নিষিদ্ধ হওয়ার ভয়ে মাঠে কিছু বলছে না কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স

দক্ষিণ আফ্রিকায় মিঠুন-রাজা, চরম হতাশ সালাউদ্দিন
Vinkmag ad

বিপিএল নিয়ে যেন সমালোচনা কমছেই না। প্রায় সব ম্যাচেই এডিআরএসের সিদ্ধান্তে অসন্তুষ্ট একেক দল। এবার মুখ খুলেছেন কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের কোচ মোহাম্মদ সালাউদ্দিন। নিষিদ্ধ হওয়ার ভয়ে মাঠেও কিছু বলতে পারছে না খেলোয়াড়, কোচরা। সালাউদ্দিনের মতে, এডিআরএস থাকার চেয়ে না থাকলে ভালো হত।

ডিআরএসের বদলে এবারের বিপিএলে কাজ করছে এডিআরএস। ডিআরএস প্রযুক্তি সবার কাছে পরিচিত হলেও এডিআরএস একেবারেই নতুন। অল্টারনেটিভ ডিসিশন রিভিউ সিস্টেমে (এডিআরএস) শুধু লেগ-বিফোরের ক্ষেত্রেই রিভিউ নেওয়া যাবে। আছে আরও কিছু সীমাবদ্ধতা; নেই বল ট্র্যাকিং সিস্টেম, স্নিকো মিটার বা আলট্রা এজ। স্টাম্প মাইকের আওয়াজ ও টিভি রিপ্লে দেখে সিদ্ধান্ত নেন তৃতীয় আম্পায়ার।

জাকের আলি অনিকের আউট নিয়ে কথা বলেছেন, সংবাদ সম্মেলনে আসা কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের কোচ মোহাম্মদ সালাউদ্দিন।

‘টি-টোয়েন্টিতে আপনি যখন একটা ছন্দ পান তখন ওই অবস্থায় একটা উইকেট পড়ে গেলে খেলাটার জন‌্য ভালো না। হতে পারে আবার নাও হতে পারে (জাকিরের আউটে ব‌্যাটিংয়ে ছন্দপতন)। এটা নিয়ে আর ফিরতে পারবো না। আমরা হেরে গিয়েছি সেটাই সত‌্য। আমরা এই অবস্থা থেকে কিভাবে ঘুরে দাঁড়াতে পারি সেটাই বড় কথা।’

‘এই ‍মুহূর্তে আমি আসলে কিছু বলতে পারবো না। এটা নিয়ে তো বিতর্ক অনেক চলছে। আমি শুরুতেই বলেছিলাম একটা-দুইটা সিদ্ধান্তে আপনি ম‌্যাচটা হেরে যাবেন। সিদ্ধান্তগুলো আরেকটু ভালো হয়। আরেকটু চিন্তা ভাবনা করে দেয় তাহলে ভালো। খালি চোখে যেটা আমরা দেখছি নট আউট, সেটা থার্ড আম্পায়ার আউট দিয়ে দিচ্ছে।’

আম্পায়ারদের বিতর্কিত সিদ্ধান্তের বিপরীতে যেয়ে মাঠে তোলপাড় করতে চান না কোচ সালাউদ্দিন। কারণ, নিষিদ্ধ হওয়ার ভয়ও রয়েছে। ফরচুন বরিশালের বিপক্ষে ম্যাচ শেষে তিনি বলেন,

‘কি করতে পারি? আমাদের তো কিছু করার নেই। আমরা মাঠে চিল্লাচিল্লি করি এটা কি চান? এমনিই সাসপেন্ড করে দেবে। ঠিক আছে। যেহেতু খেলা চলছে। প্রতিবাদ করেও তো লাভ নেই। আমরা লিখিত দিব বা প্রতিবাদ করবো সেটা করেও তো লাভ নেই। কোনো লাভ হবে না। আসলে কিছু করার নেই। হাত পা বাধা আছে। যা হবার তাই হবে আর কি।’

অল্টারনেটিভ ডিসিশন রিভিউ সিস্টেম নিয়ে কোচ সালাউদ্দিনের বক্তব্য, এই সিস্টেম থাকার চেয়ে না থাকা ভালো।

‘এডিআরএস থাকার চেয়ে না থাকাই ভালো আমার মনে হয়। আম্পায়ার যেটা দিয়ে দেবে, সেটা দেওয়াই ভালো। এটা তো একেবারে লেগ স্টাম্পের বাইরে পিচ করেছে, এমন না যে…। আমার কাছে মনে হয় একটা দুটা সিদ্ধান্ত…প্রথম ম্যাচেও একটা সিদ্ধান্ত খারাপ হয়েছে, আজকেও। আমার কাছে মনে হয়েছে…জানি। তবে এমন ডিআরএস থাকার চেয়ে না থাকাই ভালো। ‘

‘আমি জানি না…উনাদের রুলস হয়তো নতুন কিছু থাকতে পারে। একটু হয়তো কিছু একটা হয়তো ছায়া-টায়া ছিল। আমি জানি না। কিন্তু এটা তাদের রুলস-টুলস হতে পারে। এ কারণে আম্পায়ার দিয়ে দিলে, সেটা দিলেই খুশি হবো।’

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

অস্ট্রেলিয়াকে হারিয়ে দিশাদের বিশ্বকাপ মিশন শুরু

Read Next

‘দিলখুশ না কি জানি, চিনি না, সাকিব ভাইও চিনে না’

Total
26
Share