তাসকিন-শরিফুলদের দেখে মুগ্ধ হওয়া সিলভারউড আছেন সতর্কে

সিলভারউড তাসকিন

দলের ৬ ও ৭ নম্বরের দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছেন ধনঞ্জয়া ডি সিলভা ও দাসুন শানাকা। আগামীকাল (৯ সেপ্টেম্বর) বাংলাদেশের বিপক্ষে সুপার ফোরের প্রথম ম্যাচে নামতে যাচ্ছে শ্রীলঙ্কা। কলম্বোর প্রেমাদাসা স্টেডিয়ামের মাঠে নামার আগে আজ সংবাদ সম্মেলনে এসে কথা বলেছেন লঙ্কান কোচ ক্রিস সিলভারউড। নিজ দলের ৬ ও ৭ নম্বর পজিশন নিয়ে কথা বলতে বলতে, বাংলাদেশের শক্তির জায়গাও চিহ্নিত করে দিলেন।

৩০০ ছাড়ানো স্কোর করার আগ্রহ লঙ্কান কোচের মধ্যে প্রতীয়মান হচ্ছে। সেখানে দাসুন শানাকা যদি ভূমিকা রাখতে পারে ৭ নম্বর পজিশনে, তবে সেটা দারুণ হবে বলেই বিশ্বাস এই ইংলিশ বংশোদ্ভূত কোচের।

“শানাকা এখন বেশ কঠোর পরিশ্রম করে যাচ্ছে যা সে সবসময়ই করে থাকে। আমরাও তার সাথে কাজ করে যাচ্ছি যেন সে রান করতে পারে। আমরা জানি ৭ নম্বর পজিশনে সে আমাদের জন্য বেশ ভালো অবদান রাখতে পারবে। আমরা যেই ভালো শুরুটা পাচ্ছি তা সে কাজে লাগাতে পারবে। ব্যাপারটা দারুণ হবে যদি দাসুন প্রতিপক্ষের অসুবিধা করে আমাদেরকে ৩০০ ছাড়ানো সংগ্রহ এনে দিতে পারে।”

প্রসঙ্গ টেনেছেন ধনঞ্জয়া ডি সিলভার। যিনি ৬ নম্বরে ব্যাট করছেন। ৬ ও ৭ নম্বরের ব্যাটসম্যানের ক্ষেত্রে হার্ড-হিটিং বিষয়টি জরুরি। লঙ্কান কোচেরও তাই চাওয়া। তবে তা খেলোয়াড়দের নিজের মতো করে সাজিয়ে নেওয়ার ব্যাপারে লক্ষ্য রাখার কথাও বলতে ভুল করলেননা। ধনঞ্জয়ার ব্যাপারেও বেশ আশাবাদী কোচ।

“৬ এবং ৭ নম্বরে তাদের কাছ থেকে আমরা হার্ড হিটিং দেখতে চাই। বিষয়টি এমন নয় যে কেবল ক্রিজে গিয়েই মারতে হবে। বিষয়টি হচ্ছে তারা তাদের মত করে কাজটি করা এবং নিজেদের শক্তির জায়গাগুলোতে জোর দেওয়া। আমরা অতীতেও দেখেছি কীভাবে ধনঞ্জয়া আমাদের বিপদ থেকে উদ্ধার করে বড় সংগ্রহ এনে দিয়েছে যা আমরা ডিফেন্ড করতে পারি।”

বাংলাদেশ দলের পেস বোলিং ইউনিট নিয়ে বেশ অবগত আছেন সিলভারউড। তিনি জানালেন, বাংলাদেশের খেলা দেখে মুগ্ধ হয়েছেন। পেস বোলারদের মুভমেন্টের ব্যাপারেও সচেতন কণ্ঠস্বর শোনা গেল এই কোচের কথায়।

“আমি মনে করি বাংলাদেশের খুব শক্তিশালী একটি বোলিং ইউনিট আছে। আমি এখন পর্যন্ত এই প্রতিযোগিতায় (তাদের খেলা) যতটুকু দেখেছি আমি বেশ মুগ্ধ হয়েছি – বিশেষ করে পেস বোলারদের। তারা শক্তিশালী, সঠিক এবং বলের মধ্যে মুভমেন্টও আছে।”

“আমাদের নিশ্চিত করতে হবে যে আমরা ভালোভাবে প্রস্তুতি নিচ্ছি এবং নিশ্চিত করতে হবে যে আমাদের দলের প্রতিটি ব্যাটারের তাদের প্রতিটি বোলারকে কীভাবে মোকাবেলা করতে হবে তার একটি পরিকল্পনা রয়েছে।“

৯৭ ডেস্ক

Read Previous

‘বাংলাদেশ, শ্রীলঙ্কার এখন এশিয়া কাপ বয়কট করা উচিৎ’

Read Next

বিসিবির সম্মতিতেই ভারত-পাকিস্তানের জন্য রিজার্ভ ডে

Total
0
Share