হারারেতে সিরিজে সমতা ফেরাল আয়ারল্যান্ড

হারারেতে সিরিজে সমতা ফেরাল আয়ারল্যান্ড
Vinkmag ad

বৃষ্টিবিঘ্নিত প্রথম ওয়ানডেতে শেষ বলে জয়ে সিরিজে দারুণ শুরু করেছিল জিম্বাবুয়ে। তবে দ্বিতীয় ম্যাচে এসে হোঁচট খেয়েছে স্বাগতিকরা, জস লিটলের দুর্দান্ত বোলিংয়ে ৪৬ রানে স্বাগতিক জিম্বাবুয়েকে হারিয়ে সিরিজে সমতা ফিরিয়েছে আয়ারল্যান্ড।

স্টিফেন ডোহানি ও পল স্টার্লিং এর শতরানের উদ্বোধনীয় জুটিতে ২৯৪ রানের পুঁজি পায় আয়ারল্যান্ড। রান তাড়ায় জিম্বাবুয়ে ইনোসেন্ট কায়া (৫১) ও গ্যারি ব্যালান্সের (৫২) দুই ফিফটিতে লড়াই করলেও জশ লিটলের অসাধারণ বোলিংয়ে ম্যাচ হারে ৪৬ রানে। লিটল ৪৮ রানে ৪ উইকেট শিকার করে স্বাগতিকদের ধ্বসিয়ে দেন একাই। ৪ উইকেটের মধ্যে লিটল ফিরিছেন জিম্বাবুয়ের দুই ওপেনার ইনোসেন্ট কায়া (৫১) ও তা‌দিওয়ান‌শে মারুমা‌নি (০)।

২৯৫ রানের লক্ষ্য তাড়ায় শুরুতেই ওপেনার তা‌দিওয়ান‌শে মারুমা‌নিকে হারায় জিম্বাবুয়ে। ইনিংসের দ্বিতীয় বলে তা‌দিওয়ান‌শে মারুমা‌নিকে (০) ফিরিয়ে আয়ারল্যান্ডকে দারুণ এক শুরু এনে দেন জশ লিটল। ১ রানে প্রথম উইকেট হারানো জিম্বাবুয়ে ঘুরে দাঁড়ায় ইনোসেন্ট কায়া ও চামু চিবাবার ব্যাটে, দ্বিতীয় উইকেটে দুজনের ৮৯ রানের জুটিতে স্বস্তি ফিরে জিম্বাবুয়ে শিবিরে। অ্যান্ডি ম্যাকব্রাইনের বলে আউট হওয়ার আগে চিবাবা ৫৫ বলে ৪ বাউন্ডারিতে খেলেন ৪০ রানের ইনিংস।

চিবাবার পর ফিফটি করে ফিরেন ইনোসেন্ট কায়াও। লিটলের বলে ৭০ বলে ৩ বাউন্ডারি এবং ১ ছক্কায় ৫১ রান করে সাজঘরে ফিরেন কায়া। এরপর গ্যারি ব্যালান্স ও সিকান্দার রাজার ব্যাটে এগুতে থাকে জিম্বাবুয়ে। সেটাও ৩৮ রানের বেশি স্থায়ী হয়নি। দারুণ খেলতে থাকা রাজাকে ফিরিয়ে ৩৮ রানেই চতুর্থ উইকেট জুটি থামান মার্ক অ্যাডায়ার। রাজা ২১ বলে খেলেন ২৫ রানের দারুণ এক ইনিংস। ফলে ১৪০ রানে ৪ উইকেট হারায় স্বাগতিকরা।

রান তাড়ায় পঞ্চম উইকেটে রায়ান বার্ল ও গ্যারি ব্যালান্সের ব্যাটে ৬৭ রানের দারুণ এক জুটি পায় জিম্বাবুয়ে। দলীয় ২০৭ রানে বার্ল রান আউটে কাটা পড়লে সেই জুটি থামে ৬৭ রানে। বার্লের বিদায়ে ম্যাচ থেকে ছিটকে যায় জিম্বাবুয়ে। বার্ল ৩৯ বলে ৫ বাউন্ডারিতে করেন ৪১ রান।

এরপর জিম্বাবুয়ে ম্যাচে যা একটু লড়েছে সেটা গ্যারি ব্যালান্সের ব্যাটে। আউট হওয়ার আগে ব্যালান্সও এক প্রান্ত আগলে রেখে রানের চাকা সচল রেখে সামবে এগুতে থাকেন, অন্যপ্রান্ত থেকে ঠিকঠাক সাপোর্ট না পাওয়ায় ব্যালেন্সের লড়াই থামে ইনিংসের ৪৭তম ওভারে। গ্রাহাম হিউমের বলে ব্যালান্সের বিদায়ের পর ৪৮তম ওভারে জিম্বাবুয়ের থামে ২৪৮ রানে। আউট হওয়ার আগে ব্যালান্স ৬৭ বলে ২ বাউন্ডারিতে করেন ৫২ রান।

আয়ারল্যান্ডের হয়ে ৩৮ রানে ৪ উইকেট শিকার করে ম্যাচ সেরা হয়েছেন জশ লিটল। এছাড়া ২টি করে উইকেট শিকার করেছেন মার্ক অ্যাডায়ার ও গ্রাহাম হিউম।

এর আগে নিয়মিত অধিনায়ক অ্যান্ডি বালবার্নি ছাড়াই খেলতে নামে আয়ারল্যান্ড। প্রথম ওয়ানডেতে সেঞ্চুরি করার পর হেলমেটে আঘাত পান বালবার্নি। ফলে বালবার্নি অনুপস্থিতিতে পল স্টার্লিং এর নেতৃত্বে হারারে স্পোর্টস ক্লাব মাঠে দ্বিতীয় ওয়ানডে খেলতে নামে আয়ারল্যান্ড।

দ্বিতীয় ওয়ানডেতে অধিনায়কের দায়িত্ব ঠিকঠাক পালন করেছেন পল স্টার্লিং। উদ্বোধনীয় জুটিতে স্টিফেন ডোহানির সাথে গড়েছেন শতরানের দারুণ এক জুটি। যাতে আইরিশরা পেয়েছে প্রায় তিনশো ছুই ছুই ২৯৪ রানের পুঁজি। ব্র‍্যাড ইভান্সের বলে আউট হওয়ার আগে ৬১ বলে ৪ বাউন্ডারি এবং ২ ছক্কায় ৪৫ রানের ইনিংস খেলেন স্টার্লিং। স্টার্লিংয়ের বিদায়ে ১০৪ রানে থামে উদ্বোধনীয় জুটি।

ইনিংসের ২৭তম ওভারে আবারও আইরিশ শিবিরে আঘাত হানেন ইভান্স। এবার তার শিকার মারে কমিন্স (৬)। এরপর অবশ্য জিম্বাবুয়ে বোলাররা ম্যাচে নিয়ন্ত্রণ নিতে পারেননি, ফলে তৃতীয় উইকেটে সহজে ৫৭ রানের জুটি গড়েন স্টিফেন ডোহানি ও হ্যারি টেক্টর। দলীয় ১৮২ রানে ডোহানিকে ফিরিয়ে সেই জুটি ভাঙেন রায়ান বার্ল। সেই সাথে সেঞ্চুরি মিসের আক্ষেপ নিয়ে ফিরতে হয় ডোহানিকে। ১১১ বলে ৭ বাউন্ডারি এবং ১ ছক্কায় ৮৪ রানের মূল্যবান ইনিংস খেলে সাজঘরে ফিরেন ডোহানি।

এরপর ম্যাচে কিছুটা প্রভাব বিস্তার করে জিম্বাবুয়ে বোলাররা। দলীয় ২৫৮ রানে হ্যারি টেক্টরকে ফিরিয়ে রান গতি থামিয়ে দেয় স্বাগতিকর। ৬১ বলে ৭৫ রানের ইনিংস খেলা টেক্টর থামান চাতারা। ৭ বাউন্ডারি এবং ১ ছক্কায় ৭৫ রানের ইনিংসটি সাজান টেক্টর। ফলে তিনশো পার হয়নি আয়ারল্যান্ডের, শেষ দিকে ১৯ বলে ৩ বাউন্ডারি এবং ১ ছক্কায় জর্জ ডকরেল ৩০ রান করলে ২৯৪ রানের সংগ্রহ পায় আইরিশরা৷

জিম্বাবুয়ের হয়ে ৫১ রানে ৩ উইকেট শিকার করেন টেন্ডাই চাতারা। এছাড়া ২টি উইকেট নেন ব্র‍্যাড ইভান্স এবং ১টি করে উইকেট শিকার করেন রিচার্ড এনগারাভা ও রায়ান বার্ল।

৯৭ ডেস্ক

Read Previous

অলিম্পিকে ছয় দলের টি-টোয়েন্টি ইভেন্টের জন্য আইসিসির প্রস্তাব

Read Next

পিএসএলের প্রস্তুতি নিতে বিপিএল ছাড়লেন হারিস

Total
16
Share