আমি মনে করি এটি বেশ সফল একটি সফর: হাথুরুসিংহে

অন্য দলের সাফল্যের রেসিপি অনুসরণকে হাথুরুসিংহের 'না'

শেষটা ভাল হলো না বাংলাদেশের জন্য। তবুও সবমিলিয়ে নিউজিল্যান্ডের মাটিতে তাঁদের বিপক্ষে বাংলাদেশ এই সিরিজ মনে রাখবে। এই সিরিজকে বিভিন্ন কারণেই মনে রাখা হবে। জেতার হিসেবে মাত্র দুই ম্যাচে জয় পেয়েছে নাজমুল হোসেন শান্তর অধীনে থাকা এই দল। ওডিআইতে এক ম্যাচ এবং টি-টোয়েন্টিতে এক ম্যাচ। দুই সংস্করণে নিউজিল্যান্ডের মাটিতে বাংলাদেশের জন্য ‘প্রথম’ হিসেবে অলংকৃত হয়েছে জয় দু’টি। আজ তৃতীয় টি-টোয়েন্টি ম্যাচ হারের পর সংবাদ সম্মেলনে কথা বলেছেন বাংলাদেশ কোচ চন্ডিকা হাথুরুসিংহে।

সিরিজের প্রথম ম্যাচে জয়, দ্বিতীয় ম্যাচ পরিত্যক্ত হওয়ার পর বাংলাদেশের সামনে আজ সিরিজ জয়ের সুযোগ হাতছানি দিয়ে ডাকছিল। কিন্তু সে সুযোগ কাজে লাগাতে পারেনি দল। ব্যাটিং ব্যর্থতা জেঁকে বসল ঘাড়ের উপর। ২০তম ওভার খেলতে গিয়ে ১১০ রানে অলআউট হয়ে যায় বাংলাদেশ। রান কম হওয়া নিয়ে কোচ হাথুরুসিংহে বলেন,

“আসলে ২ ওভারের পর আমরা আলোচনা করছিলাম এটি ১৬০ রানের উইকেট নয়। এটা হয় ১৪০-১৫০ রানের মত উইকেট ছিল। আমরা তা অর্জন করতে পারিনি। আমরা ভালো ব্যাটিং করতে পারিনি। ১০ ওভারের মধ্যেই আমরা ৪ উইকেট হারিয়েছি। এমন পরিস্থিতি থেকে আসলে আপনি খুব ভালো অবস্থানে যেতে পারবেন না। তবে বোলাররা আমাদের ম্যাচে রেখেছিল। আমরা যেভাবে বোলিং করেছি পুরো সিরিজে তা দুর্দান্ত ছিল।”

তবুও ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টি সিরিজ মিলিয়ে দুই জয় নিয়ে দেশে ফিরবে বাংলাদেশ দল। পূর্বের বিচারে সফল এক নিউজিল্যান্ড সফর বলতেই হয়। কোচের কথাতেও সেই আভাস মিলল, “দেখুন সিরিজের শুরুর দিকে আমরা আগে এখানে কী করেছিলাম তা নিয়ে কথাবার্তা বলছিলাম। আমরা চেয়েছিলাম সেখান থেকে আরও ভালো কিছু করতে। ফলে আমি মনে করি এটি বেশ সফল একটি সফর।”

পেসারদের নিয়ে বাংলাদেশ আশাবাদী হয়ে উঠছে বেশ অনেকদিন হয়ে গেল। ইবাদত হোসেনের ইনজুরি, তাসকিন আহমেদের ইনজুরি- সবমিলিয়ে শরিফুল ইসলামের কাছ থেকে নতুন বলে দারুণ শুরু পাচ্ছে বাংলাদেশ। তিন সংস্করণের ক্রিকেটে শরিফুল পেস ইউনিটের নিয়মিত সদস্য হয়ে উঠেছেন। নিউজিল্যান্ড সিরিজে লেগ স্পিনার রিশাদ হোসেনের কাছ থেকেও আশাব্যঞ্জক সাড়া মিলেছে।

হাথুরুসিংহে বলেন,

“আমরা এটা ড্রেসিংরুমে আলোচনা করছিলাম। সে আমাদের হয়ে দুর্দান্ত বোলিং করছে তিন ফরম্যাটেই। ৮ মাস আগেও সে দলে ছিল না, কোনো ফরম্যাটেই খেলছিল না। এখন সে আমাদের দলের শীর্ষ বোলার। আসলেই দারুণ ছিল। আরেকটি ইতিবাচক দিক ছিল রিশাদ। আমাদের লেগ স্পিনারের খুব প্রয়োজন ছিল তাই আমরা চেয়েছিলাম লেগ স্পিনারদের সাদা বলের ক্রিকেটে সুযোগ দিতে। সে এটা লুফে নিয়েছে।”

সাফল্যের রহস্য প্রসঙ্গ উঠতেই কোচ বললেন, ‘ভালো প্রশ্ন’- এরপর খেলোয়াড়দের নির্ভয়ে মাঠে খেলার ব্যাপারটি ইতিবাচকভাবে তুলে ধরলেন। অধিনায়ক শান্ত’কে নিয়ে আলাদাভাবে বললেন। তাঁর কৌশলগত দিক ও চাওয়া-পাওয়া সবকিছু স্পষ্ট, যা দলের মানসিকতায় ফুটে উঠেছে।

“ভালো প্রশ্ন। আমার মনে হয় ক্রিকেটারদের অ্যাটিটিউড ভালো ছিল। এই তরুণ ছেলেদের মাঝে কোনো ভয় নেই। তারা মাঠে ভালো খেলতে চেয়েছে। আরও একটি দিক হচ্ছে শান্তর অধিনায়কত্ব। সে দারুণ করেছে। (মাঠে) সে কৌশলগত দিক থেকে একদম ঠিকঠাক ছিল। ক্রিকেটারদের প্রতি বার্তার ব্যাপারেও সে যথেষ্ট স্পষ্ট ছিল কার কাছ থেকে কী প্রত্যাশা করছে এসবের ক্ষেত্রে।”

৯৭ ডেস্ক

Read Previous

ওয়ার্নারের ভুলকে ক্ষমা করে চ্যাপেলের যে আহ্বান

Read Next

টেস্টে গিলের ব্যর্থ হবার কারণ জানালেন গাভাস্কার

Total
0
Share