ফিলিপসের সেঞ্চুরির পর বোল্টের ৪, উড়ে গেল শ্রীলঙ্কা

featured photo updated v 24
Vinkmag ad

বিপর্যয়ের মুখে দাঁড়িয়ে গ্লেন ফিলিপসের অনবদ্য সেঞ্চুরি! নিউজিল্যান্ড পায় ১৬৭ রানের চ্যালেঞ্জিং সংগ্রহ। লক্ষ্য তাড়ায় নেমে বোল্ট-সাউদিদের তোপে পড়ে শ্রীলঙ্কা গুটিয়ে যায় ১০২ রান করতেই। আগুন বোলিংয়ে বোল্টের ঝুলিতে ৪ উইকেট। দুই ব্যাটসম্যান ছাড়া কেউ পৌঁছাতে পারেনি দুই অংকের ঘরে। ৬৫ রানের বড় জয়ে ‘এ’ গ্রুপের শীর্ষস্থান আরও শক্ত করল কেন উইলিয়ামসনের দল।

সিডনি ক্রিকেট গ্রাউন্ডে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে টস জিতে আগে ব্যাটিংয়ে নেমে নিউজিল্যান্ডের টপ অর্ডার রীতিমতো ধ্বংসস্তূপে পরিণত। ফর্মের তুঙ্গে থাকা দুই ওপেনার ফিন অ্যালেন ও ডেভন কনওয়ে পাননি এদিন ১ রানের বেশি। অধিনায়ক কেন উইলিয়ামসন বাড়িয়েছেন বিপদ। ১৩ বলে ৮ করে তিনি হাটেন প্যাভিলিয়নে।

১৫ রান করতেই তিন উইকেট হারিয়ে ফেলা নিউজিল্যান্ডকে এরপর পথ দেখান গ্লেন ফিলিপস ও ড্যারিল মিচেল। এই দুইয়ের গড়া ৮৪ রানের জুটি ভাঙে ২২ রান করা মিচেলের বিদায়ে। এরমাঝেই স্ট্রোক্সের পসরা সাজিয়ে ফিলিপস তুলে নেন ফিফটি। দলকে বিপদ থেকে টেনে তুলে ফিলিপস হয়ে যান আরও ভয়ংকর।

৩৯ বলে ফিফটি হাঁকানো ফিলিপস সেঞ্চুরি হাঁকাতে পরের ফিফটিটা করেন মাত্র ২২ বলে। তবে এদিন ব্যক্তিগত ১২ রানেই ফিলিপসকে ফেরাতে পারতো শ্রীলঙ্কা। হাসারাঙ্গার বলে যদি নিসাঙ্কা সহজ ক্যাচটা না ছাড়তেন।

শেষপর্যন্ত গ্লেন ফিলিপস আউট হন ১৯.৪ ওভারে, ব্যক্তিগত ১০৪ রানে। ১০টি চার ও ৪ ছক্কায় সাজানো তার এই অনবদ্য ইনিংস। আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে আজকেরটি ফিলিপসের দ্বিতীয় সেঞ্চুরি, আর বিশ্বকাপে প্রথম। আর তাতেই নির্ধারিত ২০ ওভার শেষে ৭ উইকেট হারিয়ে ১৬৭ রান সংগ্রহ করে নিউজিল্যান্ড।

লক্ষ্য তাড়ায় নেমে স্কোরবোর্ডে কোনো রান আসার আগেই উইকেট হারান পাথুম নিসাঙ্কা। একপর্যায়ে দলীয় ৮ রানে নেই ৪ উইকেট। নিসাঙ্কার মতো ডাক হয়ে ফেরেন ধনঞ্জয়া ডি সিলভা। যথাক্রমে ৪ করে পেয়েছেন কুশল মেন্ডিস ও চারিথ আসালাঙ্কা।

টিম সাউদি নিজের প্রথম দুই ওভারের ১ মেডেনসহ কেবল ১ রান খরচায় তুলে নেন এক উইকেট। তবে লঙ্কান টপ অর্ডার গুড়িয়ে দিতে বড় কাজটা করেন ট্রেন্ট বোল্ট। বাকি তিন উইকেট তার দখলে। নিজের প্রথম ওভারেই বোল্টের শিকার মেন্ডিস ও সিলভা। এরপরের ওভারে বিদায় করেন আসালাঙ্কাকে।

মিচেল স্যান্টনার নিজের প্রথম বলেই ফিরিয়ে দেন চামিকা করুণারত্নেকে (৩)। ২৪ রানের মাথায় পঞ্চম উইকেট হারায় শ্রীলঙ্কা। তবে সবার ফেরার মিছিলের সামনে দাঁড়িয়ে বিপরীত রূপ নেন ভানুকা রাজাপাকসে। চাপের মুখে কিউই বোলারদের করেন শাসন। তবে তার ইনিংসটা যায়নি অবশ্য বেশিদূর। ২২ বলে ৩৪ রানের ইনিংস খেলে হয়েছেন ফার্গুসনের শিকার।

ব্যাট হাতে ব্যর্থতার বৃত্তেই ঘুরপাক খাচ্ছেন ওয়ানিন্দু হাসারাঙ্গা। কেবল ৪ রান করতেই নিয়েছেন বিদায়। স্যান্টনারের দ্বিতীয় শিকার মাহেশ থিকশানা (০)। অধিনায়ক দাসুন শানাকার ব্যাট থেকে আসে সর্বোচ্চ ৩৫ রানের ইনিংস। শানাকাকে ফিরিয়ে বোল্ট ঝুলিতে নেন নিজের ৪র্থ উইকেট। শেষপর্যন্ত ১০২ রানে থামে লঙ্কানদের ইনিংস। নিউজিল্যান্ড পেয়েছে ৬৫ রানের বড় জয়।

কিউইদের হয়ে বল হাতে ট্রেন্ট বোল্ট মাত্র ১৩ রান খরচায় দখলে নেন ৪ উইকেট। এছাড়া মিচেল স্যান্টনার ও ইশ সোধির শিকার ২টি করে উইকেট।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

নিউজিল্যান্ড: ১৬৭/৭ (২০ ওভার) অ্যালেন ১, কনওয়ে ১, উইলিয়ামসন ৮, ফিলিপস ১০৪, মিচেল ২২, নিশাম ৫, স্যান্টনার ১১*, সোধি ১, সাউদি ৪*; রাজিথা ২/২৩, ধনঞ্জয়া ১/১৪, থিকশান ১/৩৫, হাসারাঙ্গা ১/২২, কুমারা ১/৩৭

শ্রীলঙ্কা: ১০২/১০ (১৯.২ ওভার) নিসাঙ্কা ০, মেন্ডিস ৪, ধনঞ্জয়া ০, আসালাঙ্কা ৪, চামিকা ৩, ভানুকা ৩৪, শানাকা ৩৫, হাসারাঙ্গা ৪, থিকশানা ০, রাজিথা ৮*, লাহিরু ৪; সাউদি ১/১২, বোল্ট ৪/১৩, স্যান্টনার ২/২১, সোধি ২/২১, ফার্গুসন ১/৩৫

ফলাফল: নিউজিল্যান্ড ৬৫ রানে জয়ী

ম্যাচ সেরা: গ্লেন ফিলিপস (নিউজিল্যান্ড)।

৯৭ ডেস্ক

Read Previous

পাশার দান উল্টে দিয়ে সেমির স্বপ্ন জিম্বাবুয়ের

Read Next

কোচ ডেভ হাটনের যে মন্ত্রে বদলে গেছে জিম্বাবুয়ে

Total
1
Share