বাংলাদেশের সেরা টুর্নামেন্টকে নতুন শুরু বলছেন শ্রীরাম

শ্রীরামকে আরও বেশি সময়ের জন্য চান সাকিব
Vinkmag ad

২০০৭ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের প্রথম আসরে মুল পর্বে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে জয়। এরপর ১৫ বছরের দীর্ঘ অপেক্ষা, মূল পর্বে কোনো ম্যাচ জেতেনি বাংলাদেশ। এবারের বিশ্বকাপে সেই আক্ষেপ ঘোচানো গেছে, ইতোমধ্যে এসেছে দুই জয়। ফল বিবেচনায় টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে বাংলাদেশের সেরা সাফল্য। জিম্বাবুয়ে ও নেদারল্যান্ডসের বিপক্ষে জয়ের পাশাপাশি ভারতের বিপক্ষে লড়াই করে শেষ মুহূর্তে হার। টেকনিক্যাল কনসালটেন্ট শ্রীধরন শ্রীরাম বলছেন এখান থেকেই হতে পারে নতুন শুরু।

আগামীকাল (৬ নভেম্বর) অ্যাডিলেডে সুপার টুয়েলভে নিজেদের শেষ ম্যাচে মুখোমুখি হচ্ছে বাংলাদেশ-পাকিস্তান। কাগজে কলমে সেমিফাইনালে যাওয়ার যে সমীকরণ এখনো টিকে আছে বাংলাদেশের জন্য তাতে জয়ের বিকল্প নেই। পাকিস্তানকে হারালেও তাকিয়ে থাকতে হবে অন্য ম্যাচের কঠিন কিছু হিসাব নিকাশের দিকে।

সেমিফাইনাল নিয়ে না ভেবে ম্যাচটা জয়েই মূল নজর বাংলাদেশের। আজ সংবাদ সম্মেলনে বাংলাদেশের প্রতিনিধি হয়ে আসা টেকনিক্যাল কনসালটেন্ট শ্রীরাম বলছেন এখনো পর্যন্ত টুর্নামেন্টে যে সাফল্য তা নিয়ে গর্ব করা উচিৎ।

তার ভাষ্য, ‘এটাই টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে বাংলাদেশের সেরা টুর্নামেন্ট। বাংলাদেশ ক্রিকেটের ইতিহাসে কখনো সুপার টুয়েলভে দুই ম্যাচ জেতেনি। এবার সেটা হয়েছে। আমার মনে হয় ছেলেদের এটা নিয়ে গর্ব করা উচিত।’

টি-টোয়েন্টিতে হতাশাজনক পারফরম্যান্স বাংলাদেশের। টানা ব্যর্থ টাইগাররা বিশ্বকাপে আসে আগের ২৫ ম্যাচে মাত্র ৫ জয় নিয়ে। এই ৫ জয় এসেছে আবার পাপুয়া নিউগিনি, আফগানিস্তান, জিম্বাবুয়ে ও সংযুক্ত আরম আমিরাতের বিপক্ষে। এমন দলটারই মানসিকতায় পরিবর্তন দেখা যাচ্ছে, হারলেও সাম্প্রতিক ম্যাচগুলোতে ছাপ স্পষ্ট।

শ্রীরামের মতে এটাই নতুন শুরু, ‘আমার মনে হয় এটা নতুন শুরু। আমি জানি না আগে কী হয়েছে, সেখানে ছিলামও না। নেদারল্যান্ডস ও জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে আমরা দুইটা ক্লোজ ম্যাচ জিতেছি। ভারতের বিপক্ষে ক্লোজ ম্যাচ হেরেছি, কিন্তু এটা হয়ই। আমার মনে হয় এটাতে আমি নতুন শুরু হিসেবে দেখি। অতীত নিয়ে থাকি না, এটাকে নতুন শুরু হিসেবে দেখি। অতীতে আমি ছিলাম না, তাই মন্তব্য করতে পারি না।’

অস্ট্রেলিয়ার মতো কন্ডিশন বুঝিয়ে দেয় টি-টোয়েন্টিতে আলাদা কোনো ফরম্যাটে খেলতে হয় না। এমনটাই মনে করেন টাইগারদের টেকনিক্যাল কনসালটেন্ট, উদাহরণ হিসেবে তিনি ওয়েস্ট ইন্ডিজকে তুলে ধরেন।

তার মতে, ‘আমার মনে হয় অস্ট্রেলিয়ায় ওই ধরনের অ্যাপ্রোচ দরকার নেই। ওয়েস্ট ইন্ডিজের মতো দল যাদের পাওয়ার আছে, সুপার টুয়েলভেই উঠতে পারেনি। অস্ট্রেলিয়ায় আপনার অ্যাপ্রোচ পুরো বিশ্বের সব জায়গা থেকে আলাদা হতে হবে।’

‘এটার সঙ্গে মানিয়ে নিয়ে শিখতে হবে। আমার মনে হয় না টি-টোয়েন্টি খেলার আলাদা কোন ফরম্যাট আছে। উইকেট, কন্ডিশন সবকিছু বুঝিয়ে দেয়। আমরা সবকিছুর জন্য প্রস্তুত আছি। কোন একটা দিক নেই টি-টোয়েন্টিতে।’

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

চেনা-জানা পাকিস্তানকে হারানোর ব্যাপারে আত্মবিশ্বাসী বাংলাদেশ

Read Next

আইসিসির নির্বাচনে লড়তে আগ্রহী জিম্বাবুয়ে ক্রিকেটের চেয়ারম্যান

Total
1
Share