বিজয় নয়, শান্তকে সুযোগ দেওয়া সঠিক সিদ্ধান্ত বলছেন তামিম

featured photo updated v 11
Vinkmag ad

ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরে টানা হারে ক্লান্ত বাংলাদেশ নিজেদের প্রিয় ফরম্যাট ওয়ানডেতে ফিরেই তুলে নিল জয়। তবে ম্যাচের শুরুতে একাদশ নিয়ে যে বিতর্ক তৈরি হয়েছে তার ব্যাখ্যা অধিনায়ক তামিম ইকবালকে দিতে হয়েছে ম্যাচের শেষে। তামিমের মতে এনামুল হক বিজয় নয়, তিন নম্বরে নাজমুল হোসেন শান্তকে সুযোগ দেওয়াটা ছিল সঠিক সিদ্ধন্তই।

সর্বশেষ ঘরোয়া ক্রিকেটে বিজয় হাজার রানের রেকর্ড গড়েন লিস্ট ‘এ’ ম্যাচে। যার পুরষ্কার হিসেবে ডাক পান ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টি দলে। তবে অপ্রত্যাশিতভাবে ওয়েস্ট ইন্ডিজে খেলে ফেলেন টেস্টও। দীর্ঘ বিরতির পর জাতীয় দলে ফিরে টেস্টের পর খেলেন টি-টোয়েন্টিও। খুব একটা আহামরি পারফর্ম করতে পারেননি।

কিন্তু যে ফরম্যাটে ভালো খেলে দলে ফিরেছেন অনেকেই ধরে নিয়েছেন সেই ওয়ানডে সিরিজে ভালো সুযোগ পাবেন বিজয়। কিন্তু গায়ানায় প্রথম ওয়ানডের একাদশে তার দেখা মেলেনি। বরং টানা ব্যর্থ শান্তকেই আরেক দফা সুযোগ দেওয়া হয়েছে। ৬ উইকেটে জয়ী ম্যাচ শেষে অধিনায়ক এটাকেই সঠিক সিদ্ধান্ত হিসেবে তুলে ধরলেন।

সংবাদ মাধ্যমে তিনি বলেন, ‘আমরা সঠিক সিদ্ধান্ত নিয়েছি এই কারণে যে….দেখুন, এনামুল বিজয় অবশ্যই দারুণ একটি ঘরোয়া মৌসুম কাটিয়েছে। মাত্র দলে এসেছে। আজকে যদি শান্তর জায়গায় বিজয়কে নিতাম, তাহলে শান্ত যে গত তিন সিরিজ ধরে ছিল, ওই নির্বাচনটা ছিল ভুল। শান্তকে কেন তিন সিরিজ ধরে নিয়ে আসছি? যখনই সুযোগ আসবে, শান্তরই এগিয়ে থাকার কথা বিজয়ের চেয়ে।’

এমনকি ভবিষ্যতেও কাউকে দলে সুযোগ দিলে পর্যাপ্ত পরিমাণ দেওয়ার ব্যাপারে বদ্ধপরিকর তামিম। যদিও তামিমের কথায় ছিল একটা ফাঁক, শান্তকে সত্যিকার অর্থে টানা সুযোগ দেওয়া হয়নি।

এমনকি ২০২১ সালে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে সিরিজের পর ওয়ানডে ফরম্যাটেই খেলা হয়নি এই বাঁহাতির। অথচ এই সময়ে বাংলাদেশ খেলেছে আরও ১৫ ম্যাচ। সে হিসেবে শান্ত দলের ভাবনায় ছিলেন না খুব একটা। দেড় বছর বিরতি দিয়ে তার একাদশে ঢোকার সাথে এনামুল হক বিজয়ের দলে থাকা খুব একটা সাংঘর্ষিক হওয়ার কথা না।

তামিম বলছেন, ‘অধিনায়ক হিসেবে আমি এটাই করতে চাই, দল নির্বাচন এভাবে করতে চাই। একটা ছেলেকে ক্যারি করছি, মাঝখান থেকে আরেকজন এলো, তাকে চট করে খেলিয়ে দিলাম, আমি এভাবে ভাবি না। তাই আমার মনে হয় আমরা সঠিক সিদ্ধান্ত নিয়েছি।’

সুযোগ পেয়েও ছোট লক্ষ্য বিবেচনায় খুব একটা সন্তোষজনক পারফর্ম করতে পারেনি শান্ত। ১৫০ রানের লক্ষ্য তাড়ায় নেমে ৯ রানে ১ উইকেট হারানোর পর ক্রিজে আসেন। প্রথমে তামিমের সাথে ৪০ ও পরে মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের সাথে ৪৯ রানের জুটি গড়েন।

ম্যাচ শেষ করার দারুণ সুযোগ ছিল তার সামনে। তবে ৪৬ বলে ৩৭ রান করে অভিষিক্ত গুদাকেশ মতির বলে ক্যাচ দেন নিকোলাস পুরানকে। শান্তর হতাশ হওয়া উচিৎ বলে মনে করেন তামিম। বিশেষ করে সাকিব, মুশফিক, ইয়াসির আলিরা ফিরলে একাদশে তার থাকাটা এখন চ্যালেঞ্জিং এই বাস্তবতাও তুলে ধরেন।

তামিম যোগ করেন, ‘শান্তর খুবই হতাশ হওয়া উচিত। কারণ, আজকে ম্যাচ শেষ করার দারুণ সুযোগ ছিল ওর। এমন সুযোগ তো সবসময় আসে না। সাকিব-মুশফিক-ইয়াসিররা ফিরলে তো এমন সুযোগ মিলবে না। এরকম সুযোগ পেলে তাই দু হাতে লুফে নেওয়া উচিৎ।’

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

অবশেষে উইন্ডিজ সফরে এলো কাঙ্ক্ষিত সেই জয়

Read Next

তামিম বলছেন হতাশ করেননি নাসুম

Total
1
Share