অল্পতেই পার পেয়ে গেলেন মোহাম্মদ শহীদ

মোহাম্মদ শহীদ

মাঠেই সতীর্থ পিটিয়ে আগেই ৫ বছরের জন্য নিষিদ্ধ হয়েছিলেন পেসার শাহাদাত হোসেন। বিসিবির টুর্নামেন্ট টেকনিক্যাল কমিটির চেয়ারম্যান মিনহাজুল আবেদিন নান্নু ইঙ্গিত দিয়েছেন ঘটনার সূত্রপাত করা আরেক পেসার মোহাম্মদ শহীদও পড়তে পারেন বড় শাস্তির মুখে। তবে শেষ পর্যন্ত প্রাথমিক সতর্কতা আর ১ বছরের স্থগিত নিষেধাজ্ঞা আরোপ হল শহীদের, একই শাস্তি প্রয়োগ হয়েছে আরাফাত সানি জুনিয়রের (যাকে মারা হয়েছে) ক্ষেত্রেও।

গত ১৭ নভেম্বর খুলনার শেখ আবু নাসের স্টেডিয়ামে জাতীয় লিগের শেষ রাউন্ডের দ্বিতীয় দিন বল ঘষে উজ্জ্বল করে দিতে সতীর্থ আরাফাতকে নির্দেশ দেন পেসার শাহাদাত। আরাফাত আপত্তি জানালে মোহাম্মদ শহীদ উত্তেজিত হয়ে বকাঝকা করেন আরাফাতকে, এক পর্যায়ে গায়ে তোলেন শাহাদাতও। চড়, থাপ্পড়ের সাথে লাথি দেওয়ার অভিযোগও ওঠে শাহাদাতের বিরুদ্ধে।

ম্যাচ রেফারির অভিযোগের ভিত্তিতে একদিন পরই ম্যাচ চলাকালীন শাহাদাতকে ডেকে পাঠায় বিসিবি। দিন কয়েক পরই প্রতিবেদন পর্যালোচনা করে ২ বছরের স্থগিত নিষেধাজ্ঞাসহ ৫ বছর নিষিদ্ধ করা হয়  জাতীয় দলের সাবেক এই পেসারকে।  সাথে গুনতে হয় তিন লাখ টাকা জরিমানাও।

শাহাদাত ছাড়াও ম্যাচ রেফারির দেওয়া প্রতিবেদন অনুসারে অভিযুক্ত করা হয় শহীদ ও আরাফাতকে। গত ৩০ নভেম্বর দুজনকেই ডেকে পাঠায় বিসিবি। বিসিবির আচরণবিধির লেভেল ২ ভেঙেছেন দুজনেই,  প্রমাণিতও হয়েছে সেটা। ১ বছরের স্থগিত নিষেধাজ্ঞা আরোপ হলেও তারা থাকবেন বিসিবির কড়া নজরদারিতে। কোন ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনার সাথে যুক্ত হলেই শাস্তি হবে কার্যকর।

টুর্নামেন্ট টেকনিক্যাল কমিটির প্রধান মিনহাজুল আবেদিন নান্নু বলেন, ‘তারা দুজনেই লেভেল ২ আচরণবিধি ভেঙেছে, দুজনকেই একবছরের স্থগিত নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হয়েছে। যদিও তাদের উপর আরোপিত নিষেধাজ্ঞা এখনই কার্যকর হচ্ছেনা, তবে তাদের মাঠে এবং মাঠের বাইরের সকল কাজকর্মই নজরদারিতে থাকবে। কোন ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনার খবর পেলেই কার্যকর হয়ে যাবে নিষেধাজ্ঞা।’

৯৭ ডেস্ক

Read Previous

নিজে না পারলেও রোহিতে বাজি ধরলেন ওয়ার্নার

Read Next

মহাত্মা গান্ধীর উক্তি ব্যবহার করে স্বামীকে প্রশংসা করলেন ক্যান্ডিস

Leave a Reply

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।