নিজেদের অবস্থান পরিষ্কার করে জানিয়েছে দক্ষিণ আফ্রিকা

ভারতকে ইনিংস ব্যবধানে হারাল দক্ষিণ আফ্রিকা

ক্রিকেট সাউথ আফ্রিকা (সিএসএ) থেকে গতকাল (২ জানুয়ারি) এক বিবৃতি প্রকাশিত হয়েছে। যেখানে আগামী ফেব্রুয়ারিতে নিউজিল্যান্ড সফরের জন্য দক্ষিণ আফ্রিকার ঘোষিত টেস্ট দল নিয়ে যে আলোচনা-সমালোচনা উঠেছে এবং টেস্ট ক্রিকেট’কে কম গুরুত্ব দেওয়ার যে অভিযোগ তোলা হয়েছে– সে ব্যাপারে বোর্ড নিজেদের জায়গা পরিস্কার করার চেষ্টা করেছে। তাঁরা এটি স্মরণ করিয়ে দিয়েছে যে, টেস্ট ক্রিকেটের প্রতি যথেষ্ট সম্মান রয়েছে দক্ষিণ আফ্রিকা বোর্ডের।

সম্প্রতি নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজ খেলার জন্য ‘প্রায় নতুন’ একটি দল ঘোষণা করেছে দক্ষিণ আফ্রিকা। এই দলের অধিনায়ক হিসেবে দায়িত্ব পালন করবেন নিল ব্র্যান্ড, যার এখনো আন্তর্জাতিক অভিষেক হয়নি। এছাড়াও আরও ৬ জন নতুন খেলোয়াড় রয়েছে এই দলে।

তুলনামূলক কম শক্তির দল পাঠানোর কারণ হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছে, দক্ষিণ আফ্রিকার সবচেয়ে বড় ঘরোয়া টি-টোয়েন্টি টুর্নামেন্ট ‘এসএ টোয়েন্টি’ অনুষ্ঠিত হবে একই সময়ে এবং সেসময় সেখানে ব্যস্ত থাকবেন নিয়মিত খেলোয়াড়েরা। পুরো ঘটনায় টেস্ট ক্রিকেটকে কম গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে বলে মন্তব্য করেছিলেন সাবেক অস্ট্রেলিয়া অধিনায়ক স্টিভ ওয়াহ। পরবর্তীতে এ নিয়ে বেশ আলোচনা হয়েছে।

ওয়াহ, গত ৩১ ডিসেম্বর একটি ইন্সটাগ্রাম পোস্টে নিজের ক্ষোভ প্রকাশ করেন। তিনি মনে করেন, দক্ষিণ আফ্রিকার এক দল ঘোষণার মাধ্যমে টেস্ট ক্রিকেটের মৃত্যু রচিত করা হচ্ছে। আন্তর্জাতিক ক্রিকেট সংস্থা (আইসিসি) সহ, ভারত-ইংল্যান্ড-অস্ট্রেলিয়া বোর্ড, তাঁদের ক্রিকেটের সবচেয়ে প্রাচীন সংস্করণ টিকিয়ে রাখতে এগিয়ে আসা উচিত বলে মনে করেন এই সাবেক অধিনায়ক।

পরবর্তীতে অস্ট্রেলীয় পত্রিকা ‘সিডনি মর্নিং হেরাল্ড’ এর সাথে আলাপকালে ওয়াহ বলেন, “অবশ্যই তাঁরা (দক্ষিণ আফ্রিকা) কোন কেয়ার-ই করছে না।“

এ নিয়ে বেশ আলোচনা ও সমালোচনা হওয়ার পর গতকাল দক্ষিণ আফ্রিকা বোর্ড থেকে একটি বিবৃতি প্রকাশ করা হয়েছে। যেখানে বলা হয়, ২০২৩-২০২৭ সালের ফিউচার ট্যুর প্রোগ্রাম (এফটিপি) যখন চূড়ান্ত করা হয়, সেটা ২০২২ সাল। সেসময় নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে এই টেস্ট সিরিজও অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছিল। সেসময় ‘এসএ টোয়েন্টি’ কখন অনুষ্ঠিত হবে, সে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়নি। কিন্তু যখন এটি সামনে আসে, দেখা যায় নিউজিল্যান্ড সিরিজের সাথে সংঘর্ষ হচ্ছে। বোর্ড অনেক চেষ্টা করেছে নিউজিল্যান্ড বোর্ডের সাথে আলাপ করে যে, এই সিরিজের সূচি কিছুটা বদল করা যায় কি না, কিন্তু তা সম্ভব হয়নি। কারণ ২০২৫ সালের এপ্রিলের মধ্যে টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের অংশ হিসেবে সবগুলো খেলা শেষ করতে হবে।

দক্ষিণ আফ্রিকা বোর্ডে তাঁদের কোচ শুকরি কনরাড এবং তাঁর সহকারীদের ধন্যবাদ দিতে চায় যে, তাঁরা নিউজিল্যান্ড সফরের জন্য খেলোয়াড় প্রস্তুত করতে পেরেছে। বোর্ড আত্মবিশ্বাসী, এই খেলোয়াড়েরা প্রোটিয়াদের সম্মান রক্ষার্থে সর্বোচ্চটুকু দিয়ে চেষ্টা করবে। তাঁরা এটিও মনে করছে, এটা একটা সুযোগ যেখানে দক্ষিণ আফ্রিকার মেধাবী খেলোয়াড়দের পরখ করে দেখা যাবে।

বিবৃতির শেষ দিকে তাঁরা উল্লেখ করেছে, আসন্ন এফটিপিতে দ্বিপাক্ষিক সিরিজ ও এসএ টোয়েন্টি’র যাতে কোনো সংঘর্ষ না হয়, সেটি তাঁরা নিশ্চিত করছে। দক্ষিণ আফ্রিকা বোর্ড আন্তর্জাতিক ক্রিকেট ও এসএ টোয়েন্টি শক্তিশালী রাখতে সম্পূর্ণভাবে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।

৯৭ ডেস্ক

Read Previous

বিপিএল দিয়ে তাসকিনের কামব্যাক

Read Next

সিডনি টেস্ট: রিজওয়ান-জামালদের প্রচেষ্টায় ৩০০ পেরিয়েছে পাকিস্তান

Total
0
Share