অস্ট্রেলিয়ার ৩-০ জয়ে ওয়ার্নারের রূপকথার বিদায়

অস্ট্রেলিয়া ওয়ার্নার

সিডনি ক্রিকেট গ্রাউন্ডে ক্যারিয়ারের শেষ টেস্টে জয় পেলেন ডেভিড ওয়ার্নার। পাকিস্তানকে ৮ উইকেটে হারাল অস্ট্রেলিয়া। আর তাতে স্বাগতিকদের সিরিজ জয় হয়ে গেল ৩-০ ব্যবধানে। 

আজ অস্ট্রেলিয়ার দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাট করতে নামার সময় ওয়ার্নারের জন্য গোটা সিডনি দাঁড়িয়ে হাততালি দেয়। পাকিস্তানি ক্রিকেটাররা দিয়েছেন গার্ড অব অনার। ৫৭ রানে ওয়ার্নার যখন আউট হয়ে শেষবারের মতো সাদা পোশাকে বাইশ গজ ছাড়েন, তখনও দাঁড়িয়ে সিডনি ক্রিকেট গ্রাউন্ডের হাজারো দর্শক। তখন অবশ্য জয় থেকে অস্ট্রেলিয়া কেবল ১১ রান দূরে। লাবুশেইন আর স্মিথ মিলে ম্যাচের বাকি অংশ শেষ করে ৮ উইকেটের জয় নিশ্চিত করেন। ওয়ার্নারের বিদায়ী টেস্ট স্মরণ রাখতে স্টাম্প নিয়ে আসেন স্টিভ স্মিথ। 

তৃতীয় দিন শেষে দুর্বল অবস্থানে ছিল পাকিস্তান। ৬৮/৭ স্কোরকার্ডের সেই নড়বড়ে অবস্থা চতুর্থ দিনে এসে সব উইকেট হারায় ১১৫ রানে৷ ফলে অস্ট্রেলিয়ার জন্য ১৩০ রানের লক্ষ্যমাত্রা ছিল। বিদায়ী ব্যাটার ডেভিড ওয়ার্নার ও মারনাস লাবুশেইনের দায়িত্বশীল ব্যাটিংয়ের উপর ভর করে ৮ উইকেটের জয় নিয়ে তিন ম্যাচ সিরিজের প্রত্যেকটিতে জয় নিশ্চিত করল স্বাগতিকরা।

ওয়ার্নার শেষবারের মতো লাল বলের ক্রিকেটে ব্যাট হাতে নেমেছিলেন। দর্শকরা হাত বাড়িয়ে দিচ্ছিলেন শুভেচ্ছা জানাতে। বাউন্ডারি লাইন থেকে কিছুটা দূরে পাকিস্তানি খেলোয়াড়েরা অপেক্ষা করছিলেন ‘গার্ড অব অনার’ প্রদান করতে। সব আনুষ্ঠানিকতা শেষে নিজের শেষ টেস্ট ইনিংসে পঞ্চাশোর্ধ রান পেয়েছেন এই বাঁহাতি ব্যাটার। সিডনিতে অল্প রানের লক্ষ্যমাত্রায় দল জিতে বিদায়ী ওয়ার্নারকে গল্প বলার রসদ জমিয়ে দিল।

গতকাল জশ হ্যাজেলউড ২৫তম ওভারে এসে কোনো রান না দিয়ে পাকিস্তানের তিন ব্যাটারকে প্যাভিলিয়নে পাঠিয়ে দেন। পাকিস্তানের দিন শেষ হয়েছিল ৭ উইকেট হারিয়ে ৬৮ রানে।

সেখান থেকে আজ মোহাম্মদ রিজওয়ানের ব্যাটে আসা ২৮ রান এবং আগের ইনিংসে ৮০ পেরোনো ইনিংস খেলা আমির জামালের ব্যাটে আসা ১৮ রান সম্বল করে ১১৫ রানে গুটিয়ে যায় দলটি। অস্ট্রেলিয়ার জন্য সহজ লক্ষ্যমাত্রা দাঁড়ায় ১৩০ রান।

রান তাড়া করতে গিয়ে ইনিংসের প্রথম ওভারের শেষ বলে সাজিদ খানের স্পিনের পাল্লায় পড়ে উইকেট হারিয়েছেন উসমান খাজা। অন্যপাশে তখন শেষবারের মতো সাদা পোশাকে মাঠে নামা ওয়ার্নার।

স্মরণীয় করে রাখার লক্ষ্যে লাবুশেইনকে সঙ্গী করে ব্যাট চালিয়ে খেলতে লাগলেন। অস্ট্রেলিয়া ২০ ওভারের মধ্যেই ১০০ রানের বৃত্তে ঢুকে যায়। তার আগে অবশ্য ওয়ার্নারের ব্যাটে হাফ সেঞ্চুরির দেখা মেলে।

ম্যাচটা জিতেই বেরিয়ে আসতে পারতেন ওয়ার্নার। দলীয় রান যখন ১১৯, আবারও সাজিদের ডেলিভারি আর তাতে লেগ বিফোরের শিকার হয়ে ৭৫ বলে ৫৭ রান করে নিজের শেষ ইনিংস খেলে নেন এই বিদায়ী অস্ট্রেলিয়ান। যে ইনিংসে ছিল ৭ টি চারের মার।

অন্যপাশে থাকা লাবুশেইন তখন ফিফটি পেরিয়ে গেছেন। স্টিভ স্মিথকে সাথে নিয়ে শেষ আনুষ্ঠানিকতা সেরে বেরিয়ে যাওয়ার কালে ৬২ রানে অপরাজিত ছিলেন লাবুশেইন।

৯৭ ডেস্ক

Read Previous

বিস্তৃত দায়িত্ব নিয়ে বাংলাদেশে ফিরতে যাচ্ছেন হেরাথ

Read Next

বর্ণাঢ্য ক্যারিয়ার শেষে অনুভূতির সবটুকু ঢেলে দিলেন ওয়ার্নার

Total
0
Share