গাদ্দাফি স্টেডিয়ামের অনার্স বোর্ডে লেখা হল শান্ত-মিরাজের নাম

মিরাজ শান্ত
Vinkmag ad

১৫ বছর পর ক্রিকেট ফিরেছে পাকিস্তানের লাহোরে অবস্থিত ঐতিহাসিক গাদ্দাফি স্টেডিয়ামে। দিনটাও তো ঐতিহাসিক ছিল পাকিস্তানের জন্য। এশিয়া কাপের বাংলাদেশ-আফগানিস্তান ম্যাচ শেষ হয়েছে। জয় পেয়েছে বাংলাদেশ। বাংলাদেশ দলের হয়ে সেঞ্চুরি তুলেছেন দুই ব্যাটসম্যান নাজমুল হোসেন শান্ত ও মেহেদী হাসান মিরাজ। এই সম্মান-স্বরূপ লাহোরের ঐতিহাসিক স্টেডিয়ামের অনার্স-বোর্ডে নাম লেখানোর সুযোগ পেয়েছেন এই দুই ক্রিকেটার।

বাংলাদেশের জন্য দরকারি জয় ছিল। তথ্যমতে, নিশ্চিত হয়েছে সুপার-ফোর। তবে এই জয়ে যাদের ভূমিকা, তাঁদের মধ্যে অন্যতম দুইজন মিরাজ ও শান্ত। দুই বন্ধু বলা চলে। অনূর্ধ্ব-১৯ এ থাকাকালীন খেলেছেন একসাথে। সেখানের বিশ্বকাপেও খেলেছেন। এই দুই বন্ধু আজ আবারও একত্রে বাংলাদেশের জয়ে ভূমিকা রাখলেন।

আজকের ম্যাচে আফগানদের বিপক্ষে ওপেনিংয়ে নেমেছিলেন মিরাজ। এর আগে ওয়ানডেতে ওপেন করেছেন ২০১৮ সালে। সেটাও এশিয়া কাপের ফাইনাল ম্যাচে। লিটনের সাথে জুটি গড়েছিলেন বটে শত রানের। আজ একেবারে নিজেই হাঁকিয়ে বসলেন সেঞ্চুরি। খেললেন ১১৯ বলে ১১২ রানের ইনিংস। রিটায়ার্ড হার্ট হয়ে মাঠ ছাড়তে হয় এক পর্যায়ে।

অন্যদিকে শান্ত, তিনিও নিজের ব্যাটিং পজিশনে আজ নামেননি। খেলেছেন চার নম্বরে। মিরাজের সাথেই বাঁধলেন জুটি। মিরাজের সেঞ্চুরির পর শান্ত নিজেও পান সেঞ্চুরির দেখা। দুই ব্যাটার মিলে দলের জন্য ১৯৪ রানের সংগ্রহ এনে দেন। শান্ত ফিরেছেন ১০৫ বলে ১০৪ রান করে।

শান্ত-মিরাজ; দুজনের সেঞ্চুরি লাহোরের ঐতিহাসিক গাদ্দাফি স্টেডিয়ামে। ইংল্যান্ডের লর্ডসের মতোই এখানে মাইলফলকগুলো লিপিবদ্ধ করে রাখা হয় অনার্স-বোর্ডে। সেই রীতিতে শামিল হলেন বাংলাদেশের এই দুই ক্রিকেটার। ম্যাচ শেষে গাদ্দাফি’র অনার্স বোর্ডে নিজেদের নাম স্বাক্ষর করে রাখলেন। বাংলাদেশ যেন লাহোরে এক স্মরণীয় ম্যাচ খেলে ফেলল। এত এত ঘটনার মধ্যে দিয়ে।

৯৭ ডেস্ক

Read Previous

যে সমীকরণ টপকিয়ে বাংলাদেশ এশিয়া কাপের সুপার ফোরে

Read Next

কলোম্বোর টানা বৃষ্টিতে সরে যাচ্ছে এশিয়া কাপ

Total
0
Share