তর্ক-বিতর্কের ম্যাচে শেষ হাসি সাকিবদের

ফরচন বরিশাল
Vinkmag ad

নানা তর্ক-বিতর্কের ম্যাচে শেষ হাসি হাসলো সাকিব আল হাসানের দল। রংপুরকে হারিয়ে এবারের বিপিএলে প্রথম জয় তুলে নিল ফরচুন বরিশাল। বোলিংয়ে জাদু দেখানো মেহেদী হাসান মিরাজ ব্যাট হাতেও চালিয়েছেন তান্ডব! শেষবেলায় ইফতিখার-করিমের দুর্দান্ত ফিনিশিংয়ে ৪ বল বাকি থাকতে বরিশাল নিশ্চিত করল ৬ উইকেটের জয়।

১৫৯ রানের লক্ষ্য তাড়ায় নেমে বল শুরু হওয়ার আগে বরিশালের দুই ওপেনার দেখল অবাক করা কান্ড। শেখ মেহেদীকে বল করতে আসতে দেখে চতুরঙ্গ ডি সিলভার বদলে এনামুল হক বিজয় স্ট্রাইকে যেতে চাচ্ছিলেন। কিন্তু আম্পায়ার সেটার অনুমতি দিতে রাজি হচ্ছিলেন না, এই নিয়ে কথা বলতে দৌড়ে মাঠে প্রবেশ করেন অধিনায়ক সাকিব আল হাসান।

এই ঘটনার পর খেলা শুরু হয়; কিন্তু ইনিংসের তৃতীয় বলেই রাকিবুল হাসান বিদায় করেন বরিশালের ওপেনার চতুরঙ্গ ডি সিলভাকে (১)। সিকান্দার রাজা নিজের প্রথম বলেই লেগ বিফোরের ফাঁদে ফেলেন ১৫ রানে থাকা এনামুল হক বিজয়কে। এডিআরএসের সাহায্য নিয়েও বাঁচতে পারেননি বিজয়। এ নিয়ে তৈরি হয় ফের বিতর্ক, বিজয় কিছু সময় দাঁড়িয়ে থেকে বাধ্য হয়ে মাঠ ছেড়ে আসেন।

উইকেটে এসেই প্রথম বলে রাজাকে বাউন্ডারি হাঁকান মিরাজ। তিনে নামা ইব্রাহিম জাদরান লড়াই চালাতে থাকেন দুর্দান্ত মেহেদী হাসান মিরাজকে নিয়ে। এই দুইয়ের ব্যাট থেকে বরিশালের স্কোরবোর্ডে যোগ হয় ৮৪ রান। ৫৮ বলের এই জুটি ভাঙে মিরাজের বিদায়ে। দলকে ১০২ রানে রেখে প্যাভিলিয়নে ফেরত যান ২৯ বলে ৪৩ রানের ইনিংস খেলা মিরাজ।

৪০ বলে ফিফটি হাঁকিয়ে ইব্রাহিম জাদরান (৫২) আউট হন পরের বলেই। রাজার দ্বিতীয় শিকারে পরিণত হন। এরপর আর কোনো বিপদ হতে দেননি ইফতিখার আহমেদ ও করিম জানাত। এই দুই বিদেশি মিলে ম্যাচ শেষ করে আসেন।

ইফতিখার আহমেদ ১৮ বলে ২৫ ও করিম জানাত ১৪ বলে ২১ রানের ক্যামিও ইনিংসে অপরাজিত থেকে মাঠ ছাড়েন।

এর আগে রংপুর রাইডার্সের বিপক্ষে বিপিএলের সপ্তম ম্যাচে টস করতে নামে বরিশালের অধিনায়ক সাকিব আল হাসান। ইনিংসের প্রথম বলেই সাকিবের স্পিন বিষ; গোল্ডেন ডাক হয়ে ফেরত যান মোহাম্মদ নাইম শেখ। তিনে নামা মেহেদী হাসান বিদায় নেন ৭ রান করতেই। দুই রানের বেশি পাননি সিকান্দার রাজা।

দলীয় ৪১ রানে ৩ উইকেট হারানোর পর শোয়েব মালিককে নিয়ে পাল্টা লড়াই চালান ওপেনার রনি তালুকদার। আগের ম্যাচে রংপুরের জয়ের নায়ক রনি এদিনও খেলতে থাকেন দারুণ সব স্ট্রোক্স। তবে বাঁধা হয়ে দাঁড়ালেন চতুরঙ্গ ডি সিলভা। থেমে যায় রনির ৪০ রানের ইনিংস। ফেরার আগে মাত্র ২৮ বলে ৫ চার ও ১ ছয়ে সাজান এই ইনিংস।

রংপুরের অধিনায়ক নুরুল হাসান সোহানকে ব্যক্তিগত ১২ রানে ফিরিয়ে মেহেদী হাসান মিরাজ দখলে নেন নিজের প্রথম উইকেট। এরপর ১০ বলে পাঁচ করেন বেনি হাওয়েল। মিরাজের দ্বিতীয় শিকার ১ রান করা আজমতউল্লাহ ওমরজাই।

তবে উইকেটের আরেক প্রান্তে দাঁড়িয়ে শোয়েব মালিক টেনে নিয়ে যান রংপুরকে। ইনিংসের শেষ ওভারের দ্বিতীয় বলে কামরুল ইসলামকে ছক্কা হাঁকিয়ে ফিফটি পূর্ণ করেন মালিক। শেষ বলে রবিউলের ছক্কায় রংপুর পায় ১৫৮ রানের সংগ্রহ; ৭ উইকেটে।

দাপট দেখিয়ে ৩৫ বলে পঞ্চাশ করা শোয়েব মালিক শেষপর্যন্ত অপরাজিত থাকেন ৫৪ রানে। ৫ চার ও ২ ছয়ের মারে মালিক রংপুরকে এনে দিয়েছেন লড়াকু সংগ্রহ।

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

কি কারণে সাকিব দৌড়ে আসেন মাঠে

Read Next

সাকিব বাইরে থেকে চিল্লাচ্ছিলেন বলেই সোহান বোলার চেঞ্জ করেন

Total
24
Share