বিশ্বকাপে ‘চোখে সমস্যা’ নিয়েই খেলা চালিয়ে যান সাকিব

সাকিব আল হাসান 1

বিশ্বকাপে ভালো করেনি বাংলাদেশ। ভালো করেননি বাংলাদেশ অধিনায়ক সাকিব আল হাসান। যাকে ওডিআই বিশ্বকাপ শুরুর আগে আগে অধিনায়কত্ব দেওয়া হয়েছিল। অনেক বেশি নাটকীয়ভাবে বাংলাদেশ দল বিশ্বকাপ খেলতে ভারতে যায়। দলটি গ্রুপ পর্ব থেকে নকআউট হয়েছিল সবার আগে। সম্প্রতি অধিনায়ক সাকিব নতুন একটি তথ্য প্রকাশ করেছেন ক্রিকেট-ভিত্তিক ওয়েবসাইট ‘ক্রিকবাজ’কে। যেখানে বিশ্বকাপে ব্যাট করার সময় তাঁর চোখে ঝাপসা দেখার বিষয়টি উঠে এসেছে।

দর্শক, সমর্থকদের কাছে এই তথ্য নতুন। সাকিবের চোখের কোনো অসুবিধা আগে শোনা যায়নি। তবে বিশ্বকাপের ম্যাচগুলোতে ব্যাট করার সময় বাম চোখে ঝাপসা দেখতেন এই অলরাউন্ডার। কারণ হিসেবে জানা যায়, স্ট্রেসের জন্য এমন সমস্যার সম্মুখীন হয়েছিলেন তিনি।

২০১৯ বিশ্বকাপে দুর্দান্ত পারফরম্যান্স ছিল সাকিবের। সংগ্রহ করেছিলেন ৬০৬ রান, সাথে ১১ টি উইকেট। কিন্তু অধিনায়কের দায়িত্ব নিয়ে ২০২৩ ক্রিকেট বিশ্বকাপে গিয়ে খুব একটা আশানুরূপ কিছু করতে পারেননি সাকিব। ইনজুরির কারণে গ্রুপ পর্বের দুই ম্যাচে খেলতে পারেননি। বাকি ম্যাচগুলো খেলে ব্যাট হাতে ২৬.৫৭ গড়ে ১৮৬ রান সংগ্রহ করেছেন।

বিশ্বকাপের মাঝখানে কোচ নাজমুল আবেদিন ফাহিমের সাথে কাজ করতে দেশে এসেছিলেন সাকিব। তা নিয়েও নানা আলোচনা, সসমালোচনা হয়েছে। অবশ্য ফিরে গিয়েও পারফরম্যান্সে কোনো পরিবর্তন হয়নি সাকিবের। ব্যাট হাতে খারাপ করেছেন পুরো টুর্নামেন্টে।

সম্প্রতি মাগুরায় নির্বাচন কাজে ব্যস্ত সাকিব, সেখানেই ক্রিকবাজের সাথে আলাপকালে তিনি বলেন, “এটা শুধু এক বা দুই ম্যাচের ব্যাপার ছিল না। পুরো বিশ্বকাপ জুড়ে এটা (চোখের সমস্যা) আমার সাথে ছিল।”

“আমি বল মোকাবিলা করতে অনেক বেশি অস্বস্তি বোধ করতাম।”

মেডিকেল সাইন্স থেকেও জানা যায়, মস্তিষ্কের সাথে চোখের সম্পর্ক রয়েছে। যখন মস্তিষ্কে স্ট্রেস বা দুশ্চিন্তা ঢুকে যায়, তখন চোখে ঝাপসা দেখার সম্ভাবনা বাড়ে।

“ব্যাপারটা হচ্ছে, যখন আমি ডাক্তারের কাছে গেলাম, আমার কর্নিয়া বা রেটিনায় পানি জমা ছিল। তাঁরা আমাকে ড্রপ দিয়েছিল এবং স্ট্রেস কমাতে বলেছিল। আমি জানিনা এটাই কারণ ছিল কি না (চোখের সমস্যার)। কিন্তু যখন আমি আবার যুক্তরাষ্ট্রে (বিশ্বকাপ শেষে) ডাক্তার দেখাই, সেখানে কোনো স্ট্রেস ছিল না৷ তো আমি ডাক্তারকে বললাম, যেহেতু বিশ্বকাপ নেই, আমার স্ট্রেসও নেই।”

সাকিবকে খুব দ্রুত ওয়ানডে অধিনায়কের দায়িত্ব দেওয়া হয়। বিশ্বকাপের আগে আগে সেই দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে খুব একটা স্বস্তি ছিল তাঁর, তেমন নয়। বরং অধিনায়কের দায়িত্ব নেওয়াতে অনীহা ছিল সাকিবের।

“আমি যে সমস্যা মোকাবিলা করেছে (অধিনায়ক হিসেবে), আমি যেভাবে ভেবেছি বা যে দর্শনে খেলতে চেয়েছি, দলটা সেভাবে প্রস্তুত ছিল না। আপনি শুধু বিশ্বকাপেই দেখবেন না, ২০২৩ এর ওডিআই পারফরম্যান্সও আমাদের ভালো ছিল না।”

প্রথম দল হিসেবে গ্রুপ পর্ব থেকে বিদায় নেয় বাংলাদেশ। ৯ ম্যাচের মধ্যে আফগানিস্তান ও শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে জয় এবং বাকি ৬ ম্যাচে হার নিয়ে বিশ্বকাপ শেষ করে সাকিবের দল।

৯৭ ডেস্ক

Read Previous

‘সৌম্য মানসিকভাবে অনেক শক্তিশালী, আমার দেখা পুরো দেশের অন্যতম সেরা’

Read Next

চেষ্টা থাকবে দর্শকদের বিনোদন দেওয়া: মিচেল

Total
0
Share