে নাসির রান করেছেন ৭৭২। ৫ টি ফিফটির সাথে আছে ১ সেঞ্চুরিও।

দুই স্পিনার- এই সময়ে সাকিব আল হাসান ছাড়া স্পিন ডিপার্টমেন্টে দুই সফল বোলারের নাম তাইজুল ইসলাম ও মেহেদী হাসান মিরাজ।

দুই পেসার- এই দশক শুরুর দিকে রবিউল ইসলাম শিবলু বল হাতে ছিলেন দারুণ ফর্মে। ৯ টেস্টেই ৩৯.৬৮ বোলিং গড়ে তুলে নিয়েছিলেন ২৫ উইকেট। ২ বার ইনিংসে নিয়েছিলেন ৫ উইকেট। সাদা পোশাকে মুস্তাফিজুর রহমান ছিলেন মন্দের ভালো। ১৩ ম্যাচের ২১ ইনিংসে বল করে মুস্তাফিজের শিকার ২৮ উইকেট। রুবেল হোসেনের উইকেট ৩০ টি হলেও তাঁকে বল করতে হয়েছে ৩৯ ইনিংসে, গড় টা ভদ্রস্থ নয় মোটেও- ৮২.৩০। এছাড়া শাহাদাত হোসেন ২৫ ইনিংসে ১৯ উইকেট নেন এই সময়ে।

ক্রিকেট৯৭ এর চোখে এই দশকে (২০১০-২০১৯) বাংলাদেশের সেরা টেস্ট দল (একাদশ)-

তামিম ইকবাল, ইমরুল কায়েস, মুমিনুল হক, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, সাকিব আল হাসান, মুশফিকুর রহিম (উইকেটরক্ষক ও অধিনায়ক), নাসির হোসেন, মেহেদী হাসান মিরাজ, তাইজুল ইসলাম, মুস্তাফিজুর রহমান ও রবিউল ইসলাম।

Read Previous

সতীর্থদের সাম্প্রদায়িক আচরণের শিকার হতেন ক্যানেরিয়া

Read Next

বক্সিং ডে টেস্টের দ্বিতীয় দিন শেষে চালকের আসনে অজিরা

Leave a Reply

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Total
15
Share