অতীত ভুলে নিজেকে যেভাবে ‘মোটিভেট’ করতে চান জেসন মোহাম্মদ

অতীত ভুলে নিজেকে যেভাবে 'মোটিভেট' করতে চান জেসন মোহাম্মদ

আড়াই বছরের বেশি সময় জাতীয় দলের বাইরে থাকা জেসন মোহাম্মদই বাংলাদেশ সফরের আগে ফিরলেন ওয়েস্ট ইন্ডিজের ওয়ানডে অধিনায়ক হয়ে। মূলত করোনা শঙ্কায় বেশিরভাগ সিনিয়র ক্রিকেটার নাম সরিয়ে নেওয়াতেই নাটকীয়ভাবে দায়িত্ব বর্তালো তার কাঁধে। একদিকে নিজেই জাতীয় দলে অনিয়মিত, অন্যদিকে নেতৃত্ব দিতে হবে অনভিজ্ঞ একটি দলকে। তবে অধিনায়কত্বের অভিজ্ঞতা আগে থেকেই আছে বলে নিজেকে অনুপ্রাণিত করা কঠিন হবেনা বলছেন জেসন মোহাম্মদ।

প্রায় ১০ বছরের আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ার, তবে কখনোই দলে নিয়মিত ছিলেন না। এই সময়ে ক্যারিবিয়ান জার্সিতে খেলেছেন মাত্র ২৮ ওয়ানডে ও ৯ টি-টোয়েন্টি ম্যাচ। অবশ্য দুই ফরম্যাটেই দলকে নেতৃত্ব দেওয়ার সুযোগ হয়েছে ডানহাতি এই ব্যাটসম্যানের। একটি ওয়ানডে ও তিনটি টি-টোয়েন্টিতে নেতৃত্ব দিয়ে হেরেছেন সবকটিতেই। ঘরোয়া ক্রিকেটেও নিয়মিত অধিনায়কত্ব করেন জেসন মোহাম্মদ।

কাকতালীয়ভাবে জেসন মোহাম্মদ বাদ পড়েছিলেন ২০১৮ সালে বাংলাদেশের বিপক্ষে নিজেদের মাটিতে বাজে পারফরম্যান্সের পর। দুই ওয়ানডেতে সুযোগ পেয়ে সেবার করতে পারেননি ২২ রানের বেশি। এবার খেলতে হবে বাংলাদেশের মাটিতে, যে দলটির বিপক্ষে নিজের পরিসংখ্যানই বাজে এবং খেলতে হবে অনভিজ্ঞ একটি দল নিয়ে সেক্ষেত্রে কিভাবে নিজেকে মোটিভেট (অনুপ্রাণিত) করবেন জেসন?

আজ (১৪ জানুয়ারি) সন্ধ্যায় এক ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে এমন প্রশ্নের জবাবে ওয়েস্ট ইন্ডিজ ওয়ানডে অধিনায়ক বলেন, ‘কয়েক বছর ধরে আমি আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের বাইরে ছিলাম। আমার নিজেকে অনুপ্রাণিত করাটা কঠিন হবে না। আমি আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেলে যেতে চাই। ক্যারিবিয়ান দলকে নেতৃত্ব দেওয়া অনেক বড় দায়িত্ব। এখানে অতিরিক্ত কোন চাপ নেই কারণ অধিনায়ক হিসেবে খেলা এমন কিছু যা আমি অভ্যস্ত। আমি কেবল সিরিজটি উপভোগ করতে চাই।’

‘আমি দুই বছরের বেশি সময় দলে ছিলাম না। এখন ফিরতে পেরে খুবই খুশি, বিশেষ করে আমাকে যে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে দলকে নেতৃত্ব দেয়ার তার জন্য। অবশ্যই এটি বড় একটি দায়িত্ব। আমি আমার সামর্থ্যের সেরাটা দিয়ে দলকে একটি সিরিজ জয়ে নেতৃত্ব দিতে চাই।

এর আগে ২০১৭ সালে সাউদাম্পটনের রোজ বোলে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে একমাত্র ওয়ানডেতে নেতৃত্ব দেন ৩৪ বছর বয়সী জেসম মোহাম্মদ। দ্বিতীয়বার ক্যারিবিয়ান ওয়ানডে দলের অধিনায়কত্বের দায়িত্ব পাওয়া এই ব্যাটসম্যান বলছেন এটি তার জন্য গর্বের ও সম্মানের।

তিনি বলেন, ‘দ্বিতীয়বারের মত আমি অধিনায়কত্ব করছি। এটি করতে পেরে আমি বেশ খুশি। ব্যক্তিগতভাবে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে নেতৃত্ব দেওয়া আমার জন্য বড় সুযোগ। এটা আমার নিজের অনেক বড় অর্জন ও সম্মানের ব্যাপার। বড় হয়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজের হয়ে খেলবো সবসময় এমন চাওয়া ছিল।’

‘কিন্তু এখন ক্যারিবিয়ান দলকেই নেতৃত্ব দিচ্ছি, এটা অন্যরকম অনুভূতি। কখনো কখনো কিছু জিনিস ভিন্নভাবে আসে। আমাকে এসব সুযোগ নিতে হবে এবং সর্বোচ্চ কাজে লাগাতে হবে। আর নিজের সামর্থ্যের সেরাটা দিয়ে দলকে টেনে নিতে হবে।’

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

রেকর্ড গড়া সেঞ্চুরি করে প্রশংসায় ভাসছেন মোহাম্মদ আজহারউদ্দিন

Read Next

বাংলাদেশ সফরে আসা তরুণদের উদ্দেশ্যে লয়েডের বিশেষ চিঠি

Total
4
Share
error: Content is protected !!