সাকিব বাইরে থেকে চিল্লাচ্ছিলেন বলেই সোহান বোলার চেঞ্জ করেন

shakib 1
Vinkmag ad

সাকিব আল হাসান আজ বরিশালের ইনিংস শুরুর ঠিক আগে মাঠে ঢুকে অনফিল্ড আম্পায়ারদের সঙ্গে তর্কে জড়ান। কিন্তু সাকিব ঠিক বলেছিলেন কিছুই জানেন না রংপুরের অধিনায়ক সোহান। তবে তার বক্তব্য, সাকিব ভাই বাইরে থেকে ব্যাটার পরিবর্তন করতেছিল, তাই আমি করেছি। একসময় এটা দুষ্টামির পর্যায়ে চলে যায়।

ঘটনা, বরিশাল ম্যাচের দ্বিতীয় ইনিংস শুরু করার কয়েক সেকেন্ড আগের। রংপুরের স্পিনার শেখ মেহেদীকে বল করতে আসতে দেখে চতুরঙ্গ ডি সিলভার বদলে এনামুল হক বিজয় স্ট্রাইকে যেতে চাচ্ছিলেন। কিন্তু আম্পায়ার সেটার অনুমতি দিতে রাজি হচ্ছিলেন না, এই নিয়ে কথা বলতে দৌড়ে মাঠে প্রবেশ করেন বরিশালের অধিনায়ক সাকিব আল হাসান।

ব্যাটার চেঞ্জ করতে প্রথমে সাকিবই চেয়েছিলেন। এ দেখে চুপ থাকেননি সোহানও। তিনি পরিবর্তন করেছেন তার দলের বোলরকে। মেহেদীকে বাদ দিয়ে ডেকে আনেন রাকিবুলকে। তবে সাকিব হঠাত মাঠে এসে আম্পায়ারের সঙ্গে কি কথা বলেন প্রতিপক্ষের অধিনায়ক নুরুল হাসান সোহান জানেন না কিছুই,

‘সাকিব ভাই যখন তর্কাতর্কি করলেন আমি তো ছিলাম না, মাঠে এপাশে ছিলাম। মাঠে ছিলাম কি কথা হয়েছে জানি না। আমি দেখতেছিলাম সাকিব ভাই যখন বাইরে থেকে চিল্লাচ্ছিলেন ব্যাটার চেঞ্জ করতে তখন আমিও বোলার পরিবর্তন করতে ছিলাম।’

ব্যাটারদের প্রান্ত পরিবর্তন যদি ব্যাটাররা নিজের থেকে করতো, তাহলে সোহান এমনটা করতেন না। সাকিবকে এই ইস্যুতে জড়াতে দেখে সোহানও তার বোলারকে পরিবর্তন করার সিদ্ধান্ত নেন। তবে শেষপর্যন্ত যেটা হয়েছে সোহানের মতে, সেটা দুষ্টামি।

‘তবে যেটা হয়েছে একটা সময় সেটা দুষ্টামির পর্যায়ে চলে গেছে। যদি ব্যাটাররা মাঠে থেকে চেঞ্জ করতো, আমি তখন চেঞ্জ করতাম না। যেহেতু বাইরে থেকে কথা আসতেছে তাই আমি চেঞ্জ করেছি।’

নুরুল হাসান সোহান তার ক্রিকেট ক্যারিয়ারে এমন ঘটনা এই প্রথম দেখেছেন?

‘হ্যা আজকেই দেখলাম।’

চতুরঙ্গ ডি সিলভার বিরুদ্ধে মেহেদী হাসানকে দিয়ে বোলিং করাতে চেয়েছিলেন রংপুর অধিনায়ক সোহান।

‘আমার দলের জন্য যতটুকু করার দরকার আমি তা ই করব। কিছু ঘটনা ঘটে এগুলা খেলারই অংশ। আমি অবশ্যই চাইবো আমার সেরা বোলারটা, প্রতিপক্ষের সেরা ব্যাটারের বিপক্ষে বল করুক। মেহেদী আমার দলের সেরা বোলার, যেহেতু বাঁহাতি (চতুরঙ্গ ডি সিলভা) আসছে আমি চাইছিলাম মেহেদী বল করুক।’

তখন আম্পায়ারদের ভূমিকা কিরকম ছিল আর কি করার দরকার ছিল; এ প্রসঙ্গে সোহানের বক্তব্য,

‘আম্পায়াররাও হয়তো মাঠে অনেক চাপে পড়ে যাচ্ছে। তারা বিষয়টি যদি আগে পরিষ্কার করে জানালে এতোদূর হয়তো কাহিনীটা যেত না। আম্পায়ার যখন আমাকে বলেছে আমি তখন কোনো তর্কে যায়নি। পরে তো সেটাই হয়েছে তারা যেটা চেয়েছে।

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

তর্ক-বিতর্কের ম্যাচে শেষ হাসি সাকিবদের

Read Next

সাকিব, সোহান, বিজয়কে গুনতে হচ্ছে জরিমানা

Total
1
Share