অজুহাত পাশ কাটিয়ে মিরাজকে প্রশংসায় ভাসালেন রাহুল

অজুহাত পাশ কাটিয়ে মিরাজকে প্রশংসায় ভাসালেন রাহুল
Vinkmag ad

ভারতের বিপক্ষে প্রথম ওয়ানডেতে অবিশ্বাস্য এক জয় পেয়েছে বাংলাদেশ। মেহেদী হাসান মিরাজের দুর্দান্ত ব্যাটিংয়ে ভারতের জয়টা যেন ছোঁ মেরে নিয়ে নিল টাইগাররা। তবে মিরাজকে ফেরানোর সুযোগ পেয়েছিল সফরকারীরা, ক্যাচ মিস করেছেন লোকেশ রাহুল। ওই ক্যাচ মিস হতে পারতো ভারতের অজুহাতের কারণ, তবে সেদিকে না গিয়ে মিরাজকেই প্রশংসায় ভাসিয়েছে তারা।

১৮৭ রানের লক্ষ্য তাড়ায় নেমে জয়ের পথেই ছিল বাংলাদেশ। তবে ছন্দ পতনে ৮ রানে ৫ উইকেট হারিয়ে ৯ উইকেটে ১৩৬ রানে পরিণত হয় টাইগাররা। অমন পরিস্থিতি থেকে জয়টা অনেক দূরের পথ, প্রায় অসম্ভবই।

তবে এমন কঠিন কাজটাই কিনা করে বসলেন মিরাজ। মুস্তাফিজকে নিয়ে ৫১ রানের অবিচ্ছেদ্য শেষ উইকেট জুটি। মুস্তাফিজের যোগ্য সঙ্গ পেয়ে একা হাতেই ম্যাচটা বের করে নিলেন এই অলরাউন্ডার।

নবম ব্যাটার হিসেবে হাসান মাহমুদ আউট হলে জয়ের জন্য প্রয়োজন ছিল ৫১ রান। মিরাজ নিজে তখন মাত্র ১ রানে ব্যাট করছিলেন। অর্থাৎ অসম্ভবকে সম্ভব করতে যা করার তাকেই করতে হত। এই অসাধ্য সাধন করেছেন মিরাজ।

যদিও শার্দুল ঠাকুরের করা ৪৩তম ওভারে জীবন পেয়েছেন (ব্যক্তিগত ১৫ রানে, জয়ের জন্য প্রয়োজন ছিল ৩২)। ফাইন লেগে দৌড়ে গিয়ে যে ক্যাচ নেওয়াটা কঠিনই ছিল উইকেট রক্ষক লোকেশ রাহুলের জন্য। ওই ক্যাচ লুফে নিলে ভারত ম্যাচ জিতত ৩১ রানে। অথচ ক্যাচ মিসের পর ১ উইকেটের অবিশ্বাস্য জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে মিরাজ-মুস্তাফিজ।

নিজেদের হারে এই ক্যাচকে খুব বেশি গুরুত্ব না দিয়ে মিরাজকেই প্রশংসায় ভাসালেন প্রতিপক্ষের সর্বোচ্চ স্কোরার। ৭৩ রান করা লোকেশ রাহুল ক্যাচ মিস, দলের পরাজয় এসবকে সহজাত ব্যাপার বলে বার্তা দিয়ে গেলেন।

তার ভাষায়, ‘এটাই ক্রিকেট। অপ্রত্যাশিত কিছুর প্রত্যাশা কখনও কখনও করতেই হয়। ক্রিকেট যতদিন ধরে খেলা হচ্ছে, এমনটি আমরা বারবার হতে দেখছি এবং এমন ফলাফল নিয়মিতই হচ্ছে। শেষ বল করার আগে বা শেষ রান নেওয়ার আগে কখনও ম্যাচ জেতার নিশ্চয়তা পাওয়া যায় না।’

‘তারা সত্যিই দারুণ লড়াই করেছে এবং শেষ পর্যন্ত লড়াই করেছে। মেহেদীর ইনিংসটি… ক্যাচ মিস ছিল, তবে সে দারুণ ব্যাটিং করেছে। আমি যেমনটা বললাম, তারা শেষ পর্যন্ত লড়াই করেছে এবং ম্যাচ জিতেই থেমেছে।’

‘মেহেদী অবিশ্বাস্য ইনিংস খেলেছে। সে কিছু সুযোগ নিয়েছে, কিছু বড় ঝুঁকি নিয়েছে। বড় শট খেলতে দ্বিধা করেনি এবং বাউন্ডারি আদায় করেছে। যখন ৩০-৩৫ রান বাকি থাকে, তখন এক-দুইটি বড় শটই প্রতিপক্ষকে চাপে ফেলে দিতে পারে। সে সেটা সত্যিই ভালোভাবে করতে পেরেছে।’

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

‘মিরাজের ইনিংস নিয়ে যে কি বলব খুঁজে পাচ্ছি না’

Read Next

আর্জেন্টিনার গণমাধ্যমে বাংলাদেশের জয়ের খবর

Total
1
Share