বাংলাদেশি বোলাররা কোথায় ‘দুর্ভাগা’ ছিল, জানালেন উইল ইয়াং

উইল ইয়াং হাসান

নিউজিল্যান্ডের জন্য যথেষ্ট ভালো সংগ্রহ এনে দেওয়ায় মূল ভূমিকা রেখেছেন ওপেনার উইল ইয়াং। পরে ফিল্ডিং করতে এসে ইনিংসের শেষ দিকে এক দুর্দান্ত ক্যাচও নিয়েছেন। কিউইদের জয়ে ইয়ংয়ের হাতেই উঠেছে ম্যাচ সেরার পুরস্কার। সংবাদ সম্মেলনে কথা বললেন ম্যাচ ও ম্যাচের সার্বিক পরিস্থিতি নিয়ে।

উপমহাদেশের দলগুলোর জন্য নিউজিল্যান্ডের কন্ডিশন বরাবরই চ্যালেঞ্জিং। তা ইয়ংয়ের কথাতেও উঠে এল। ২৪০ রানের লক্ষ্য তাড়া করতে গিয়ে কিউই বোলারদের খুব সাবলীলভাবে সামলিয়েছেন ব্যাটাররা, তা বোলার সুযোগ নেই।

বাংলাদেশি ব্যাটারদের নিয়ে ইয়াং বলেন,

“আসলে কাজটা অনেক কঠিন। কিছু জুটিতে তাদের কিন্তু অনেক ভয়ংকর মনে হয়েছে। উপমহাদেশের অনেক দেশের নিউজিল্যান্ডে এসে সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ থাকে বাউন্স সামলানো। আজকের উইকেটে বেশ ভালো রকমের বাউন্স ছিল। নতুন বলটা মোকাবেলা করা বেশ কঠিন ছিল এখানে। আমাদের ভালো কিছু বোলার কাজটাকে আরও কঠিন বানিয়ে দিয়েছে।”

পরের ম্যাচে বাংলাদেশ আরও গভীরভাবে চিন্তা করে, ভালো প্রস্তুতি নিয়ে আসবে, এ ব্যাপারে নিজের নিশ্চিত মন্তব্য জানিয়ে রাখলেন কিউই ওপেনার। সংবাদ সম্মেলনে ক্যাচের প্রসঙ্গ আসতেই বললেন,“আসলে নিজেই বিশ্বাস করতে পারিনি।”

শরিফুল ইসলামের বড় শট খেলার প্রচেষ্টাকে বাউন্ডারি লাইন থেকে এক হাতে লুফে নিলেন ইয়াং। বাউন্ডারি ঘেষা দুর্দান্ত এক ক্যাচ হয়ে থাকল সেটি।

ডেথ ওভারে সুযোগ নেওয়া, রান তোলা প্রসঙ্গে ইয়াং বলেন,

“আসলে পিচ কিছুটা ট্রিকি ছিল ব্যাটিংয়ের জন্য। আমরা চেষ্টা করেছিলাম শুরুতে থিতু হয়ে পরের দিকে মেরে খেলার। তাঁদের ষষ্ঠ বোলারের জায়গাটায় একটু দুর্বলতা ছিল বলে মনে হয়। নিউজিল্যান্ডের কন্ডিশন, বাউন্ডারিও বোলারদের জন্য কঠিন হতে পারে। বিশেষ করে যখন সেট ব্যাটার ক্রিজে থাকে এবং বাউন্ডারি ছোট থাকে। আজ এটি আমাদের পক্ষে এসেছে ভিন্ন দিনে ভিন্ন চ্যালেঞ্জে (ভিন্ন কিছুও ঘটতে পারে)।”

বাংলাদেশের বোলারদের প্রসঙ্গ আসতেই শুরুর ওভারগুলোর প্রশংসা করলেন নিউজিল্যান্ড ওপেনার। তবে বৃষ্টিতে বারবার খেলা বাঁধা পড়ায়, যে অসুবিধাটুকু হয়েছে, সেটিও জানিয়ে রাখলেন তিনি। এই জায়গায় প্রতিপক্ষ বোলাররা কিছুটা দুর্ভাগা ছিল বলেই মনে করেন ইয়াং।

“তারা শুরুতে দারুণ বোলিং করেছে। শুরুতেই ২ উইকেট তুলে নেওয়াটা দারুণ ছিল। বল সুইংও করছিল। সময়ের সাথে সাথে আসলে নিউজিল্যান্ডের কন্ডিশনে লাইন লেন্থ ধরে রাখাটা অনেক দলের জন্যই কঠিন হয়ে পড়তে পারে। বৃষ্টির পর নেমে আবার শুরু করাটা কঠিন হয় যখন দলের মূল বোলারদের বোলিং কোটা শেষ হয়ে গিয়েছে। এখানে তাঁরা কিছুটা দুর্ভাগা ছিল। তবে আবহাওয়া এখন ভালো। আশা করছি সামনে পুরো ৫০ ওভারের ম্যাচই খেলতে পারব।”

৯৭ ডেস্ক

Read Previous

হয়ত ভালো করেনি, কিন্তু তাঁকে নিয়ে আশা ছিল; সৌম্য প্রসঙ্গে বিজয়

Read Next

ওয়ানডে সিরিজ মিস জেমিসনের, ফিন অ্যালেন গেলেন ঘরোয়া খেলায়

Total
0
Share