‘বাংলাদেশ ক্রিকেটের চাইতে কোনো ব্যক্তি বা নাম গুরুত্বপূর্ণ নয়’

শিরোপা জিততে বদ্ধপরিকর খালেদ মাহমুদ সুজন
Vinkmag ad

টি-টোয়েন্টিতে নাজেহাল বাংলাদেশকে নতুনভাবে দেখতে চায় বিসিবি (বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড)। যে কারণে জিম্বাবুয়ে সফরে মাহমুদউল্লাহ রিয়াদকে সরিয়ে অধিনায়ক করা হয়েছে নুরুল হাসান সোহানকে। রিয়াদকে রাখা হয়নি স্কোয়াদেও, একই পরিণতি মুশফিকুর রহিমেরও। ছুটিতে আছেন বলে দেখা যাবে না সাকিব আল হাসানকেও। নতুন মোড়কে তারুণ্যের মিশেলে দল গড়ার ব্যাখ্যা দিলে টিম ডিরেক্টর খালেদ মাহমুদ সুজন।

জাতীয় দলের সাবেক এই অধিনায়ক জানালেন সিনিয়রদের বিশ্রাম দিয়ে একদম ভিন্ন এক দল দেওয়ার পেছনে যুক্তি একটাই ব্যক্তি বা নামের চেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বাংলাদেশ ক্রিকেট। বোর্ডের চাওয়া টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটে ব্যর্থতার বৃত্তে আটকে থাকা দলের কাছ থেকে ভিন্ন ফলাফল পাওয়া। পরিবর্তনের পেছনে মূলত কাজ করেছে এই ভাবনাগুলো।

জিম্বাবুয়ে সফরের উদ্দেশে আজ-কাল মিলে কয়েকটি ধাপে দেশ ছাড়বে ক্রিকেটাররা। তার আগে আজ (২৫ জুলাই) রাজধানীর একটি পাঁচ তারকা হোটেলে টিম ম্যানেজমেন্টের সাথে স্কোয়াডের ক্রিকেটাররা সৌজন্য সাক্ষাৎ করে এবং মধ্যাহ্নভোজ সারে। এরপর দুপুরে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে কথা বলেন টিম ডিরেক্টর সুজন।

সেখানেই এক প্রশ্নের জবাবে তিনি জানান, ‘আমি সবার আগেই বলেছি বাংলাদেশ ক্রিকেট গুরুত্বপূর্ণ। কোনো ব্যক্তি, কোনো নাম, কোনো কিছুই গুরুত্বপূর্ণ না। আমরা চাই বাংলাদেশ টি-টোয়েন্টিতে…বোর্ড চায়…আমরা এই ফরম্যাটটা ভালো খেলছি না। এই ফরম্যাটে সময় এসেছে আমরা অন্য কিছু করতে পারি কিনা। তো অন্য কিছু করতে গেলে আপনিতো হঠাত করে তৈরি করতে পারবেন না। আপনি একটা জিনিস করতে পারেন স্বাধীনভাবে ক্রিকেট খেলা…আপনি যদি ১৫০ এর বেশি স্কোর নিয়মিত করতে পারেন, তারপরে আপনি ভালো বোলিং, ফিল্ডিং করলে ম্যাচ জিতবেন। কিন্তু এই ১৫০ করাটাই চ্যালেঞ্জ হয়ে গেছে আমাদের জন্য।’

সুজন বলছেন ক্রিকেতাড়দের বার্তা দেওয়া হয়েছে দুই-তিনজন নয় দল হিসেবে সাফল্য পেতে ভয়ডরহীন ক্রিকেট খেলতে হবে পুরো দলকে।

তার ভাষায়, ‘আমরা খেলোয়াড়দের মাথায় এটাই ঢুকাইতে চাই যে দুই-তিনজন ভয়ডরহীন খেললে হবে না। পুরো দলকেই ভয়ডরহীন খেলতে হবে, বোধ বুদ্ধি দিয়ে খেলতে হবে। অনেকে বলে আমরা ছক্কা মারতে পারি না। আমি একদমই বিশ্বাস করি না কথাটা। আমাদের অনেক খেলোয়াড়ই অনেক বড় বড় ছক্কা মারতে পারে। এটা আসলে ৬ মারার খেলা না, এটা ইন্টিলিজেন্সির খেলা। আর সাহস, সাহস ছাড়া কোনো কিছুই নাই।’

সিনিয়র ক্রিকেটারদের ভীড়ে তরুণদের পর্যাপ্ত সুযোগ দেওয়া যায়নি বলছেন সুজন। সাকিব, রিয়াদ, মুশফিকদের একদিন থামতেই হবে। আর সে সময়ের জন্য বিকল্প তৈরি করার লক্ষ্যেই জিম্বাবুয়ে সিরিজে নতুন ব্র্যান্ডের দল গঠন করে বিসিবি।

এ প্রসঙ্গে সুজন বলেন, ‘কীভাবে আমরা খেলোয়াড়গুলো পাবো? বিপিএল এমন একটা জায়গা যেখানে এতো বিদেশী খেলোয়াড়ের ছড়াছড়ি থাকে যে অনেক খেলোয়াড়েরা তাদের পজিশন অনুসারে ব্যাটিং করতে পারে না। হয়তো দেখা যাচ্ছে গুরুত্বপূর্ণ ১০ ওভার বিদেশীরা বল করতেছে, আমাদের বোলাররা করতে পারছে না। আমরা আসলে কোথা থেকে খেলোয়াড় বের করে আনবো? তরুণদের তো সুযোগ দিতে হবে। এতো দিন যেহেতু সিনিয়র প্লেয়াররা খেলছে, জুনিয়ররা সেভাবে সুযোগ পাচ্ছিল না। হয়তো কোনো ম্যাচে খেলছে কোনো ম্যাচে খেলছে না।’

‘পজিশন অনুসারে ব্যাট করতে পারছিল না। ওভার কমে গেলে একজন নেমে গেছে তাড়াতাড়ি। আমরা চই এগুলো থেকে ওদের একটা স্বাধীনতা দিতে, সুযোগ দিতে। দেখা যাক তারা কি করে। আর যেটা আমি বললাম রিয়াদ, মুশফিক, সাকিব এরা কিন্তু পরীক্ষিত। তাদের দেখার কিছু নাই, বাংলাদেশকে অনেক বড় বড় ম্যাচ জিতিয়েছে। দিন শেষে তারা সারাজীবন ক্রিকেট খেলবে না এটাও সত্য।’

‘আমাদের চাওয়া তারা থাকা অবস্থায় যেন আরেকটা শক্তিশালী বাংলাদেশ দল তৈরি হয়। তাদের অবদান অনস্বীকার্য। আবার আমি মনে করি তাদের এটা দায়িত্বও ওরা যেমন ছোট থেকে বড় হয়েছে জুনিয়রদের সে ব্যাটন টা দিয়ে বলবে যে টাই সময় তোমরা হাতে নাও। এটা তো বলবে একদিন না একদিন। সে জন্য আমাদের নতুন কিছু খেলোয়াড় তৈরি করা। এগুলো আমাদের মাথায় ছিল, আশা করি জিম্বাবুয়েতে সফল একটা সফর হবে।’

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

বৃষ্টিতে হল না ডি ককের সেঞ্চুরি, সিরিজে সমতা

Read Next

মুশফিকদের আবেগ নিয়ন্ত্রণে বার্তা দিলেন সুজন

Total
15
Share