মুঘল সম্রাজ্যে ছায়া পাচ্ছে আরব আমিরাতের মেয়েরা

মুঘল সম্রাজ্যে ছায়া পাচ্ছে আরব আমিরাতের মেয়েরা
Vinkmag ad

ছায়া মুঘল! মাত্র দুই শব্দের নাম, অথচ অর্থের মধ্যেই আছে মহাত্ম। সংযুক্ত আরব আমিরাত নারী দলের বর্তমান অধিনায়ক নামের মতো ছায়া হয়ে আছেন দলটির। ৩৬ বছর ১০৪ দিন বয়সের এই নারী ঠিক নাবিকের মতো টেনে নিচ্ছেন, তরুণ ক্রিকেটারদের আগলে রাখছেন। ক্রিকেটের প্রতি তার নিবেদনের গল্পটাও আপনাকে মুগ্ধ করবে, নিজের ভালোবাসার জিনিসের প্রতি মায়া বাড়াতে বাধ্য করবে।

তার নেতৃত্বেই বাছাই পর্ব উতরে প্রথমবার নারী এশিয়া কাপ খেলতে এসেছে আরব আমিরাতের নারীরা। দলটা আরব আমিরাত হলেও বেশিরভাগ ক্রিকেটারই ভারত সহ উপমহাদেশের অন্যান্য দেশ থেকে আসা। ছায়া মুঘল নিজেও ভারতের জম্মু কাশ্মীর থেকে উঠে এসেছেন, নাটকীয়ভাবে দলটার অংশ হয়েছেন।

২০০৯ সালে ভারত ছেড়ে দুবাইতে একটি কিন্টার গার্ডেন স্কুলে শিক্ষক হিসেবে চাকরি শুরু করেন। তবে ক্রিকেটের মায়াটা ছাড়াতে পারেননি একটুও। আরব আমিরাত নারী ক্রিকেটের কথা শুনতেই ছুটে যান শারজাহতে কোচ মোহাম্মদ হায়দারের কাছে। দল তখন ওমান যাওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছে। মুঘলকে বলা হল দল দেশে ফিরলে যেন যোগাযোগ করে।

দেশে ফিরে মুঘলকে নিজেই ফোন দেন কোচ হায়দার, যোগ দিতে বলেন ট্রেনিং সেশনে। আর এভাবেই ২০১৫ সালে আরব আমিরাতের জার্সি গায়ে যাত্রা শুরু এই অলরাউন্ডারের। এশিয়া কাপে আজ শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে ৪৪ টি ট-টোয়েন্টি খেলার অভিজ্ঞতা হয়ে গেল।

স্কুলের চাকরিটা তিনি ছাড়েননি, বিকেল ৪ টা পর্যন্ত শিক্ষকতা করান। এরপর প্র্যাকটিস কিট, ব্যাগ নিয়ে সন্ধ্যা ৭ টায় নেমে পড়েন অনুশীলনে। সব শেষে বাসায় ফিরতে রাত ১১ টা। তবে জাতীয় দলের কোনো ক্যাম্প কিংবা সফর থাকলে স্কুল কর্তৃপক্ষ তাকে ছুটি দেন বিনা দ্বিধায়। যে কারণে তাদের প্রতি কৃতজ্ঞও ছায়া মুঘল।

No description available.

এই প্রথম ভারত, পাকিস্তান, বাংলাদেশ, শ্রীলঙ্কার মতো বড় দলগুলোর সাথে খেলার সুযোগ পাচ্ছেন। শ্রীলঙ্কাকে হারানোর মতো পরিস্থিতি তৈরি করেও ফেলে। কিন্তু বৃষ্টি আইনে হারতে হয়েছে ১১ রানে।

আগে ব্যাট করা লঙ্কানদের ১০৯ রানেই আটকে দেয় আরব আমিরাত। যেখানে বল হাতে ১৬ বছরের তরুণী মাহিকা গৌর ও ১৫ বছর বয়সী বৈষ্ণবি মহেশ দেখিয়েছেন ঝলক, নিয়েছেন সমান ৩ উইকেট করে। লক্ষ্য তাড়ায় নেমে ৪ ওভারে ১ উইকেটে ২০ রান তুলেও ফেলে আরব আমিরাতের নারীরা।

কিন্তু বৃষ্টি পরবর্তী নতুন লক্ষ্য ঠিক হয় ১১ ওভারে ৬৬। ছন্দ হারানো আরব আমিরাত আর পেরে উঠেনি। ৭ উইকেটে ৫৪ রানেই থামে।

ম্যাচ শেষে সংবাদ সম্মেলনে অধিনায়ক মুঘল ছায়া বলেন, ‘যখন আপনি এমন এলিট দলগুলোর সাথে খেলবেন তখন অনেকগুলো পরিকল্পনাই ভালোভাবে প্রয়োগ করতে হয়। বোলিং দিয়ে আমরা সেটা করতে পেরেছি। কিন্তু বৃষ্টি এসে আমাদের ব্যাটিং ফ্লো টা নষ্ট করে দিল। যদি পুরো ২০ ওভারের খেলা হত তবে ফলাফল ভিন্ন কিছুও হতে পারতো।’

‘বোলিংয়ে যেভাবে আমরা তাদের আটকে দিয়েছি তা দারুণ। মনে হচ্ছে একটা টোন সেট করতে পেরেছি। আশা করি টুর্নামেন্টের বাকি অংশেও সেটা ধরে রাখবো।’

সংবাদ সম্মেলনে আসার সময় মুঘলের সাথে এসেছে ১৬ বছর বয়সী বাঁহাতি পেসার মাহিকা গৌরও। সতীর্থ হয়ে মাঠে খেলছেন তবে দুজনের বয়সের পার্থক্য ২০ বছরের বেশি। এ যেন মা-মেয়ে একই সঙ্গে খেলার মতো। মুঘলের দলের বেশিরভাগ ক্রিকেটারই অনেকটা একই বয়সের। মাহিকার মতো ৩ উইকেট নেওয়া বৈষ্ণবির বয়স আরও এক বছর কম, ১৫!

এমন একটা দলকে নেতৃত্ব দেওয়া, ৩৬ পেরোনো মুঘলের জন্য নিশ্চিতভাবেই চ্যালেঞ্জিং। মানসিকতার পার্থক্য, পরিণতবোধের অভাব সহ নানা কিছুই হতে পারতো বাধা। তবে সেসব সামলে মায়ের মতো ছায়া হয়েই দলটাকে এক সূতোয় গেঁথেছেন জম্মু -কাশ্মীর কণ্যা মুঘল।

No description available.

তার চোখে মুখে আত্মবিশ্বাসের ঝিলিক। প্রথমবার এশিয়া কাপ খেলতে এসে ভারত,পাকিস্তান, বাংলাদেশের মতো প্রতিপক্ষ পেয়েও বলছেন আরব আমিরাতের নিজস্ব ক্রিকেট স্টাইল আছে। টুর্নামেন্ট শেষে সবার মুখে মুখে থাকবে বিষয়টি এমন বার্তাও দিয়ে গেলেন।

ভারতের বিপক্ষে তাদের পরবর্তী ম্যাচ নিয়ে বলতে গিয়ে জানান, ‘পরিকল্পনা হল কেবল স্বাভাবিক থাকা। আমাদের অনেক কিছু দেখতে হয়। আমরা অনেক ভিডিও আমরা হয়তো তাদের ব্যাপারে কিছু বিষয় দকেহতে পারবো এইতো…আমরা আসলে মুখিয়ে আছি। সংযুক্ত আরব আমিরাতের একটা নিজস্ব স্টাইল আছে খেলার, আমি বিশ্বাস করি টুর্নামেন্ট শেষে ব্যাপারটা সবাই বুঝতে পারবে।’

টুর্নামেন্টে কাদের ফেভারিট হিসেবে দেখছেন এমন প্রশ্নের জবাবে হাসির ছলে উত্তর দিলেন আজ থেকে আরব আমিরাত। কিন্তু পরের লাইনে সিরিয়াসভাবেই জানিয়েছেন যেকোনো দলকেই চমকে দেওয়ার সামর্থ্য তাদের আছে।

তার ভাষায়, ‘সম্ভবত সংযুক্ত আরব আমিরাত আজ থেকে (হাসি)। এটা এমন একটা খেলা যা আমরা ভালোবাসি। আমরা যেকোনো সময় যেকোনো দলকে চমকে দিতে পারি, কে জানে। আমরা এখানে আমাদের সেরা কাজটাই করতে এসেছি।’

ছোট দল, উন্নতির অনেক জায়গা আছে নিজেরাও জানেন। তবে যে প্রক্রিয়ায় দলটা এগোচ্ছে তাতে মুঘলদের সম্রাজ্য দ্রুতই ক্ষমতাধর হবে বললে খুব বাড়িয়ে বলা হবে না। অন্যান্য ম্যাচ দেখে নোট করে রাখা আর সেটা মাঠে কাজে লাগানোর চেষ্টা করাতেই বোধ করি ভালো কিছুর ক্ষুধা লক্ষণীয়।

এখনো পর্যন্ত ২৮ উইকেট ও ৩৮৮ রানের মালিক ছায়া মুঘল যেমনটা বলছিলেন, ‘আমাদের অনেক উন্নতির জায়গা রয়েছে। যেকোনো আন্তর্জাতিক দলের ক্ষেত্রেই প্রথম যেটা ফিটনেস। যদি আপনি নিবেদন দেখাতে চান তবে ফিটনেস অন্যতম। যেটা আপনাকে ব্যাটিং, বোলিং, ফিল্ডিং তিন বিভাগেই সাহায্য করবে।’

‘হ্যাঁ আমরা সবগুলো ম্যাচই ভালোভাবে দেখি (এবারের এশিয়া কাপ)। সবাই মিলে বসে একসাথেই দেখি। এসব ম্যাচ থেকে আমরা নোট করে রাখি কিছু জিনিস। আমাদের মনে হয় এসব নোট ম্যাচে সাহায্য করতে পারে।’

সিলেট থেকে নাজমুল হাসান তারেক

Read Previous

সুযোগ তৈরি করেও শ্রীলঙ্কাকে হারাতে পারেনি আরব-আমিরাত

Read Next

পাকিস্তানি বোলারদের সামনে মুখ থুবড়ে পড়লো বাংলাদেশ

Total
12
Share