আড়ালে কোহলির ইনিংস, কোলকাতার দ্বিতীয় জয়

৯৭ প্রতিবেদক:

প্রকাশ : 3 সপ্তাহ আগে আপডেট: 1 সেকেন্ড আগে
আড়ালে কোহলির ইনিংস, কোলকাতার দ্বিতীয় জয়

আড়ালে কোহলির ইনিংস, কোলকাতার দ্বিতীয় জয়

আড়ালে কোহলির ইনিংস, কোলকাতার দ্বিতীয় জয়

আইপিএলে দ্বিতীয় জয় তুলে নিল কোলকাতা নাইট রাইডার্স। অন্যদিকে জয়ের পর আবারও হারের স্বাদ পেল রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালুরু। আজ এম. চিন্নাস্বামী স্টেডিয়ামে প্রথমে ব্যাট করতে নেমে নির্ধারিত ২০ ওভারে ৬ উইকেট হারিয়ে ১৮২ রানের সংগ্রহ তোলে বেঙ্গালুরু। জবাবে ব্যাট করতে নেমে ১৯ বল বাকি থাকতেই ৩ উইকেট হারিয়ে কাঙ্ক্ষিত জয় তুলে নেয় কোলকাতা।

লক্ষ্যমাত্রা ১৮৩ রান সামনে নিয়ে ব্যাট করতে নামে কোলকাতা। দলের দুই ওপেনার যে ভিত্তি গড়ে দিয়ে গেলেন, তাই ম্যাচের শেষ পর্যন্ত রয়ে গেল। ফিল সল্ট ও সুনিল নারাইন মিলে তুললেন ৮৬ রান। ফিফটি করা হয়নি নারাইনের। ২২ বলে ৪৭ রানে ফিরেছেন মায়াঙ্ক দাগারের ডেলিভারিতে।

সল্টও আর বেশিক্ষণ টেকেননি। ২০ বলে ৩০ রান করে ফেরেন। তিন নম্বরে নামা ভেঙ্কাটেশ আইয়ারের ব্যাটিংয়ে সহজ খেলায় থাকে কোলকাতা। সাথে যোগ দেন অধিনায়ক শ্রেয়াস আইয়ার। মাত্র ৯ ওভার খেলতে গিয়ে দলীয় শতক আসে দলটির।

দুই আইয়ার মিলে গড়ে তোলেন জুটি। তাঁদের ৭৫ রানের উপর ভর দিয়ে ম্যাচে পুরোপুরি দখল নেয় কোলকাতা। ৩০ বলে ৫০ করে ইয়াশ দায়ালের বলে ক্যাচ দিয়ে বিদায় নেন ভেঙ্কাটেশ। তবে শ্রেয়াস শেষ পর্যন্ত ছিলেন। বাকিটা

রিংকু সিংকে সাথে নিয়ে ১৭তম ওভারের মধ্যে শেষ করেন। শ্রেয়াস অপরাজিত ছিলেন ২৪ বলে ৩৯ রানে।

এর আগে নিজেদের ঘরের মাটিতে ব্যাটিংয়ে ভালো শুরু করে বেঙ্গালুরু। যদিও দলীয় ১৭ রানে ফিরতে হয় ফ্যাফ ডু প্লেসিকে। তবে একপাশ আগলে মাঠের নিয়ন্ত্রণ ধরে রেখেছিলেন ভিরাট কোহলি।

ক্যামেরন গ্রিনের সাথে আরও লম্বা হতে পারত জুটি। কিন্তু আন্দ্রে রাসেলের ডেলিভারিতে বড় শট খেলতে গিয়ে সরাসরি বোল্ড হয়েছেন গ্রিন। তার ৩৩ রানের ইনিংসের পর গ্লেন ম্যাক্সওয়েলের কাছ থেকেও সমর্থন পেয়েছে কোহলি। ম্যাক্সওয়েলের ইনিংসও অবশ্য শেষ হয়েছে ২৮ রানেই।

তখন কোহলি নিজের জায়গায় অবিচল। রজত পাতিদার ও অনুজ রাওয়াত আজ হতাশ করেছেন। কিন্তু দীনেশ কার্তিক বরাবর তার জায়গায় ‘ফিনিশিং’ এর দায়িত্ব নিয়ে চলেছেন। ৩ ছক্কায় ঠিকই ৮ বলে ২০ রান করে ইনিংসের শেষ বলে রানআউট হয়েছেন।

কোহলি ৫৯ বলে ৮৩ রানে অপরাজিত ছিলেন। যে ইনিংসে ছিল ৪ টি ছক্কা ও ৪ টি চারের মার।