টেস্ট ক্রিকেটের বেহাল অবস্থায় আইসিসি ও শীর্ষ বোর্ডগুলোর কিছু যায়–আসে না

স্টিভ ওয়াহ

সম্প্রতি নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজ খেলার জন্য ‘প্রায় নতুন’ একটি দল ঘোষণা করেছে দক্ষিণ আফ্রিকা। এই দলের অধিনায়ক হিসেবে দায়িত্ব পালন করবেন নিল ব্র্যান্ড, যার এখনো আন্তর্জাতিক অভিষেক হয়নি। তুলনামূলক কম শক্তির দল পাঠানোর কারণ হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছে, দক্ষিণ আফ্রিকার সবচেয়ে বড় ঘরোয়া টি-টোয়েন্টি টুর্নামেন্ট ‘এসএ টি-টোয়েন্টি’ অনুষ্ঠিত হবে একই সময়ে এবং সেসময় সেখানে ব্যস্ত থাকবেন খেলোয়াড়েরা। পুরো ঘটনায় টেস্ট ক্রিকেটকে কম গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে বলে মনে করেন অস্ট্রেলিয়ার সাবেক অধিনায়ক স্টিভ ওয়াহ।

আগামী ফেব্রুয়ারিতে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজ খেলবে দক্ষিণ আফ্রিকা। সেসময় চলমান থাকবে এসএ টি-টোয়েন্টি। সামনে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ ও সকল দিক বিবেচনা করেই হয়ত, দলের নিয়মিত খেলোয়াড়রা ব্যস্ত থাকবেন সেই টুর্নামেন্টে। ফলে নিউজিল্যান্ড সফরের জন্য যে প্রোটিয়া টেস্ট দল ঘোষিত হয়েছে, সেখানে দলের অধিনায়ক-সহ ৭ জন ক্রিকেটার আছেন, যাদের এখনো আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অভিষেক হয়নি।

ওয়াহ, গতকাল (৩১ ডিসেম্বর) একটি ইন্সটাগ্রাম পোস্টে নিজের ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। তিনি মনে করেন, এর মাধ্যমে টেস্ট ক্রিকেটের মৃত্যু রচিত করা হচ্ছে। আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিল (আইসিসি) সহ, ভারত-ইংল্যান্ড-অস্ট্রেলিয়া বোর্ড, তাঁদের ক্রিকেটের সবচেয়ে প্রাচীন সংস্করণ টিকিয়ে রাখতে এগিয়ে আসা উচিত বলে মনে করেন এই সাবেক অধিনায়ক।

“ইতিহাস ও ঐতিহ্যের অবশ্যই কিছু মূল্য আছে। আমরা যদি শুধু লভ্যাংশকে মানদণ্ড ধরে নিই, তাহলে ব্র্যাডম্যান, গ্রেস, সোবার্সদের লিগ্যাসি তাৎপর্যহীন হয়ে পড়বে।”

পরবর্তীতে অস্ট্রেলীয় পত্রিকা ‘সিডনি মর্নিং হেরাল্ড’ এর সাথে আলাপকালে ওয়াহ বলেন, “অবশ্যই তাঁরা কোন কেয়ার-ই করছে না।”, দক্ষিণ আফ্রিকার এই স্কোয়াডের ব্যাপারে তিনি মন্তব্য করেন।

“আমি যদি নিউজিল্যান্ড হতাম, আমি এই সিরিজই খেলতাম না। আমি জানি না তাঁরা কেন-ই বা খেলছে। আপনি কেন-ই বা খেলবেন, যখন এটি নিউজিল্যান্ড ক্রিকেটের প্রতি সম্মানের ঘাটতি হিসেবে প্রকাশ পাচ্ছে।“

“এটা বোঝা যাচ্ছে সমস্যাটা কোথায়। ওয়েস্ট ইন্ডিজ তাঁদের পূর্ণশক্তির দল পাঠাচ্ছে না (অস্ট্রেলিয়ায়)। গত দুই-এক বছর ধরে তাঁরা টেস্টে পূর্ণশক্তির দল তৈরিও করছে না।”

“নিকোলাস পুরানের মতো কেউ, যে কি না একজন টেস্ট ব্যাটসম্যান- সে টেস্ট ক্রিকেট খেলে না। জেসন হোল্ডার, সম্ভবত তাঁদের সেরা খেলোয়াড়- সে এখন খেলছে না। এমনকি পাকিস্তানও নিজেদের সেরা দল পাঠায়নি (অস্ট্রেলিয়ায় চলমান সিরিজ)।”

ওয়াহ মনে করেন, আইসিসি যদি এসব ব্যাপারে দৃষ্টি না দেয়, তবে টেস্ট ক্রিকেট আর টেস্ট ক্রিকেট হিসেবে থাকবে না। তিনি বলেন, সেরা খেলোয়াড়দের বিপরীতে যখন নিজেদের ‘টেস্ট’ করার সুযোগ কমে যায়, তখন এটি সম্ভব হবে না।

ইন্সটাগ্রাম পোস্ট ও পত্রিকা, দুই জায়গাতে টেস্ট ক্রিকেটারদের নির্দিষ্ট ম্যাচ-ফি থাকার ব্যাপারে নজর দিতে বলেছেন ওয়াহ। “আমি বুঝি খেলোয়াড়রা কেন আসে না। তাঁরা ঠিকমত পারিতোষিক পায় না। আমি জানিনা, আইসিসি বা বড় দেশগুলো আছে- যাদের অনেক টাকা আছে, তাঁরা কেন একটি নিয়ম তৈরি করে না, যেখানে টেস্ট ম্যাচের জন্য একটা ‘প্রিমিয়াম’ ম্যাচ ফি থাকবে। ফলে ছেলেরা টেস্ট ক্রিকেট খেলতে উজ্জীবিত হবে।”

৯৭ ডেস্ক

Read Previous

২০২৪ সালে বাংলাদেশের যত খেলা

Read Next

ব্যাগি গ্রিন ক্যাপ হারিয়ে পা’গ’লপ্রায় ডেভিড ওয়ার্নার

Total
0
Share