কোন বল না খেলেই জয় রংপুরের, মুশফিকদের হারালো ঢাকা মেট্রো

কোন বল না খেলেই জয় রংপুরের, মুশফিকদের হারালো ঢাকা মেট্রো
Vinkmag ad

২৪তম জাতীয় ক্রিকেট লিগের (এনসিএল) পঞ্চম রাউন্ডের দুই ম্যাচের ফল এসেছে তৃতীয় দিনেই। আজ চতুর্থ দিনে ফল আসলো বাকি দুই ম্যাচেও। যেখানে কোনোমতে ইনিংস হার এড়িয়ে রংপুরের বিপক্ষে ১০ উইকেটের পরাজয় বরণ করলো চট্টগ্রাম।

আরেক ম্যাচে বোলারদের লড়াইয়ের পরও জিততে পারেনি মুশফিকুর রহিমের রাজশাহী। মোহাম্মদ শরিফুল্লাহর অলরাউন্ড নৈপুণ্য দেখানো ম্যাচে ঢাকা মেট্রোর জয় ২ উইকেটে।

চট্টগ্রাম-রংপুর (বিকেএসপি- ৪ নম্বর)

দ্বিতীয় ইনিংসে ৪ উইকেটে ২২২ রান তুলে তৃতীয় দিন শেষ করেছিল চট্টগ্রাম। ইনিংস হার এড়াতে তখনো প্রয়োজন ৪১ রান, হাতে ৬ উইকেট। শূন্য রানে হাসান মুরাদ ও ৩ রানে অপরাজিত ছিলেন ইরফান শুক্কুর।

কিন্তু আজ চতুর্থ ও শেষদিনে চট্টগ্রাম ইনিংস হার এড়াতে পেরেছে ঠিকই। তবে ১ রানের বেশি লক্ষ্য ছুঁড়ে দিতে পারেনি রংপুরের জন্য।

ইরফান শুক্কুর আজ কোনো রানই যোগ করতে পারেনি, মুরাদ থামেন ৬ রানে। এরপর মোহাম্মদ সাইফউদ্দিনের ১৫ রানে কোনোরকম ২৬৩ রান স্কোরবোর্ডে। আর তাতেই এড়ানো গেছে ইনিংস হার। ৬০ রানে ৪ উইকেট রংপুর পেসার মুশফিক হাসানের।

১ রানের লক্ষ্যে নেমে কোনো বল খেলা ছাড়াই জিতে যায় রংপুর। কারণ চট্টগ্রাম পেসার মেহেদী হাসান প্রথম ডেলিভারিতেই নো বল করেন।

এর আগে প্রথম ইনিংসে চট্টগ্রাম অলআউট ১০০ রানে। নাইম ইসলামের অপরাজিত ১৩১ রানে ৭ উইকেটে ৩৬৩ রান তুলে ইনিংস ঘোষণা করে রংপুর। ২৬৩ রানে পিছিয়ে থেকে দ্বিতীয় ইনিংস শুরু করা চট্টগ্রাম পিনাক ঘোষ ও সৈকত আলির ১৭৪ রানের উদ্বোধনী জুটির পরেও থামে ঐ ২৬৩ রানেই। পিনাক ১০৩ ও সৈকত আলি করেন ৭৮ রান।

১০ উইকেটের এই জয়ে পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে রংপুর, ৫ ম্যাচে ৩ জয়, ১ ড্রয়ে তাদের পয়েন্ট ২৮। অন্যদিকে মাত্র ৪ পয়েন্ট নিয়ে তলানিতে থাকা চট্টগ্রামে টায়ার-২ এ অবনতি অনেকটাই নিশ্চিত।

রাজশাহী-ঢাকা মেট্রো (শেখ কামাল আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়াম, কক্সবাজার)

দ্বিতীয় ইনিংসে ৭ উইকেটে ২৫৯ রান তুলে তৃতীয় দিন শেষ করেছিল রাজশাহী। ২০ রানে অপরাজিত ছিলেন সানজামুল ইসলাম। ততক্ষণে তাদের লিড ১৩৮।

আজ লেজের ব্যাটারদের নিয়ে দলীয় স্কোরবোর্ডে আরও ৩৮ রান যোগ করেন সানজামুল। যেখানে শেষ ব্যাটার হয়ে এই বাঁহাতি আউট হন ১১০ বলে ৪৮ রান করে। ২৯৭ রানে অলআউট হয়ে লিড ১৭৬। সেঞ্চুরি হাঁকানো শরিফুল্লাহ বল হাতেও নেন ৪ উইকেট।

১৭৭ রানের লক্ষ্য ব্যাট করা ঢাকা মেট্রো ছোট ছোট কয়েকটি ইনিংসে ভর করে পায় ২ উইকেটের জয়। ৮ উইকেটে ১৮০ রান করার পথে তাদের হয়ে সর্বোচ্চ ৫১ বলে ৫১ আইচ মোল্লার। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ৩৮ আসে নাইম শেখের ব্যাটে।

রাজশাহীর হয়ে সর্বোচ্চ ৪ উইকেট নাহিদ রানার। ৩ উইকেট নেন সানজামুল ইসলাম।

রাজশাহী প্রথম ইনিংসে থামে ২৫২ রানে। যেখানে সেঞ্চুরি হাঁকান (১০১) বাঁহাতি ব্যাটার তানজিদ হাসান তামিম। জবাবে নাইম শেখ (১১২) ও মোহাম্মদ শরিফুল্লাহর (১০০) জোড়া সেঞ্চুরিতে ঢাকা মেট্রো প্রথম ইনিংসে তোলে ৩৭৩ রান।

১২১ রানে পিছিয়ে থাকা রাজশাহী দ্বিতীয় ইনিংসে ২৯৭ করার পথে বড় অবদান নার্ভাস নাইনটিজে কাটা পড়া মুশফিকুর রহিমের। ৯৭ রান করে সেঞ্চুরি মিস করেন মিস্টার ডিপেন্ডেবল। শেষদিকে সানজামুলের ৪৮ ছাড়াও ওপেনার জহরুল ইসলাম ৩৪ সাব্বির রহমান ৪২ ও প্রীতম কুমার করেন ৩১ রান।

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

ভারতকে উড়িয়ে দেবার দিনে বাটলার-হেলস জুটিতে যে রেকর্ড

Read Next

যে তালিকায় সবার নিচে ভারত, চারে বাংলাদেশ

Total
1
Share