ডানহাতি-বাঁহাতি পুরোনো তত্ব থেকে বেরই হতে পারছেন না রিয়াদ

featured photo updated 3
Vinkmag ad

আগের ম্যাচে মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত উইকেট মেডেন নিয়েও এক ওভারের বেশি বল পাননি। অধিনায়ক রিয়াদ যুক্তি দিয়েছেন ক্রিজে দুই ডানহাতি ব্যাটার ছিল বলে ঝুঁকি নেননি। ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে গতকাল (৭ জুলাই) তৃতীয় টি-টোয়েন্টিতে প্রথম ওভারে উইকেট নেওয়া সাকিব আল হাসানকে দ্বিতীয় বার বল হাতে তুলে দেন যখন ম্যাচ থেকে বাংলাদেশ ছিটকে গেছে তখন। যুক্তি একই, ক্রিজে দুই বাঁহাতি ব্যাটার।

তবে দলের ব্যাটার লিটন কুমার দাস বলছেন আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে পুরোনো এই তত্ব মেনে চলতেই হবে এমনটা মনে করেন না তিনি। যদিও অধিনায়কের সিদ্ধান্তকে জানাচ্ছেন সম্মান। তার মতে অধিনায়কের সিদ্ধান্ত অনুসরণ করাই তাদের কাজ।

গায়ানার প্রভিডেন্স স্টেডিয়াম বরাবরই স্পিন সহায়ক। তাই আগে ব্যাট করা বাংলাদেশের ৫ উইকেটে ১৬৩ রানের পুঁজি জয়ের জন্য যথেষ্টই। প্রথম ১০ ওভারে টাইগার স্পিনাররা সেটি প্রমাণও করছিলেন।

১০ ওভারের ৯ ওভারই করেছে স্পিনাররা। স্পিনারদের বিপরীতে একমাত্র পেস বোলার মুস্তাফিজের করা ওভারেই আসেই ১২ রান। পেস আক্রমণ আসার পর সেই যে খেই হারাতে শুরু করে বাংলাদেশ তা আর টেনে ধরতে পারেনি।

পরের ৮.২ ওভারে ক্যারিবিয়ানরা তোলে ৯১ রান। মায়ের্স ও পুরান চতুর্থ উইকেট জুটিতে যোগ করে ৮৫ রান। মায়ের্স ৩৮ বলে ২ চার ৫ ছক্কায় ৫৫ রানে আউট হলেও পুরান ৩৯ বলে সমান ৫ টি করে চার, ছক্কায় ৭৪ রান করে দল জিতিয়ে মাঠ ছাড়েন।

৭ম ওভারে আক্রমণে এসে প্রথম বলেই ওডিন স্মিথকে ফেরান সাকিব। এরপরই ক্রিজে আসেন বাঁহাতি পুরান। মোকাবেলার করেন সাকিবের ঐ ওভারের ৩ বল, রান নিয়েছেন দুইটি। সবমিলিয়ে ঐ ওভারে এক উইকেট সহ সাকিবের খরচ মাত্র ৪ রান। ক্রিজে পুরানের সঙ্গী মায়ের্সও বাঁহাতি।

যে কারণে পরের ওভার করতে সাকিবকে অপেক্ষা করতে হয়েছে ১৭তম ওভার পর্যন্ত। মায়ের্স আউট হলে রভম্যান পাওয়েল আসেন ক্রিজে। তখন বল করেও ৬ রানের বেশি দেননি সাকিব। ততক্ষণে অবশ্য ম্যাচ থেকে বেরিয়ে গেছে টাইগাররা। সাকিব ২ ওভারে ১০ রান দিয়ে এক উইকেটেই থামেন।

এই ডানহাতি-বাঁহাতি পুরোনো তত্বে লিটন কতটা বিশ্বাস করেন? এমন প্রশ্ন রাখা হয় সংবাদ সম্মেলনে।

তার জবাবে তিনি বলেন, ‘দুই দিক দিয়েই করানো যায় (ডানহাতি-বাঁহাতি)। ডানহাতি ব্যাটসম্যানের সময় ডানহাতি বোলার বল করে, সমস্যা নাই। কিন্তু সিদ্ধান্তটা সম্পূর্ণ অধিনায়কের। যদি সিদ্ধান্তটা ভালোর দিকে যেত, তাহলে হয়তোবা এই প্রশ্নটা আসতো না। মাঠ তো আমি চালাব না বা আর দশটা ক্রিকেটার চালাবে না। আশা করা উচিত অধিনায়কের যে সিদ্ধান্ত সেটা ফলো করা।’

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

পুরান-মায়ের্সের ব্যাটে পিষ্ট বাংলাদেশ

Read Next

লিটনের মতে যেকারণে ক্যারিবিয়ানরা এগিয়ে

Total
19
Share