সাকিবকে দুর্ভাগা বলছেন শ্রীধরন শ্রীরাম

শান্তকে নিয়ে ভাবনা বদলাচ্ছে শ্রীরামের
Vinkmag ad

বিতর্ক তার পিছু ছাড়ে না, মাঠের বাইরে তিনি নানাভাবে সমালোচিত হন। তবে সেসব পেছনে ফেলে মাঠে ফিরলেই দেখা মেলে অন্য এক সাকিব আল হাসানের। ব্যাটে-বলে দলের সেরা পারফর্মার হয়েই আছেন দিনের পর দিন।

তবে চলতি টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে ব্যাটে-বলে এখনো জ্বলে উঠতে পারেননি সাকিব। ব্যাট হাতে দুই ম্যাচে রান যথাক্রমে ৯ বলে ৭ (নেদারল্যান্ডস) ও ৪ বলে ১ (দক্ষিণ আফ্রিকা)। টেকনিক্যাল কনসালটেন্ট শ্রীধরন শ্রীরাম অবশ্য বলছেন দুই ক্ষেত্রেই দুর্ভাগা টাইগার অলরাউন্ডার।

বল হাতে যদিও ভালো মন্দের মিশ্র পারফরম্যান্স বলতে হয়। নেদারল্যান্ডসের বিপক্ষে ৪ ওভারে ৩২ রান দিয়ে নেন ১ উইকেট, দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ৩ ওভারেই খরচ ৩৩, যদিও উইকেট ২ টি।

আগামীকাল (৩০ অক্টোবর) ব্রিজবেনে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে মাঠে নামবে বাংলাদেশ। এর আগে নেদারল্যান্ডসের বিপক্ষে ঘাম ঝরিয়ে পাওয়া জয়ের সাথে জুটেছে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে বড় হার।

নেদারল্যান্ডসের বিপক্ষে বাউন্ডারি লাইনে সাকিব ধরা পড়েন লেগ স্পিনার সারিজ আহমেদের বলে। যা অনায়েসেই ছক্কা হতে পারতো। আর প্রোটিয়াদের বিপক্ষে এনরিখ নরকিয়ার বলে এলবিডব্লিউ হয়ে রিভিউ নিতে নিতেও শেষ পর্যন্ত নেননি। টিভি রিপ্লেতে স্পষ্ট দেখা যায় বল আউট সাইড লেগ পিচড হয়েছে।

দলের অধিনায়ক, সেরা পারফর্মার জ্বলে উঠতে না পারা দলের জন্য ভাবনার কারণ কীনা? আজ সংবাদ সম্মেলনে শ্রীরামের কাছে রাখা হয় এমন প্রশ্ন।

জবাবে তিনি বলেন, ‘সে বিশ্বের এক নম্বর অলরাউন্ডার। সে নয় কি? নিউজিল্যান্ডে দারুণ একটা সিরিজ কাটিয়েছে। দুইটা দুর্দান্ত ইনিংস খেলেছে। কিন্তু এখানে প্রথম ম্যাচে যেটা হল লেগ সাইডে ছোট বাউন্ডারি, লেগ স্পিনারের বিপক্ষে যে শট খেলেছে তা ১০০ বারের মধ্যে ৯৯ বারই ছক্কা হত।’

‘কিন্তু সে দুর্ভাগা ছিল, ধরা পড়ে যায়। গত ম্যাচেও সে দুর্ভাগা ছিল, এলবিডব্লিউর বিপক্ষে রিভিউ নেয়নি অথচ বল আউটসাইড লেগ ছিল। সাকিবের মতো একজন গ্রেট ক্রিকেটার এভাবে দুইবার দুর্ভাগ্যজনকভাবে আউট হওয়া…’

উল্লেখ্য, নিউজিল্যান্ডে ত্রিদেশীয় সিরিজে দলের সাথে যোগ দিয়েছেন সবার শেষে। ফ্লাইট বিড়ম্বনায় প্রথম ম্যাচেতো মাঠেই নামতে পারেননি। তবে যে তিন ম্যাচ খেলেছেন তাতেই সাকিব নিজেকে তুলে ধরেছেন চেনা রূপে।

দল হেরেছে সব ম্যাচে কিন্তু ব্যাট হাতে সাকিবের দুই ফিফটি, রান তোলার ধরণে ছিল আগ্রাসন।নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ৪৪ বলে ৭০ ও পাকিস্তানের বিপক্ষে খেলেন ৪২ বলে ৬৮ রানের ইনিংস। অথচ দলের বাকি ক্রিকেটাররা পুরো সিরিজেই ছিলেন এলোমেলো। লিটন দাস ছাড়া আর কেউ পারেনি সাকিবকে যোগ্য সঙ্গ দিতে।

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

শ্রীরাম বলছেন, পথেই আছে বাংলাদেশ

Read Next

অস্ট্রেলিয়া যখন জিম্বাবুয়ে বধে বাংলাদেশের অনুপ্রেরণা

Total
13
Share