অঘোষিত সেমি-ফাইনালে রিজওয়ানের দাপট

পাকিস্তান 3

৪২ ওভারের ম্যাচ। রিজওয়ান-ইফতিখারের শত রানের জুটি পাকিস্তানকে ভালো সংগ্রহ এনে দিতে সাহায্য করেছে। রিজওয়ান খেলেছেন অপরাজিত ৮৬ রানের ইনিংস। দলে অন্তর্ভুক্ত হওয়া আব্দুল্লাহ শফিকও অর্ধশতক করেছেন। শ্রীলঙ্কার জন্য লক্ষ্যমাত্রা দাঁড়িয়েছে ২৫২ রানের। রিজওয়ান আর ইফতিখার মিলে শেষ ১০ ওভারে স্কোরবোর্ডে যোগ করেন ১০২ রান।

দুই দলের একাদশে ছিল পরিবর্তন। গতরাতে পাকিস্তান তাদের একাদশ প্রকাশ করলেও, আজ ম্যাচের আগে সেখান থেকেও কিছুটা বদল আসে। নিয়মিত ওপেনার ইমাম উল হক ছিলেননা, তার বদলে খেলছেন আব্দুলাহ শফিক। আগা সালমানের বদলে মোহাম্মদ হারিস খেলেছেন সেই পজিশনে, যদিও সেখানে প্রথম সৌদ শাকিলকে নেওয়া হয়েছিল। ফাহিম আশরাফের পরিবর্তন এসেছেন মোহাম্মদ নওয়াজ। এছাড়াও দুই পেসার নাসিম শাহ ও হারিস রউফ ছিলেননা ইনজুরির কারণে। খেলছেন মোহাম্মদ ওয়াসিম জুনিয়র ও আজকেই অভিষেক হওয়া পেসার জামান খান।

অন্যদিকে শ্রীলঙ্কার নিয়মিত ওপেনার দিমুথ করুনারত্নের পরিবর্তে নেওয়া হয়েছে কুশল পেরেরাকে। কাসুন রাজিথার পরিবর্তে একাদশে সুযোগ পেয়েছেন প্রমোদ মধুশান৷

কলম্বোর প্রেমাদাসা স্টেডিয়ামে গুরুত্বপূর্ণ এই ম্যাচ শুরু হতে বিলম্ব হয় বৃষ্টির কারণে। পরে যখন শুরু হচ্ছে, ওভার কমিয়ে দেওয়া হয়। ৪২ ওভারের ম্যাচে পাকিস্তান টস জিতে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেয়। ওপেনিংয়ে বরাবরের মতোই ফখর জামান হতাশ করেছে। ফিরেছেন মাত্র ৪ রান করে। দ্বিতীয় উইকেট জুটিতে অধিনায়ক বাবর আজম ও একাদশে সুযোগ পাওয়া ওপেনার শফিক মিলে শুরুর ধাক্কা কাটানোর চেষ্টা করেন। ৬৪ রানের জুটি গড়লে, বাবর ফিরে যান দুনিথ ওয়েল্লালাগের ডেলিভারিতে, স্টাম্পিং হয়ে। ৩৫ বলে ২৯ রানে।

মোহাম্মদ রিজওয়ান এসে শফিককে সঙ্গ দেন। এই ওপেনার এরমধ্যে নিজের অর্ধশতক পূরণ করেন। মাথিশা পাথিরানার শর্ট ডেলিভারিতে পুল করতে গিয়ে টপ এজ হয়ে ৫২ রানে ফিরতে হয় শফিককে। মিডল-অর্ডারে হারিস ও নওয়াজ দুজনেই হতাশ করেছেন। ৩ ও ১২ রান তুলেছেন যথাক্রমে। এরমধ্যে এক পশলা বৃষ্টি এসে, ৪৫ ওভারের ম্যাচে ৪২ ওভারে নির্ধারণ করে দেয়।

একপ্রান্তে দৃঢ় চিত্তে ব্যাট করে যাচ্ছিলেন রিজওয়ান। তাঁকে সঙ্গ দিচ্ছেন তখন ইফতিখার আহমেদ। দুইজন মিলে শত রানের জুটি গড়েন। নির্ধারিত ওভারের আগে, ৪১ তম ওভারে ইফতিখার ফিরলেন ৪৭ রান করে৷ হলো না অর্ধশতক। ফলে ১০৮ রানের জুটি ভেঙে যায়। দলীয় রান তখন ৬ উইকেট হারিয়ে ২৩৮ রান।

নতুন ব্যাটার শাদাব খান এসে শেষ ওভারে মধুশানের ডেলিভারিতে কুশল মেন্ডিসের দারুণ ক্যাচে ফিরলেন। মোহাম্মদ রিজওয়ান ছিলেন শেষ পর্যন্ত। শতক পূরণ হয়নি। তবে ভূমিকা রাখলেন দলের সংগ্রহ তুলতে। অপরাজিত থাকলেন ৭৩ বলে ৮৬ রানের ইনিংস খেলে।

শ্রীলঙ্কার বোলারদের পক্ষে, মাথিশা পাথিরানা ৩ উইকেট, প্রমোধ মধুশান ২ উইকেট, দুনিথ ওয়েল্লালাগে ও মাহিশ থিকশানা নিয়েছেন ১ টি করে উইকেট।

৯৭ ডেস্ক

Read Previous

পাকিস্তানের ওয়ান্ডার কিডে মুগ্ধ ইয়ান বিশপ

Read Next

শ্বাসরুদ্ধকর ম্যাচ, পাকিস্তানকে হতাশ করে ফাইনালে শ্রীলঙ্কা

Total
0
Share