চাপে টেস্ট ক্রিকেট, অসন্তোষ প্রকাশ করলেন ডি ভিলিয়ার্স

এবি ডি ভিলিয়ার্স

টেস্ট ক্রিকেটের বর্তমান অবস্থা নিয়ে দক্ষিণ আফ্রিকার সাবেক অধিনায়ক এবি ডি ভিলিয়ার্স চিন্তিত। বিশেষ করে সম্প্রতি শেষ হওয়া দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজ অনুষ্ঠিত হয়ে গেল দক্ষিণ আফ্রিকা ও ভারতের মধ্যে, যা নিয়ে বিভিন্ন কারণে আলোচনা চলমান রয়েছে। ভিলিয়ার্স মনে করছেন, টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটের উত্থান এত বেশি হয়েছে, যেখানে ৩ ম্যাচের বদলে দুই ম্যাচের সিরিজ খেলতে হচ্ছে দুই দলকে। এই প্রক্রিয়াতে অসন্তুষ্টি আছে এই সাবেক ক্রিকেটারের।

ভারতের বিপক্ষে প্রথম টেস্ট, সেঞ্চুরিয়নে সেই ম্যাচে ইনিংস ও ৩২ রানে জয় লাভ করে স্বাগতিক দক্ষিণ আফ্রিকা। তিন দিনে সেই টেস্টের সমাপ্তি ঘটে, যেখানে ভারত তেমন কোনো সুযোগ তৈরি করতে পারেনি। সিরিজের দ্বিতীয় টেস্ট, কেপটাউনের মাঠে মাত্র দ্বিতীয় দিনের দ্বিতীয় সেশনে পুরো ম্যাচ শেষ হয়। যা ইতিহাসে সংক্ষিপ্ততম টেস্ট ম্যাচের স্বীকৃতি পেয়েছে। যেখানে ভারত ৭ উইকেটের জয় নিশ্চিত করে।

লম্বা টেস্ট সিরিজের পক্ষে আলাপ তুলেছেন ভিলিয়ার্স। তিনি মনে করেন, কিছু বদল হওয়া প্রয়োজন।

“এখানে কোনো তৃতীয় টেস্ট ম্যাচ ছিল না, যে ব্যাপারে আমি খুব একটা খুশি নই। আপনাকে পুরো বিশ্বে চলা টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটকে এর জন্য দায়ী করতে হবে।”

নিজের ইউটিউব চ্যানেলে এসব কথা বলেন ভিলিয়ার্স। তিনি আরও বলেন, “আমি জানিনা কাকে দোষ দেওয়া যায়। তবে আমি ধারণা করি, কিছু গলদ আছে। আপনি যদি প্রত্যেকটা দলের মধ্যে প্রতিযোগিতা দেখতে চান, দেখতে চান কে বিশ্বের সেরা দল, আপনাকে কিছু জিনিস পরিবর্তন করতে হবে।”

আগামী ফেব্রুয়ারিতে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ২ ম্যাচের টেস্ট সিরিজ খেলতে যাবে দক্ষিণ আফ্রিকা। ইতোমধ্যে সেই সিরিজ উপলক্ষ্যে ক্রিকেট সাউথ আফ্রিকা (সিএসএ) কর্তৃক প্রকাশিত দ্বিতীয় সারির স্কোয়াড নিয়ে নানা আলোচনা, সমালোচনা হয়েছে। নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে প্রোটিয়াদের অধিনায়ক হিসেবে দায়িত্ব পালন করবেন এমন একজন, যার এখনো আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অভিষেক হয়নি, নিল ব্র‍্যান্ড।

দক্ষিণ আফ্রিকার ঘরোয়া টি-টোয়েন্টি টুর্নামেন্ট এসএ টোয়েন্টি এবং নিউজিল্যান্ড সিরিজ অনেকটা একইসাথে সূচি হওয়াতে, টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে নিয়মিত খেলোয়াড়দের উপস্থিতি নিশ্চিত করতে দ্বিতীয় সারির টেস্ট দল গঠন করেছে সিএসএ।

এ ব্যাপারে ডি ভিলিয়ার্স বলেন,

“এটা ক্রিকেট বিশ্বকে একটা ঝাঁকি দিয়েছে এবং পরিস্কার করেছে, টেস্ট ক্রিকেট চাপে আছে। এমতাবস্থায় ওডিআই ক্রিকেটেরও সম্ভাবনা আছে টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে পরিবর্তিত হওয়ার। খেলোয়াড়, বোর্ড, কোচ– সবাই ঝুঁকছে, যেখানে বেশি টাকা আছে। আপনি তাঁদের দোষ দিতে পারবেন না, তারা যদি ভবিষ্যৎ ও পরিবারের কথা চিন্তা করে।”

৯৭ ডেস্ক

Read Previous

ডিমেরিট পয়েন্টের সম্ভাবনা দেখছে কেপটাউনের পিচ, রোহিতের ব্যাপারে সিদ্ধান্ত অনিশ্চিত

Read Next

মাত্র ৪ টেস্টেই ক্লাসেনের ক্যারিয়ার শেষ

Total
0
Share