ওয়ার্নারের ভুলকে ক্ষমা করে চ্যাপেলের যে আহ্বান

ওয়ার্নারের ভুলকে ক্ষমা করে চ্যাপেলের যে আহ্বান

আরেকটি নতুন বছর শুরু হচ্ছে, আর এদিকে ডেভিড ওয়ার্নারের জন্য শেষ হচ্ছে তাঁর টেস্ট ক্যারিয়ার। জানুয়ারি ৩, ২০২৪ সিডনি টেস্টের মধ্য দিয়ে লাল বলের ক্রিকেটকে বিদায় জানাবেন ওয়ার্নার। অস্ট্রেলিয়ার সাবেক অধিনায়ক গ্রেগ চ্যাপেল লিখেছেন, বীরেন্দর শেবাগের পর দ্বিতীয় সেরা ধ্বং’সা’ত্মক ব্যাটার ওয়ার্নার। নিজ মাঠে ওয়ার্নারের বিদায়ী টেস্ট সামনে রেখে অস্ট্রেলিয়ার সাবেক এই অধিনায়ক প্রশংসা করতে কার্পণ্য করেননি।

ওয়ার্নার, ১১১ টি টেস্ট ম্যাচ খেলেছেন, ৭০.৩ স্ট্রাইক রেটে সংগ্রহ করেছেন ৮৬৯৫ রান। সিডনি মর্নিং হেরাল্ড এ লেখা এক কলামে চ্যাপেল বলেন, “অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেটে ওয়ার্নারের ভূমিকা অবমূল্যায়ন করার সুযোগ নেই।” মূলত বল টেম্পারিংয়ের যে ঘটনা ওয়ার্নারের সাথে জড়িত, তা উল্লেখ করে তিনি এ কথা লিখেছেন।

“আধুনিক সময়ে, শুধুমাত্র বীরেন্দর শেবাগ ওয়ার্নারের চেয়ে বেশি ধ্বং’স করতে পারত, একজন ওপেনার হিসেবে।”

“একজন ধ্বং’সা’ত্ম’ক ওপেনারের প্রভাব নিয়ে কখনো বেশি মূল্যায়নেরও সুযোগ নেই। আর আমি খুব শক্তভাবে বিশ্বাস করি, নির্বাচকরা ওয়ার্নারের মতো ক্ষমতাসম্পন্ন কাউকে খুঁজতে পরিবর্তন হিসেবে।”

পাকিস্তানের বিপক্ষে, পার্থ টেস্টে ১৬৪ রানের ইনিংস দিয়ে নিজের বিদায়ী সিরিজ শুরু করেছিলেন ওয়ার্নার। যে ইনিংস, অস্ট্রেলিয়ার জয়ের ক্ষেত্রে বড় অবদান রেখেছিল। দ্বিতীয় টেস্টে, মেলবোর্নে ব্যাটে সুবিধা করতে পারেননি কোনো ইনিংসেই, যদিও দল জিতেছে। তৃতীয় টেস্ট, সিডনিতে নিজের ‘হোম গ্রাউন্ড’ এ ওয়ার্নার দারুণ কিছু করবেন, এমন আশা দেখছে ক্রিকেট সমর্থকরা।

চ্যাপেল আরও লিখেছেন,

“১১১ টি টেস্টে সে যা করেছে, আমি জানি তা কতটা কঠিন। আমি আশা করি ডেভিডের (ওয়ার্নার) কঠোরতম সমালোচকও তাঁর মেধা ও অবদানকে স্বীকার করবে এবং মানুষ হিসেবে যেসব দুর্বলতা থাকে, তা ক্ষমাসুন্দর দৃষ্টিতে দেখবে। আশা করি সিডনি পরের সপ্তাহে ডেভিড ওয়ার্নারকে ভালোবেসে বিদায় দেবে। তাঁকে নিয়ে যে যা-ই ভাবুক না কেন, ডেভিড ওয়ার্নার অস্ট্রেলিয়ান ক্রিকেটের জন্য দুর্দান্ত ছিলেন।”

কিছুদিন আগে অস্ট্রেলিয়ার সাবেক ফাস্ট বোলার মিচেল জনসন ওয়ার্নারের ব্যাপারে বেশ কঠিন সমালোচনা করেছেন। যেখানে এই ওপেনারের বল টেম্পারিং ইস্যুকে সামনে এনে, টেস্ট ক্রিকেটে থেকে বিদায় নেওয়ার ঘোষণা– ইত্যাদি বিষয়গুলোকে প্রশ্নবিদ্ধ করেন জনসন। চ্যাপেল সেই আলোচনার প্রসঙ্গও তাঁর কলামে তুলে এনেছেন ‘কঠোরতম সমালোচক’ উল্লেখ করে।

৯৭ ডেস্ক

Read Previous

বছরের শেষ দিনে বাংলাদেশের পরাজয়

Read Next

আমি মনে করি এটি বেশ সফল একটি সফর: হাথুরুসিংহে

Total
0
Share