উনিশদের জাতীয় দলে খেলাতে একুশের ভাবনা বিসিবির

আকবরদের বিশ্বজয়ের পরদিনই স্বল্প সময়ের নোটিশে বৈঠকে বসেন বিসিবি সভাপতি, উদ্দেশ্য একটা দেশের ক্রিকেটে নতুন অধ্যায় রচনা করা খুদে বাঘেদের কীভাবে অভ্যর্থনা জানানো হবে। সাথে গুরুত্বপূর্ণ আরও একটি বিষয় ছিল, কীভাবে তাদের ভবিষ্যতের জন্য নার্সিং করা হবে। বয়সভিত্তিকে ভালো করে জাতীয় পর্যায়ে আসার আগেই হারিয়ে যাওয়ার উদাহরণ কম নেই।

আর সেজন্যই আকবর, রাকিবুল, সাকিব, তামিম, শরিফুলদের নিয়ে স্বপ্নের পরিধিটা যত বড়; শঙ্কা, ভয়টাও রয়েছে ততটাই। কিন্তু আকবরদের আগলে রাখতে এবার বোর্ডও খুব তৎপর। সেদিন বৈঠকের পরই জানিয়েছেন বিশ্ব জয় করা টাইগার যুবাদের নিয়ে আছে বিশেষ পরিকল্পনা আর সেটা তারা যেদিন দেশে আসবে সেদিনই জানাবেন।

গতকাল (১২ ফেব্রুয়ারি) বীরের বেশে দেশে ফেরা শামীম, মাহমুদুল, রাকিবুল, অভিষেকরা বিমানবন্দরে অবতরণের পর থেকে সংবাদ সম্মেলনের আগ পর্যন্ত বিসিবির কাছ থেকে পেয়েছেন উষ্ণ অভ্যর্থনা। দেশের ক্রীড়াঙ্গনে এমন কিছু নিশ্চিতভাবেই পায়নি আর কেউ।

কিন্তু আকবরদের নিয়ে কেবল উচ্ছ্বাস আর উদযাপনেই থেমে নেই বোর্ড। তাদের ভবিষ্যত নিয়েও বেশ নিবিড় পরিকল্পনার আভাস দুইদিন আগেই দিয়েছেন বিসিবি সভাপতি, ‘ধরেন একটা প্লেয়ার (যুব দলের) ভালো খেলল কিন্তু ওরাতো জাতীয় দলে সুযোগ পাচ্ছেনা। তখন ওরা করবেটা কি? আমি যদি এইচপিতে দেই দেখা যায় যারা জাতীয় দলে ছিল আগে বা এখন চান্স পাচ্ছেনা তারা যাচ্ছে। ওখানেও তারা ঢুকতে পারছেনা।’

‘আস্তে আস্তে কিন্তু এই খেলোয়াড় গুলো হারিয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকে এবং হারিয়ে গেছে এতদিন। সেজন্য অবশ্যই আমরা তাদের নিয়ে পরিকল্পনা করেছি, আগের থেকেই করা আছে। কিন্তু কি করবো সেটা আজকে বলবোনা, ওরা যেদিন ১২ তারিখ আসবে সেদিন জানাবো আপনাদেরকে।’

আর যুব দলের বিশ্বজয়ী অধিনায়ক আকবর আলিকে সংবাদ সম্মেলনে পাশে রেখেই পরিকল্পনা জানালেন নাজমুল হাসান পাপন, ‘এটা আগে থেকেই প্ল্যান করেছি সেটা হল অনূর্ধ্ব-২১ ইউনিট আমরা গঠন করবো। ওদেরকে এই অনূর্ধ্ব-১৯ এই দলটিকে আগামী দুই বছর স্পেশাল ট্রেনিংয়ের ব্যবস্থা করে, তাদের দক্ষতা বাড়ানোর লক্ষ্যে বিশেষায়িত ট্রেনিং করানো হবে। আমরা তাদেরকে দুই বছর ট্রেনিং দিবো এবং এই দুই বছর তাঁদের প্রত্যেকে প্রতিমাসে এইটা আগে কখনও হয়নি, প্রত্যেকটা খেলোয়াড় ১ লক্ষ টাকা করে পাবে। এইটা দুই বছরে চুক্তি, দুই বছর পর আবার রিনিউ করা হবে।’

তবে চুক্তিতে জায়গা ধরে রাখতে আকবরদেরও নিজেদের ধারাবাহিকতা বজায় রাখতে হবে জানালেন পাপন, ‘যদি আমরা দেখি ইম্প্রুভমেন্ট হচ্ছে, তাঁরা ভালো খেলছে অবশ্যই এইটা রিনিউ করা হবে। আর যদি দেখি কারও মধ্যে একটু বিচ্যুতি ঘটেছে, পরিবর্তনের কোনো লক্ষণ নেই তাহলে চুক্তি থেকে বাদ পড়বে।’

বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন যুব দলের ক্রিকেটারদের জাতীয় দলে খেলার রাস্তাটা যত মসৃণ করা যায় ততটাই করতে চায় বিসিবি, ‘যত রকমের সুযোগ সুবিধা দরকার যাতে করে তাঁরা দক্ষতা বৃদ্ধি করতে পারে এর জন্য সমস্ত সাহায্য সহযোগিতা বোর্ড তাঁদের জন্য ব্যয় করবে। এটাতে আমাদের ফান্ড আনলিমিটেড, যত লাগে। কারণ আমরা চাই দুই বছর পর তাঁরা আরও পরিণত হোক জাতীয় দলে খেলার জন্যে। এই ফাঁকে ফাঁকে শুধু ট্রেনিং নয় তাদের জন্য বাইরের দেশে আলাদা খেলার ব্যবস্থা করা, একটা খেলার মধ্যে থাকা দেশে ও বিদেশে। এ জিনিসগুলো আমরা করবো।’

নাজমুল হাসান তারেক

Read Previous

বাদ পড়ছেন মাহমুদউল্লাহ!

Read Next

বিয়ে করছেন সৌম্য, থাকছেন না জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে টেস্টে

Leave a Reply

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।

Total
9
Share
error: Content is protected !!