‘আমার দুর্ভাগ্য, আমি পারিনি’

শেষ হয়েও যেনো হচ্ছে না শেষ! আফগানিস্তান সিরিজ গত হয়েছে বেশ কিছুদিন আগে, এবার সামনে অপেক্ষা করছে উইন্ডিজ সফর। সেই সিরিজকে সামনে রেখে যতটা না আলোচনা হচ্ছে তার থেকে ঢের বেশি হচ্ছে গত হয়ে যাওয়া আফগান সিরিজকে ঘিরে। এর কারণও আছে বৈকি, আর যাই হোক ক্রিকেট পাড়ার নতুন পরাশক্তি হয়ে ওঠা আফগানিস্তানের কাছে ধবলধোলাইটা মানা যায়না কিছুতেই। মানতে পারছেন না আরিফুল হকও, তবে আক্ষেপে পুড়তে নারাজ এই অলরাউন্ডার।

আফগানদের সাথে সিরিজ শুরুর আগে আলোচনার বড় অংশ হয়ে ছিলেন স্পিনার রাশিদ খান। দিন শেষে সেই রাশিদেই পুড়তে হয়েছে টাইগার ব্যাটসম্যানদের। তিন ম্যাচে বল হাতে মাত্র ৪৯ রান খরচাতে রাশিদ নিজের শিকার বানিয়েছেন আট’জন টাইগার ব্যাটসম্যানকে।

আগেই দুই ম্যাচের দুইটাতেই হেরে সিরিজ খোয়ানো বাংলাদেশের সামনে সুযোগ ছিলো শেষ ম্যাচটা জিতে মান বাঁচানোর। তবে শেষ পর্যন্ত হয়ে উঠেনি তা। আরো পরিষ্কার করে বললে হতে দেননি রাশিদ খান। সিরিজের শেষ ম্যাচে জয়ের সবচেয়ে কাছে গিয়েছিল বাংলাদেশ, আট রানের সম্বল নিয়ে শেষ ওভারে আটকে দিয়েছিলেন রাশিদ। শেষ বলে ৪ রান প্রয়োজন ছিল, আরিফুলের শটটা বাউন্ডারি থেকে ফিরিয়েছিলেন শফিকউল্লাহ।

সেই বলে স্ট্রাইক নেওয়া আরিফুল এখনো বিশ্বাস করতে পারছেন না নিজেকে। তবে, ‘আমার কোনও আক্ষেপ নেই, ম্যাচ জেতানোর এতো বড় একটা সুযোগ পাওয়ার পরও’ জানিয়ে আরিফুল বলেন, ‘জাতীয় দলের হয়ে আমি মাত্র তিনটি টি-টোয়েন্টি খেলেছি। আমি যদি জেতাতে পারতাম, তাহলে এই ম্যাচের স্মৃতি মৃত্যু পর্যন্ত মনে রাখতাম। তবে আমার দুর্ভাগ্য, আমি করতে তা পারিনি।’

ম্যাচের সেসময়ে ভাগ্যটাও রাশিদের পক্ষেই ছিলো জানিয়ে আরিফুল আরো বলেন, ‘আমার মনে হয়, আমরা রাশিদকে নামের বিচারে খেলছি। যদি বলের বিচারে খেলতাম, ফল ভিন্ন হতো। আদতে ব্যাপারটা হচ্ছে, সময় যখন কারও পক্ষে যায়, তাহলে কিছু করার থাকে না। তার (রাশিদ) সময়টা খুব ভাল যাচ্ছে। এমন সময় মুত্তিয়া মুরালিধরন, সুনিল নারাইন, অজন্তা মেন্ডিসদেরও গেছে। তবে তাকে খেলা এখন খুব বেশি কঠিন হবে না।’

97 Desk

Read Previous

১৮ বছর বয়সী আফিফের বেতন ৭৫ হাজার

Read Next

বিসিএসএ ইউকে’র ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত

Leave a Reply

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।

Total
0
Share