ম্যাচসেরা হলে ব্যাক টু ব্যাক ম্যাচসেরা হন হৃদয়

তৌহিদ হৃদয়
Vinkmag ad

হ্যাটট্রিক জয়ে রীতিমতো উড়ছে সিলেট স্ট্রাইকার্স। ঝড়ো ফিফটিতে আবারও ম্যাচ সেরা তৌহিদ হৃদয়। ম্যাচসেরা হলে ব্যাক টু ব্যাক ম্যাচসেরা হন; এই সুখস্মৃতি তৌহিদ হৃদয়ের সঙ্গী সেই অনূর্ধ্ব-১৯ দলের হয়ে খেলা থেকেই। তবে দুই ফিফটির পরও হৃদয়ের আছে কিছু আফসোস।

আজ কুমিল্লার বোলিং লাইন-আপের বিরুদ্ধে দুর্দান্ত ভাবে হেসেছে তৌহিদ হৃদয়ের ব্যাট। আগের ম্যাচে যেখানে শেষ করেছিলেন আজ যেন সেখান থেকেই শুরু করেন হৃদয়। প্রথম বলেই হাঁকান ছয়, এক বল ডট দিয়ে মারেন বাউন্ডারি। স্পিনারদের পেয়ে চার-ছয়ের বন্যা বইয়ে দেন এই তরুণ ব্যাটার।

৩৫ বলে ফিফটি হাঁকিয়ে আরও মারমুখী রূপ নেন হৃদয়। কিন্তু বেশিক্ষণ মিরপুরে টেকেনি এই ঝড়। বড় শট খেলতে গিয়ে স্টাম্পড হন; বিদায় নেওয়ার আগে ৩৭ বলে করেন ৫৬ রান। আগের ম্যাচে তার ব্যাট থেকে আসে ৩৪ বলে ৫৫ রান।

টানা দুই ম্যাচে দলের জয়ের নায়ক তৌহিদ হৃদয় সংবাদ সম্মেলনে এসে জানালেন উচ্ছ্বাসের কথা, ‘অবশ্যই, প্রত্যেকটা খেলোয়াড়ের জন্য এটা ভালো অনুভূতির ব্যাপার। আজকে একটা আত্মবিশ্বাস ছিল যদি ভালো শুরু করতে পারি তাহলে ইন শা আল্লাহ।’

ম্যাচসেরা হলে ব্যাক টু ব্যাক ম্যাচসেরা হন হৃদয়। সেই অনূর্ধ্ব-১৯ দলে খেলার সময় থেকেই এই সুখস্মৃতি তৌহিদ হৃদয়ের সঙ্গী। হাসিমুখে বলেন,

‘আমি অনূর্ধ্ব-১৯ দল থেকেই যখনই ম্যাচ সেরা হয়েছি, ব্যাক টু ব্যাক ম্যান অব দ্য ম্যাচ হয়েছি। আজকেও আত্মবিশ্বাস ছিল আমার যদি ভালো শুরু করতে পারি।’

দুই ম্যাচেই ফিফটি হাঁকিয়ে ইনিংস বড় করতে পারেননি হৃদয়। মাঝপথে ইনিংস ফেলে আসা নিয়ে ম্যাচ সেরা হৃদয়ের ভাষ্য,

‘আজকের ম্যাচটাতে আফসোস আছে। কিন্তু আগের ম্যাচটা নিয়ে বেশি আফসোস ছিল। কারণ যদি আরেকটু খেলতে তাহলে সেঞ্চুরি হওয়ার সুযোগ ছিল। আজকে চেষ্টা করেছিলাম একটা দুটা ছয় মারার। কারণ রান রেটের একটা ব্যাপার আছে তাই চেষ্টা করেছিলাম ঝুঁকি নেওয়ার।’

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

দুই’টা ছয় বেশি না মারতে পারার আক্ষেপ জাকের আলির কণ্ঠে

Read Next

দুই পাকিস্তানির সেঞ্চুরির দিন চট্টগ্রামের জয়

Total
0
Share