বোলাররা শিখতে পারছে না বলছেন ডোমিঙ্গো

ওয়েস্ট ইন্ডিজে স্পিন বোলিং কোচের ভূমিকায় ডোমিঙ্গো-সুজন
Vinkmag ad

জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে প্রথম দুই ওয়ানডে হেরে সিরিজ খোয়ালো বাংলাদেশ। দুই ম্যাচেই বড় লক্ষ্য তাড়া করে জয় ছিনিয়ে নেয় স্বাগতিকরা। অথচ শুরুতেই উইকেট তুলে নিয়েও মাঝে খেই হারিয়েছে তামিম ইকবালের দল। সিকান্দার রাজা, রেগিস চাকাভা, ইনোসেন্ট কায়াদের কাছে হতে হয়েছে অসহায়। কোচ রাসেল ডোমিঙ্গো বোলারদের শেখার জায়গায় উন্নতি দেখছে না।

হারারে স্পোর্টস ক্লাবে প্রথম ওয়ানডেতে ৩০৩ রানের পুঁজি পায় বাংলাদেশ। যা তাড়া করতে নেমে ৬৩ রানেই ৩ উইকেট হারায় জিম্বাবুয়ে। কিন্তু সেখান থেকে সিকান্দার রাজা ও ইনোসেন্ট কায়ার জোড়া সেঞ্চুরিতে পরাজিত দলে বাংলাদেশ। ১৯২ রানের জুটিতে দলকে সহজ জয় এনে দেন রাজা-কায়া।

গতকাল (৭ আগস্ট) দ্বিতীয় ওয়ানডেতেও আগে ব্যাট করে বাংলাদেশ। বড় সংগ্রহের আভাস দিয়েও দারুণ ব্যাটিং উইকেটে ২৯০ রানে সন্তুষ্ট থাকতে হয়। লক্ষ্য তাড়ায় ৪৯ রানেই জিম্বাবুয়ের নেই ৪ উইকেট। অথচ এমন কঠিন পরিস্থিতি থেকেও দারুণ এক জয় পেলো স্বাগতিকরা।

এবারও ত্রাণকর্তা রাজা, সঙ্গী হিসেবে পেলেন অধিনায়ক চাকাভাকে। এবার ২০১ রানের জুটি, সেঞ্চুরি এসেছে দুজনের ব্যাটে, ফলাফল ৫ উইকেটের জয়। বোলাররা শুরুর ছন্দ ধরে রাখতে না পারায় হতাশ ডোমিঙ্গো।

ম্যাচ শেষে সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, ‘এক ম্যাচে ৬০ (মূলত ৬৩) রানে ৩ উইকেটে আরেক ম্যাচে ৪০ (মূলত ৪৯) রানে ৪ উইকেট নেওয়ার পরেও ছেলেরা চাপটা ভালোভাবে তৈরি করতে পারেনি। অনেক আলগা বল দিয়েছে। ফিল্ডিং সেটাপে ভুল ছিল, কিছু ভুল বিকল্প বেছে নিয়েছে।’

‘ছেলেরা চেষ্টা করছে কিন্তু খুব দ্রুত শিখতে পারছে না। একই ভুল তারা বারবার করে গেছে। এটাই সবচেয়ে হতাশার জিনিস। তারা পরিশ্রম করছে কিন্তু ভুল থেকে শিখতে পারছে না, আর একই ভুল বারবার করছে। ভালো দল এবং ভালো খেলোয়াড় আপনাকে এর শাস্তি দিবেই।’

‘যে ভুলগুলো হয়েছে (ম্যাচে) তাতে কোচ ও টিম ম্যানেজমেন্টের অংশ হিসেবে এটা হতাশার। একই ভুলগুলো বারবার হচ্ছে। আমরা এ নিয়ে কথা বলেছি, অনুশীলনেও বাড়তি গুরুত্ব পাচ্ছে কিন্তু চাপের মুখে ছেলেরা একই ভুল করে বসছে।’

তবে নিজেদের ভুলকে এক পাশে রেখে জিম্বাবুয়েকে বিশেষ করে সিকান্দার রাজাকে প্রাপ্য সম্মান দিতে ভুলেননি টাইগার কোচ।

ডোমিঙ্গো বলেন, ‘কৃতিত্বটা জিম্বাবুয়েকে দিতে হবে, বিশেষ করে সিকান্দার রাজা। অসধারণ খেলেছে সে। চাপের মুখে যেভাবে ব্যাক টু ব্যাক সেঞ্চুরি হাঁকাল। আগেরদিন আমরা ২০ রান কম করেছি, আজকেও সম্ভবত ২০ রান কম ছিল। আমরা আরও কিছু রান করতে পারতাম। এখানে দুপুরের পরে এই রান ডিফেন্ড করা কঠিন। তবে পুরো কৃতিত্ব জিম্বাবুয়েকে দিতেই হবে, জয়টা তাদের প্রাপ্য ছিল।’

দুই ম্যাচে জিম্বাবুয়ে পেয়েছে ৪ সেঞ্চুরি, বাংলাদেশ একটিও না। দুই দলের পার্থক্য কোথায় তা জানাতে গিয়ে পুরষ্কার বিতরণীতে এই উদাহরণ দিয়েছেন অধিনায়ক তামিম ইকবাল। সংবাদ সম্মেলনে একই সুরে কথা বললেন ডোমিঙ্গোও। বাংলাদেশ কোনো বড় জুটি গড়তে না পারাকেও টেনে আনেন কোচ।

তার মতে, ‘আমরা কোনো সেঞ্চুরি পাচ্ছি না। অনেকগুলো ৪০, ৫০ হচ্ছে আবার আমাদের জুটিগুলো ৫০-৬০ এর মধ্যে আটকে যাচ্ছে। যেখানে তারা দুই ম্যাচে বড় দুইটা জুটি গড়েছে। আজকে ২০০ এর বেশি আগের ম্যাচে ১৮০ এর বেশি রানের জুটি গড়ে তারা, এটাই পার্থক্য, ব্যাট হাতে আমাদের ভুল।’

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

বিরল রেকর্ড গড়ে ভারতের বড় জয়

Read Next

জিম্বাবুয়েতে দারুণ শিক্ষা হয়েছে বলছেন ডোমিঙ্গো

Total
1
Share