টি-টোয়েন্টির পর ওয়ানডে সিরিজও ভারতের

20230113 095444
Vinkmag ad

শ্রীলঙ্কার ছন্দ পতনের শুরু তৃতীয় টি২০ থেকে, এরপর আর ঘুরে দাঁড়াতে পারেনি দাসুন শানাকার দল। লঙ্কানদের হয়ে যা একটু ভাল করছেন তা এক দাসুন শানাকাই করছেন। শ্রীলঙ্কা এবারের ভারত সফরে যা একটু দাপট দেখিয়েছে তাও শানাকার ব্যাটে, তাকে বাদ দিলে শ্রীলঙ্কার সাফল্যও খুব একটা নাই। শানাকার ব্যাটে রান মানে শ্রীলঙ্কার লড়াই, শানাকার ব্যাটে রান মানে শ্রীলঙ্কার জয়। যেদিন শানাকা ব্যর্থ সেদিন শ্রীলঙ্কার অর্জনও শুন্য, যা বৃহস্পতিবার আবার প্রমাণিত হয়েছে কলকাতার ইডেন গার্ডেনে। ভারতের বিপক্ষে দ্বিতীয় ওয়ানডেতে ছয়ে নেমে লঙ্কান অধিনায়ক শানাকা ফিরেছেন মাত্র ২ রানে, তার দলও থেমেছে মাত্র ২১৫ রানে। লোকেশ রাহুলের অপরাজিত ৬৪ রানে ভারত সেই রান টপকে গেছে ৪৩.২ ওভারে ৪ উইকেট হাতে রেখে।

বৃহস্পতিবার কলকাতার ইডেন গার্ডেনে ২১৬ রানের লক্ষ্য তাড়ায় লঙ্কান দুই পেসার লাহিরু কুমারা ও রাজিতার গতির ঝড়ে মাত্র ৬২ রানে উড়ে যায় ভারতের ৩ উইকেট। লাহিরু কুমারা একে একে ফেরান শুবমান গিল (২১), ভিরাট কোহলি (৪)। চারে খেলতে নামা শ্রেয়াস আইয়ারকে ব্যক্তিগত ২৮ রানে রাজিতা ফেরালে ৮৬ রানে ৪ উইকেট হারায় ভারত। ২১৬ রান তাড়ায় শতরানের আগে ৪ উইকেট হারানোর শুরুটা করেন করুণারত্নে রোহিত শর্মাকে ফিরিয়ে। লঙ্কান এই বোলার দলীয় ৩৩ রানে ভারতের অধিনায়ককে ফিরিয়ে স্বাগতিকদের ব্যাটিং ধ্বসের শুরুটা করে দেন।

শতরানের আগে চার উইকেট হারিয়ে যখন ভারত কাধের কিনারায়, তখন ভারতের ত্রান কর্তা হয়ে উঠেন কেএল রাহুল। পঞ্চম উইকেটে হার্দিক পান্ডিয়াকে নিয়ে ৭৫ রানের জুটি গড়ে প্রাথমিক বিপর্যয়ের সেই ধাক্কা কাটিয়ে উঠার চেষ্টা করেন রাহুল। পান্ডিয়া-রাহুলের সেই জুটিতে ম্যাচে ফিরে ভারত। দলীয় ১৬১ রানে পান্ডিয়াকে (৩৬) ফিরিয়ে সেই জুটি থামান করুণারত্নে।

পান্ডিয়ার বিদায়ের পর অক্সার পাটেলের সাথে ৩০ রানের আরও একটি ছোট জুটি গড়ে দলকে নিয়ে যান খুব কাছে। পাটেলকে (২১) যখন ধনাঞ্জয়া ডি সিলভা সাজঘরে ফেরান ভারত তখন জয় থেকে মাত্র ২৫ রান দূরে।

১৯১ রানে ষষ্ঠ উইকেট হারানোর পর কুলদীপ যাদবকে নিয়ে বাকী কাজটা সারেন রাহুল। সপ্তম উইকেটে ২২ বলে অবিচ্ছিন্ন ২৮ রানের জুটি গড়ে ৪৩.২ ওভারে ভারতকে জিতিয়ে মাঠ ছাড়েন রাহুল অপরাজিত ৬৪ রানের ম্যাচজয়ী ইনিংসে। ১০৩ বলে রাহুলের ৬৪ রানের ইনিংসটিতে ছিল ৬টি চারের মার। শ্রীলঙ্কার হয়ে ২টি করে উইকেট শিকার করেন লাহিরু কুমারা ও চামিকা করুণারত্নে। এছাড়া একটি করে উইকেট পান রাজিতা ও ধনাঞ্জয়া ডি সিলভা।

এর আগে ওপেনার নুওয়ানিদু ফার্নান্দোর ফিফটিতে শুরুটা মন্দ হয়নি শ্রীলঙ্কার। ফার্নান্দো ৫০ রানের ইনিংস খেলার পথে উদ্বোধনীয় জুটিতে ২৯ রানের পাশাপাশি দ্বিতীয় উইকেটেও কুশল মেন্ডিসকে নিয়ে গড়েন ৭৩ রানের জুটি। দলীয় ১০২ রানে কুলদীপ যাদবের বলে মেন্ডিস ফিরলে লঙ্কান ব্যাটিংয়ের ছন্দ পতন ঘটে। দলীয় ১০৩ রানে আক্সার পাটেলের বলে বোল্ড হয়ে ডাক মেরে সাজঘরে ফিরেন ধনাঞ্জয়া ডি সিলভা। এরপর শ্রীলঙ্কার হয়ে নিজের প্রথম ওডিআই খেলতে নামা ফার্নান্দো ৬২ বলে ৬ বাউন্ডারিতে অভিষেক ম্যাচেই করেন ফিফটি।
অভিষেকে দুর্দান্ত খেলতে থাকা নুওয়ানিদু ফার্নান্দো (৫০) ফিফটি করে রান আউটের শিকার হলে ১৬ রানের ব্যবধানে ৩ উইকেট হারায় শ্রীলঙ্কা।

১১৮ রানে ৪ উইকেট হারানো লঙ্কানদের ভরসা তখন দাসুন শানাকা, তবে লঙ্কান ভরসার প্রতীক আশার আলো হয়ে উঠার আগেই তাকে সাজঘরে ফেরান কুলদীপ যাদব। টি২০ সিরিজের পর ওয়ানডে সিরিজেও ব্যাট হাতে লঙ্কানদের ভরসার প্রতীক শানাকার দ্রুত বিদায়ে ভেঙে পড়ে শ্রীলঙ্কা।

শানাকার বিদায়ের পরও ২৫ ও ৩৮ রানের জুটি পায় শ্রীলঙ্কা। ছোট সেই দুই জুটি লঙ্কান সংগ্রহ দুইশো পার করলেও তা জয়ের জন্য যথেষ্ট ছিল না। লঙ্কান তিন ব্যাটার ধনাঞ্জয়া ডি সিলভা (২১), চামিকা করুণারত্নে (১৭), ডুনিথ ওয়েলালেজ (৩২) ফিরিয়ে সফরকারীদের ২১৫ রানে গুটিয়ে দিতে মূল ভূমিকা পালন করেন দুই পেসার মোহাম্মদ সিরাজ ও উমরান মালিক। শ্রীলঙ্কার শেষ ৪ উইকেট ভাগাভাগি করে নেন এই দুই পেসার, দুজনেই শিকার সমান ২টি করে উইকেট।

ভারতের হয়ে ৩টি করে উইকেট শিকার করেন কুলদীপ যাদব ও মোহাম্মদ সিরাজ। এছাড়া উমরান মালিক শিকার করেন ২ উইকেট আর একটি উইকেট যায় আক্সার পাটেলের পকেটে।

রাহুলের ব্যাটে ৪ উইকেটের জয় নিয়ে ভারত ওয়ানডে সিরিজে ২-০ এগিয়ে গেল। ১০৩ বলে ৬৪ রানের ম্যাচজয়ী ইনিংসে ম্যাচের সেরা খেলোয়াড় হয়েছেন সেই রাহুল।

৯৭ ডেস্ক

Read Previous

অস্ট্রেলিয়াকে রাশিদ খানের কড়া জবাব

Read Next

গ্যারি ব্যালান্সের অভিষেক জয়ে রাঙালো জিম্বাবুয়ে

Total
1
Share