ক্রিকইনফোর প্রতিবেদনকে ভিত্তিহীন দাবি পিসিবির

ক্রিকইনফোর প্রতিবেদনকে ভিত্তিহীন দাবি পিসিবির
Vinkmag ad

পাকিস্তানের ক্রিকেটারদের বিগ ব্যাশ লিগ, সংযুক্ত আরব আমিরাতের ইন্টারন্যাশনাল টি-টোয়েন্টি লিগ (আইএল টি-টোয়েন্টি), ক্রিকেট দক্ষিণ আফ্রিকা লিগ (সিএসএ লিগ) খেলতে দেওয়ার অনুমতি দিবে না পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড (পিসিবি), ইএসপিএন ক্রিকইনফোর এমন খবরকে ভিত্তিহীন ও অসত্য দাবি করছে পিসিবি।

কোনকিছু যাচাই না করে ইএসপিএন ক্রিকইনফো এমন খবর প্রচার করেছে বলে অভিযোগ পিসিবির। ২ আগস্ট তাদেরকে জানানো হয়েছিল এমন খবর যেন তারা মুছে দেয়। একইসাথে ইএসপিএন পিসিবির কাছে সঠিক ব্যাখ্যা জানতে চায়।

পিসিবি এরপর ক্রিকইনফোর সাথে যোগাযোগ করে কথাগুলোর সত্যতা তুলে ধরে। যদিও ক্রিকইনফো তাদের পূর্ববর্তী নিউজের তারিখ ও গল্পের পরবর্তী আপডেট দিতে পারেনি। পিসিবি সেই গল্পের কমেন্টে তাদেরকে বুঝিয়ে দেয়।

১. বিবিএল ড্রাফটের জন্য খেলোয়াড়দের প্রথম তালিকা পিসিবি পায় ১৬ জুলাই। আলোচনার পর পিসিবি খেলোয়াড়দের এজেন্টদেরকে জানায় যে তারা এনওসি দিবে খেলোয়াড়দের ওয়ার্কলোড এবং স্থানীয় ও আন্তর্জাতিক টুর্নামেন্টের উপর ভিত্তি করে।

২. ২ আগস্ট পিসিবি ২য় তালিকা পায়। সেটি নিয়ে আলোচনা চলছে এবং পরবর্তীতে এ ব্যাপারে সাড়া দিবে তারা।

৩. আইএল টি-টোয়েন্টির জন্য দুইজন কেন্দ্রীয় তালিকাভূক্ত খেলোয়াড়দের অনুরোধ পায় পিসিবি। তবে নিউজিল্যান্ড ও ওয়েস্ট ইন্ডিজে আন্তর্জাতিক সিরিজের জন্য সে দুইজন খেলোয়াড়ের এনওসি পাওয়া প্রশ্নবিদ্ধ হয়ে দাঁড়ায়।

৪. ৩ নম্বর পয়েন্টের ভিত্তিতে পিসিবি খেলোয়াড়দের এনওসি দেওয়ার ক্ষেত্রে এখনও সিদ্ধান্ত দেয়নি। বিবিএল ও আইএল টি-টোয়েন্টি ড্রাফটের জন্য খেলোয়াড়দের ছেড়ে দেওয়ার কথা বলা হচ্ছে। এনওসি পাওয়ার ২য় ধাপ চলছে এখন।

৫. সিএসএ ক্রিকেট লিগের জন্য পিসিবি অনুরোধ পেয়েছে। সেখানেও ইএসপিএন ভিত্তিহীন কথা তুলে ধরেছে।

৬. পিসিবির এনওসি গাইডলাইনে খেলোয়াড়দের বছরে সর্বোচ্চ ৩ বার এনওসি দেওয়ার অনুমতি আছে। সেটি পিএসএল ব্যতিত। তবে ইএসপিএন উল্লেখ করেছে পিএসএল সহ। এনওসি দেওয়ার ক্ষেত্রে পিসিবি সবসময় স্বাধীনতা দিয়ে আসছে ক্রিকেটারদের। আন্তর্জাতিক সিরিজ ও স্থানীয় প্রতিযোগিতাকে আগে গুরুত্ব দেয় পিসিবি।

৭. চুক্তিতে সই করার আগে খেলোয়াড়রা নাকি বোর্ডের কাছে চুক্তির কাগজপত্রের কপির অনুরোধ করেছিল, যাতে করে ওয়াকিবহাল থাকতে পারে, ক্রিকইনফোর এমন তথ্যকেও গুজব বলছে পিসিবি, জানিয়েছে ক্রিকেটাররা এমন কোন অনুরোধই করেননি তাদের কাছে।

৮. ৩০ জুন ২০২২-২৩ মৌসুমের জন্য কেন্দ্রীয় চুক্তি উপস্থাপন করে পিসিবি, শ্রীলঙ্কা সিরিজের ৫ দিন আগে। দলের ক্রিকেটাররা ২৯ জুলাই দেশে ফিরে নিজেদের এলাকায় চলে যায়। ৫ আগস্ট অনুশীলন ক্যাম্পে আসলে তাদেরকে কেন্দ্রীয় চুক্তির কাগজপত্র দেওয়া হবে, যা সবসময় করা হয়।

৯. ২০২২-২৩ মৌসুমের কেন্দ্রীয় চুক্তির তথ্যাদি নিয়েও ক্রিকইনফো কোন কিছু না বুঝেই খবর ছাপিয়েছে বলে দাবি পিসিবির। ক্রিকইনফোর মতে খেলোয়াড়দের সাথে নাকি কোন আলোচনা না করেই কেন্দ্রীয় চুক্তি করেছে পিসিবি। অথচ পিসিবি সবসময় খেলোয়াড়দের সাথে কথা বলে চুক্তি করে থাকে।

১০. এছাড়া ব্যক্তিগত বাণিজিক চুক্তির ব্যাপারে ক্রিকইনফোর কথার প্রতিবাদ জানিয়েছে পিসিবি। চুক্তিপত্রে বলা আছে, পিসিবির বর্তমান স্পন্সরদের প্রতিপক্ষের সাথে খেলোয়াড়রা কাজ করতে পারবে না, কেননা পিসিবির লভ্যাংশ ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে। এক্ষেত্রে ক্রিকেটারের এনওসি বাধা হতে পারে। তবে একজন খেলোয়াড় পিসিবিকে অনুরোধ করেছে তার প্রস্তাবিত চুক্তি যেন পূনর্বিবেচনা করা হয়। সেই অনুরোধ নিয়ে এখনও কথা চলছে।

৯৭ ডেস্ক

Read Previous

সিনেমাকেও হার মানালেন মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স স্পিনার

Read Next

লড়াই করেও প্রোটিয়াদের হারাতে পারল না আয়ারল্যান্ড

Total
10
Share