দ্বিতীয় দিনটা অতিথিদের

match report 2
Vinkmag ad

প্রথম দিনের লড়াইটা ছিল সমানে সমানে। প্রথম দিকটায় অস্ট্রেলিয়া প্রাধান্য বিস্তার করলেও সাব্বির আর মুশফিকের বদৌলতে শেষদিকে এসে নিয়ন্ত্রণ নিয়েছিল বাংলাদেশ। তবে দ্বিতীয় দিনে তেমনটা হয়নি। স্মিথ-ওয়ার্নারের জোড়া অর্ধশতক আর নাথান লায়নের সাত উইকেট প্রাপ্তিতে দিনটা নিজেদেরই করে নিয়েছে সফরকারীরা। 

267852
তৃতীয় দিনে ওয়ার্নার-হ্যান্ডসকম্ব জুটির দিকেই তাকিয়ে টিম অস্ট্রেলিয়া।

আশানুরূপ ব্যাটিং নৈপুণ্য প্রদর্শনে ব্যর্থ বাংলাদেশ গুটিয়েছিল ৩০৫ রানে। আর নিজেদের ইনিংসে ২ উইকেট হারিয়ে ২২৫ রান করে অস্ট্রেলিয়া পিছিয়ে আছে আরও ৮০ রানে।

ডেভিড ওয়ার্নার আর পিটার হ্যান্ডসকম্বের ব্যাট যেভাবে চলছে তাতে তৃতীয় দিনে ঐ ৮০ রান পার করে যে অতিথিরা লিড দেবে আরও বড় অঙ্কের তেমনটা অনুমেয়ই। ডেভিড ওয়ার্নার অপরাজিত থেকে অপেক্ষা করেছেন নিজের টানা দুই টেস্টে দুই শতকের। অন্যদিকে হ্যান্ডসকম্ব একপাশ আগলে আছেন ৬৯ রানে।

267849
উড়ন্ত মুশফিকের কাছে কাঁটা পড়লেন ম্যাট রেনশো।

বাংলাদেশের ৩০৫ রানের জবাবে ব্যাট করতে নেমেই অজিরা হারিয়ে ফেলে ম্যাট রেনশোর উইকেট। মুস্তাফিজুর রহমান বলে পুল হাঁকাতে গিয়ে মুশফিকুর রহিমের কাছে ক্যাচ দিয়ে সাজঘরে ফেরেন রেনশো।

এরপর চট্টগ্রামের কঠিন পিচে সহজ ব্যাটিংয়ের প্রদর্শনী খুলে বসেন ক্যাঙ্গারু দলপতি স্টিভ স্মিথ। ওয়ার্নারকে সঙ্গী করে দলকে নেতৃত্ব দেন সামনে থেকে। ৯৮ রানের জুটি গড়েছেন, তুলে নিয়েছেন অর্ধশতক। ৯৪ বলে ৮ চারে ৫৮ রান স্মিথকে বোলিংয়ে এসেই প্রথম বলে সোজা বোল্ড করে দেন তাইজুল ইসলাম।

দায়িত্বটা তখন ওয়ার্নার চাপিয়ে নেন নিজে কাঁধেই। হ্যান্ডসকম্বকে সাথী বানিয়ে তৃতীয় উইকেট জুটিতে দারুণ এক জুটি জমিয়ে দিয়েছেন ওয়ার্নার। নিজের স্বভাববিরুদ্ধ খেলা খেলে এক কথায় রানের জন্য লড়েছেন ওয়ার্নার। ৮৮ রানের ইনিংসে চার মাত্র ৪টি। বল খেলেছেন ১৭০টি।

267854
হ্যান্ডসকম্বের ব্যাট অস্ট্রেলিয়াকে স্বস্তি দিলেও বাংলাদেশের জন্য ছিল ভীষণ অস্বস্তির।

যদিও অনুকুল পরিবেশে ফাঁদে পা দিয়েছিলেন ওয়ার্নার। তবে প্রথমে তাইজুলের বলে শর্টে ক্যাচ ফেলেছেন মমিনুল আর মিরাজের চতুরতায় উইকেট ছেড়ে বেরিয়ে আসা ওয়ার্নারকে স্ট্যাম্পিংয়ে কাটতে পারেননি মুশফিকুর রহিম। যেখানে ৫২ রানেই ফিরতেন ওয়ার্নার সেখানে তিনি কিনা এখন অপেক্ষায় টানা দুই টেস্ট শতকের!

অন্যদিকে পিটার হ্যান্ডসকম্ব খেলছেন সাবলীল ভাবেই। ১১৩ বলে করেছেন ৯৬ রান, ইনিংসে চারের মার ৫টি। দুজন মিলে জুটিতে তুলেছেন ১২৭ রান। দিনশেষে দলকে দারুণ জায়গায় রেখে ফিরেছেন শিবিরে। তৃতীয় দিনের শুরুটা করবেন ২ উইকেটে ২২৫ রান থেকেই।

267853
স্রোতের বিপরীতে দারুণ ব্যাটিংয়ে ৮৮ রানের অপরাজিত রয়েছেন ওয়ার্নার।

সকালে আগের দিনের ৬ উইকেটে ২৫৩ রান নিয়ে খেলতে নামা বাংলাদেশ দল এদিন আর যোগ করতে পেরেছে মাত্র ৫২ রান। মুশফিক ৬২ রানের সঙ্গে আর ৬ রান যোগ করে লায়নের বলে ফিরেছেন ৬৮ রান করে। নাসির হোসেন চেষ্টা করেছিলেন লেজের ব্যাটসম্যানদের নিয়ে দলকে ভাল সংগ্রহ এনে দেয়ার।

267855
চট্টগ্রামের প্রখর রোদে ব্যাটিংটা ঠিক সহজ ছিলোনা। হ্যান্ডসকম্ব তাই স্মরণাপন্ন চিকিৎসকের।

তবে স্কোরকার্ডে তিনশো রান হবার আগেই ৪৫ রানে ফিরেছেন নাসির। মেহেদী হাসান মিরাজ রানআউটের ফাঁদে পরে সাজঘরের পথে হেঁটেছেন। তাইজুল ইসলামের ব্যাটে ৩শোর ঘর পার হলেও ইনিংসে লায়নের ৭ম শিকার হয়ে শিবিরে ফিরেছেন তিনিও।

নিজের দ্বিতীয় ক্যারিয়ার সেরা বোলিংয়ের দিন লায়ন নিয়েছেন ৭ উইকেট। অ্যাগার নিয়েছেন বাকি দুই উইকেট।

267834
বাংলাদেশের হয়ে সকালে যা লড়ার সেটা একাই লড়েছেন নাসির হোসেন। 

সংক্ষিপ্ত স্কোরকার্ডঃ

বাংলাদেশ ১ম ইনিংসঃ ৩০৫/১০ (১১৩.২ ওভার) মুশফিক ৬৮, সাব্বির ৬৬, নাসির ৪৫, সৌম্য ৩৩, মমিনুল ৩১, সাকিব ২৪, মিরাজ ১১, তামিম ৯, তাইজুল ৯, ইমরুল ৪। লায়ন ৭/৯৪, অ্যাগার ২/৫২

অস্ট্রেলিয়া ১ম ইনিংসঃ ২২৫/২ (৬৪ ওভার) ওয়ার্নার ৮৮*, হ্যান্ডসকম্ব ৬৯*, স্মিথ ৫৮। মুস্তাফিজ ১/৪৫, তাইজুল ১/৫০

৯৭ ডেস্ক

Read Previous

ধবল ধোলাই এড়াতে পারলোনা লঙ্কানরা

Read Next

অজিদের টিম বাসে ঢিল

Leave a Reply

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।

Total
0
Share