গ্রেফতারি পরোয়ানার কারণে লামিচানে মানসিক ও শারীরিকভাবে বিপর্যস্ত

স্বন্দ্বীপ লামিচানে
Vinkmag ad

নেপাল পুলিশ সন্দ্বীপ লামিচানের নামে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করার দুই সপ্তাহ পর তিনি বিবৃতি দিয়েছেন যে, ধর্ষণের ‘মিথ্যা’ মামলাটি তাকে অসুস্থ করে তুলেছে, মানসিক এবং শারীরিকভাবে তিনি বিপর্যস্ত। স্বাস্থ্যের উন্নতি হলে তিনি নেপালে ফিরে যাওয়ার পরিকল্পনা করছেন।

ধর্ষণের অভিযোগে গত ৮ই সেপ্টেম্বর নেপালের সেরা ক্রিকেটার স্বন্দ্বীপ লামিচানের গ্রেপ্তারি পরোয়ানার খবর প্রকাশ করা হয়। সে সময় তিনি ক্যারিবিয়ান প্রিমিয়ার লিগে অংশ নিয়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজে ছিলেন। তারপর, তিনি বলেন যে সিপিএল ছেড়ে দেবেন এবং “ভিত্তিহীন অভিযোগের” মুখোমুখি হতে দেশে ফিরে আসবেন। তবে লামিচানে এখনও নেপালে পৌঁছাননি।

এক বিবৃতিতে লামিচানে জানান,

‘এই সমস্ত জিনিস একদিকে আমাকে মানসিকভাবে প্রভাবিত করেছে এবং অন্যদিকে, আমাকে অসুস্থতার মধ্য দিয়ে যেতে হয়েছিল। মানসিক চাপ এবং অসুস্থতার কারণে আমি নিজেকে বিচ্ছিন্ন করে রেখেছিলাম। আমি মানসিক ও শারীরিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছি এবং আমি ভারসাম্যহীন অবস্থায় পৌঁছেছি। ডাক্তারদের পরামর্শে আমি নিজেকে স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরিয়ে নিয়ে আসার চেষ্টা করছি। আমার স্বাস্থ্যের অবস্থা ক্রমশ উন্নতি হচ্ছে এবং আমার বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগের বিরুদ্ধে অ্যাকশন নিতে যত তাড়াতাড়ি সম্ভব নেপালে ফিরে যাওয়ার পরিকল্পনা করছি।’

লামিচানে বারবার বলছেন, তার বিরুদ্ধে অভিযোগগুলি ‘মিথ্যা’ এবং তার চরিত্রকে ‘গুরুতরভাবে ক্ষতি’ করেছে।

‘আমি মিথ্যা অভিযোগের বিরুদ্ধে আইনি লড়াই লড়ব। আমি যতদূর বুঝি, নেপালের সংবিধান অনুযায়ী, দোষী প্রমাণিত না হওয়া পর্যন্ত আমি নির্দোষ। আমি এটাও বুঝি যে সংবিধানে মর্যাদার সঙ্গে বাঁচার অধিকার দেওয়া আছে। গোপনীয়তার অধিকার, স্বাস্থ্যের অধিকার এবং আমার আইনজীবীর সাথে পরামর্শ করার অধিকার।’

২২ বছর বয়সী লামিচানে এখন পর্যন্ত নেপালের সবচেয়ে হাই-প্রোফাইল ক্রিকেটার এবং একমাত্র যিনি আইপিএল, বিগ ব্যাশ লিগ, পাকিস্তান সুপার লিগ, বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ, লঙ্কা প্রিমিয়ার লিগ, সিপিএল সহ সারা বিশ্বের টি-টোয়েন্টি লিগে খেলেছেন।

এছাড়াও তিনি বিশ্বের দ্বিতীয় দ্রুততম বোলার যিনি ৫০ ওডিআই উইকেট এবং তৃতীয় দ্রুততম ৫০ টি-টোয়েন্টি উইকেট লাভ করেন। তবে তিনি শেষ প্রতিযোগিতামূলক ক্রিকেট খেলেছিলেন কেনিয়ার বিরুদ্ধে টি-টোয়েন্টি সিরিজে, ২০২২ সালের আগস্টে।

চলমান সিপিএলে জ্যামাইকা তালাওয়াহসের হয়ে খেলার কথা থাকলেও তিনি মাঠে নামতে পারেননি। গ্রেপ্তারি পরোয়ানার কারণে লামিচানে নেপালের অধিনায়ক পদ হারান। সে সময় ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশন অফ নেপালের ভারপ্রাপ্ত সচিব প্রশান্ত বিক্রম মাল্লা বলেন, সম্পূর্ণ তদন্ত না হওয়া পর্যন্ত তার সাসপেনশন বহাল থাকবে।

৯৭ ডেস্ক

Read Previous

ড্রাফট শেষে যেমন হলো টি-টেনের ৮ দল

Read Next

দুবাইয়ে আজও টস হারল বাংলাদেশ

Total
0
Share