ভারতের বিপক্ষে জিততে চান অধিনায়ক সাকিব

সাকিব 5

ভারতের সাথে ম্যাচ, লক্ষ্য কি থাকবে? সাকিবের উত্তর, “আপনি নামলে কী করতেন? নামার আগে? (অবশ্যই জেতার চেষ্টা) আমরাও সেটা চেষ্টা করছি।”

অধিনায়ক সাকিব আল হাসানের উত্তর যেমন হয়, তেমনই। দশ লোকে অবশ্য পছন্দ করেন বিষয়টা। কেউ কেউ ‘হাসিমুখে’ মেনেও নেন। লক্ষ্য অবশ্যই জেতারই থাকবে। সাকিব তাই এই অনুমেয় প্রশ্নগুলো এভাবেই সামাল দেন বেশিরভাগ-ক্ষেত্রে। আগামীকাল (১৫ সেপ্টেম্বর) ভারতের বিপক্ষে ম্যাচের আগে সংবাদ সম্মেলনে কথা বলেছেন বাংলাদেশ অধিনায়ক।

এশিয়া কাপে বাংলাদেশের ব্যাটিং ছিল যথেষ্ট হতাশার। সাকিব নিজেও তা বারবার স্বীকার করছেন। আজ সংবাদ সম্মেলনে এসেও একই ব্যাপার বললেন, আর আশা রাখলেন পরের সিরিজে হয়তো সবাই কামব্যাক করতে পারে।

ভারতের ম্যাচ থেকে চাওয়া-পাওয়া?

সাকিব বলেন,

“না চাওয়া পাওয়ার আছে। আমরা যদি শেষ ম্যাচে জিতে দেশে যেতে পারি, তাহলে আমাদের জন্য ভালো কিছু হবে। এই ম্যাচ থেকে অন্য কিছু চাই না। শুধু জিততেই চাই।”

শেষ ম্যাচ জিততে চায় বাংলাদেশ। অন্তত ভালো একটা স্মৃতি থাকবে এশিয়া কাপের সুপার ফোরে। বড় টুর্নামেন্টে বাংলাদেশের পারফর্ম্যান্স কিছুটা নিম্নগামী থাকে বরাবরই। এবারের এশিয়া কাপে আফগানিস্তানকে হারিয়ে সুপার ফোরে পা রেখেছিল বাংলাদেশ। তবে এই পর্বে এসে, পাকিস্তান ও শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে হারের মুখ দেখতে হয়েছে। আগামীকালের ম্যাচ নিয়ে সাকিবের ‘কম্বিনেশন’-এ স্পিনের দিকে নজর থাকবে বলা যায়।

“আসলে পিচের ওপর সবকিছু নির্ভর করছে। যদি ভালো উইকেট হয় তাহলে তেমন কিছু নাও হতে পারে। আবার স্পিনিং উইকেট হলে হতেও পারে। আমাদের মুক্ত চিন্তা নিয়ে যেতে হবে। খেলা শুরুর পরে আসলে ভালোভাবে বোঝা যাবে। এর আগে শুধু ধারণাই করা যাবে। আসলে কম্বিনেশনে স্পিন থাকবে। শেষ ৩-৪ ম্যাচে স্পিনাররা সুযোগ পাচ্ছে।”

বাংলাদেশের এশিয়া কাপের দৌড় শেষ হচ্ছে আগামীকাল। ভারত ইতোমধ্যে ফাইনালে চলে গেছে। আজ শ্রীলঙ্কা-পাকিস্তান ম্যাচ থেকে জয়ী দল ১৭ তারিখের ফাইনালে ভারতের মুখোমুখি হবে। বাংলাদেশের সামনে এখন আরও বড় চ্যালেঞ্জ; বিশ্বকাপ। বিশ্বকাপের আগে কী ‘মেসেজ’ থাকবে দলের জন্য?

সাকিব বলেন, “একটা জিনিস হচ্ছে সব দায়িত্ব আমার না এখানে। সবার সব দায়িত্ব আছে। আমি নিশ্চিত সবাই যার যার জায়গা থেকে কাজ করবে। সবাই কাজ করলে আমাদের দল হিসেবে ভালো করার সম্ভাবনাটা বেশি থাকবে।”

“সব পারফরম্যান্স যোগ করলে আমরা ভালো করতে পারব। আমি জানি কেউ তার জায়গা থেকে কম কাজ করবে না যাতে সে বিশ্বকাপে ভালো করতে না পারে। আমি আশাবাদী যে আমাদের দল ভালো করবে বিশ্বকাপে।”

সাকিব আশাবাদী রইলেন। বিশ্বকাপে বাংলাদেশ ভালো করবে, সেই আশা বাংলাদেশের সকলের চোখে-মুখে দেখা যায়। কিন্তু উপমহাদেশীয় টুর্নামেন্ট এশিয়া কাপে বাংলাদেশের পারফর্ম্যান্স সেই ‘আশা’তে কিছুটা হলেও সন্দেহ সৃষ্টি করে। তবুও এটা ক্রিকেট। বদলে যেতে সময় লাগে না। বাংলাদেশের আশা এখন সেটাই।

৯৭ ডেস্ক

Read Previous

সংসদ নির্বাচন নিয়ে আলাপে আগ্রহী নন সাকিব

Read Next

পাকিস্তানের ওয়ান্ডার কিডে মুগ্ধ ইয়ান বিশপ

Total
0
Share