রোমাঞ্চকর ম্যাচে আইরিশদের হারাল জিম্বাবুয়ে

রোমাঞ্চকর ম্যাচে আইরিশদের হারাল জিম্বাবুয়ে
Vinkmag ad

শেষ ওভারে জিম্বাবুয়ের জয়ের জন্য প্রয়োজন পড়েছিল ১৩ রানের, ওভারের দ্বিতীয় বলে সাজঘরে সেট ব্যাটার রায়ান বার্ল, পরের বলে ব্র‍্যাড ইভান্সের ছক্কায় জমে ওঠে ম্যাচ। চতুর্থ বলে আবার ইভান্সকে ফিরিয়ে উত্তেজনা বাড়ান গ্রাহাম হিউম। শেষে বলে বাউন্ডারি হাঁকিয়ে নাটকীয়তার অবসান, জয় নিয়ে ফিরেন ক্লাইভ মাদান্ডে। বৃষ্টি আইনে জিম্বাবুয়ে জয় পায় ৩ উইকেট হাতে রেখে।

হ্যারি টেক্টর (১০১) ও অ্যান্ড্রু বালবার্নি (১২৬*), জোড়া শতকে ২৮৮ রান তুলে আয়ারল্যান্ড। সেই রান তাড়ায় আশানুরূপ শুরু পায়নি জিম্বাবুয়ে, শেষ দিকে বৃষ্টি বাগড়ায় ম্যাচ নেমে আসে ৩৭ ওভারে, জয়ের জন্য স্বাগতিকদের লক্ষ্য দাঁড়ায় ২১৪। বৃষ্টিতে খেলা বন্ধ হওয়ার আগে জিম্বাবুয়ে ৩৩.২ ওভারে ৪ উইকেটে তুলে ১৭৫ রান।

২৮৯ রান তাড়ায় জিম্বাবুয়ের শুরুটা হয় যাচ্ছেতাই, একশোর আগেই হারায় ৪ উইকেট। দলীয় ৯ রানে ওয়েসলি মাধেভেরেকে ফিরিয়ে শুরুটা করেন মার্ক অ্যাডায়ার। এরপর ৪৯ রানে আরেক ওপেনার ইনোসেন্ট কায়াকে (১৯) সাজঘরে পাঠান গ্রাহাম হিউম। রান তাড়ায় জিম্বাবুয়ে তৃতীয় উইকেটে অবশ্য ৩১ রানের জুটি পায় অধিনায়ক ক্রেইগ আরভিন ও অভিষিক্ত গ্যারি ব্যালান্সের ব্যাটে। দলীয় ৮০ রানে কট এন্ড বোল্ডে আরভিনকে (৩৮) ফিরিয়ে এই জুটি থামান হ্যারি টেক্টর। আরভিনের পর অভিষিক্ত ব্যালান্সও ফিরেন ২৮ বলে ২ বাউন্ডারিতে ২৩ রান করে।

৯৯ রানে ৪ উইকেট হারানো জিম্বাবুয়ে ম্যাচের লড়াইয়ে ফিরে সিকান্দার রাজা ও রায়ান বার্লের ব্যাটে। হারারে স্পোর্টস ক্লাব মাঠে বৃষ্টি নামা আগে পঞ্চম উইকেটে দুজনে মিলে যোগ করেন ৭৬ রান। বার্ল-রাজার জুটিতে জয়ের দিকে ছুটতে থাকা জিম্বাবুয়ের জন্য বাঁধা হয়ে আসে অনাকাঙ্ক্ষিত বৃষ্টি। বৃষ্টি খেলা বন্ধ থাকার পর খেলা যখন শুরু হয় তখন ডাকওয়ার্থ লুইস মেথডে জিম্বাবুয়ের জন্য লক্ষ্য দাঁড়ায় ৩৭ ওভারে ২১৪।

বৃষ্টির পর ছন্দ হারায় জিম্বাবুয়ে, সিকান্দার রাজাকে ৪৩ রানে ফিরিয়ে ৭৬ রানের জুটি ভাঙেন মার্ক অ্যাডায়ার। শেষ ওভারে যখন জিম্বাবুয়ের জয়ের জন্য দরকার ১৩ রান, হাতে ছিল ৫ উইকেট। সেখানে ওভারের দ্বিতীয় বলে জিম্বাবুয়ে হারায় সেট ব্যাটার রায়ান বার্লের উইকেট। দলীয় ২০৩ রানে ক্যাম্ফার ও টাকার মিলে রান আউটে ফেরান রায়ান বার্লকে। আউট হওয়ার আগে বার্ল ৪১ বলে ৬ বাউন্ডারি এবং ২ ছক্কায় করেন ৫৯ রান। ওভারের তৃতীয় বলে ছক্কা হাঁকিয়ে ম্যাচের প্রাণ ফেরান ব্র‍্যাড ইভান্স, তবে পরের বলে ইভান্স এলবিডব্লিউ হলে নিবে যায় জিম্বাবুয়ের জয়ের আশা। ক্রিজে আসা নতুন ব্যাটার ওয়েলিংটন মাসাকাদজা পঞ্চম বলে সিঙ্গেল নিয়ে স্ট্রাইক দেন মাদান্ডেকে, শেষ বলে বল সীমানা ছাড়া করে জয় নিয়ে মাঠ ছাড়েন মাদান্ডে।

এর আগে টস হেরে ব্যাট করতে নেমে শুরুটা ভাল হয়নি আয়ারল্যান্ডের। ওপেনার স্টিফেন ডোহানিকে (৩) বোল্ড করে জিম্বাবুয়েকে উড়ন্ত সূচনা এনে দেন ভিক্টর নিয়াউচি। দলীয় ২৫ রানে এনগারাভার বলে এলবিডব্লিউ হয়ে সাজঘরে ফিরেন পল স্টার্লিং (১৩)। ২৫ রানের মধ্যেই দুই ওপেনারকে হারায় আয়ারল্যান্ড।

দ্রুত দুই ওপেনারের ফেরার পরেও আয়ারল্যান্ডের ব্যাটিংয়ে তেমন একটা প্রভাব পড়তে দেননি অ্যান্ড্রু বালবার্নি ও হ্যারি টেক্টর। দুজনের ব্যাটে ২১২ রানের ম্যাচের মোড় ঘোরানো জুটি পায় আয়ারল্যান্ড। সেই জুটিতে লড়াকু সংগ্রহের ভিত পায় সফরকারীরা। ব্যাট হাতে সামনে থেকে নেতৃত্ব দিয়ে দুইশো ছাড়ানো জুটি গড়ার পাশাপাশি নিজেও সেঞ্চুরি করেছেন আইরিশ দলপতি অ্যান্ড্রু বালবার্নি। ১২৬ বলে ১২ বাউন্ডারি এবং ১ ছক্কায় তিন অঙ্কের ম্যাজিক ফিগার স্পর্শ করেন বালবার্নি। দলীয় ২৩৭ রানে রিটায়ার্ড হয়ে বালবার্নি ফিরলে তার অধিনায়কোচিত ইনিংসটি থামে ১২৬ রানে। ১৩৭ বলে ১২৬ রানের দুর্দান্ত ইনিংসটি বালবার্নি সাজান ১৩ বাউন্ডারি এবং ৩ ছক্কায়।

বালবার্নিকে দারুণ সঙ্গ দেওয়া হ্যারি টেক্টর অবশ্য ফিরেছেন ইনিংস শেষ করে। সেই সাথে তিনি পেয়েছেন তিন অঙ্কের ম্যাজিক ফিগারের দেখা। ইনিংসের শেষ ওভারে তিন ডাবলসে ১০৮ বলে সেঞ্চুরি করেন টেক্টর। ১০৯ বলে ৮ বাউন্ডারি এবং ১ ছক্কায় অপরাজিত ১০১ রানের ইনিংস টেক্টর আইরিশদের সংগ্রহ আড়াইশো ছাড়িয়ে ২৮৮ তে নিয়ে যান। অ্যান্ড্রু বালবার্নি ও হ্যারি টেক্টর জোড়া সেঞ্চুরিতে ৪ উইকেটে ২৮৮ রানের পুঁজি পায় আয়ারল্যান্ড।

জিম্বাবুয়ের ভিক্টর নিয়াউচি ৬৫ রানে শিকার করেন ২ উইকেট। এছাড়া ১টি করে উইকেট শিকার করেন সিকান্দার রাজা ও রিচার্ড এনগারাভা।

৯৭ ডেস্ক

Read Previous

বিসিবির হেড অব গ্রোগ্রামস হয়ে যে কাজ করবেন ডেভিড মুর

Read Next

গিলের রেকর্ড গড়ার দিন ব্রেসওয়েল ভয় ধরিয়ে দিয়েছিলেন ভারতকে

Total
18
Share