রিয়াদের চাওয়া সাকিবের মতো দায়িত্ব নিক কেউ

তবুও উদ্বোধনী জুটি নিয়ে চিন্তিত নন মাহমুদউল্লাহ
Vinkmag ad

টি-টোয়েন্টিতে বাংলাদেশের পরিস্থিতি কোনো কিছুতেই উন্নতি হচ্ছে না। ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে দ্বিতীয় ম্যাচেও হতে হয়েছে নাজেহাল। টানা হারের বৃত্তে থেকেও অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ বলছেন চাপ সব দিক থেকে আসছে না। বোলারদের নিয়ে দারুণ আত্মবিশ্বাসী রিয়াদ বরং ব্যাটারদের দিকে তাকিয়ে আছেন। সে ক্ষেত্রে তার চাওয়া ব্যাট হাতে আগের ম্যাচের মতো জ্বলে উঠুক সাকিব বা অন্য কেউ।

আজ (৭ জুলাই) গায়ানার প্রভিডেন্স স্টেডিয়ামে মাঠে গড়াবে তৃতীয় ও শেষ টি-টোয়েন্টি ম্যাচ। ১-০ ব্যবধানে পিছিয়ে থাকা বাংলাদেশের জন্য সিরিজে সমতা ফেরাতে জয়ের বিকল্প নেই।

তবে টাইগারদের সাম্প্রতিক পারফরম্যান্স খুব বেশি আশাবাদী করবে না। সর্বশেষ ১২ ম্যাচে মাত্র একটিতে জিততে পেরেছে রিয়াদের দল। ডমিনিকায় দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টিতে বোলাররা ছিল উদার। ৫ উইকেটে ১৯৩ রানের পুঁজি ক্যারিবিয়ানদের স্কোরবোর্ডে। লক্ষ্য তাড়ায় নেমে ৯৭ রানে ৫ উইকেট হারিয়েও সাকিব আল হাসানের অপরাজিত ৬৮ রানে ভর করে ১৫৮ রান পর্যন্ত যেতে পারে সফরকারীরা।

বৃষ্টিতে পরিত্যক্ত হওয়া ম্যাচে আগে ব্যাট করেও ব্যর্থতার পুরোনো দৃশ্য টাইগারদের। দুই দফায় ওভার কমে আসা ম্যাচে ১৩ ওভারে ৮ উইকেটে তুলতে পেরেছিল মাত্র ১০৫ রান। ওয়েস্ট ইন্ডিজ ব্যাট করার সুযোগ পায়নি বলে আরও এক হার সঙ্গী হওয়ার সম্ভাবনা জেগেও রক্ষা হয়।

চলতি বছর বিশ্বকাপ সামনে রেখে দলের এমন পারফরম্যান্সে চারদিক থেকেই চাপে থাকার কথা অধিনায়ক রিয়াদের। ব্যাট হাতে নিজেও যে নেই ছন্দে। সর্বশেষ ১২ ম্যাচে তার ব্যাটে সাকূল্যে রান ১৬০! এতো কিছুতেও অবশ্য চাপের কিছু দেখছেন না টাইগার দলপতি।

গতকাল (৬ জুলাই) সংবাদ সম্মেলনে বলেন,

‘না সব দিক থেকে না (চাপ)। আমার মনে হয় টি-টোয়েন্টি খেলাটাই এরকম। অনেক সময় ওপেনাররা সফল হবে, ভালো শুরু এনে দিবে। মিডল অর্ডার অনেক সময় এটা টেনে নিতে নাও পারে। কিন্তু কেউ একজনকে দায়িত্বটা নিতে হবে।’

গত ম্যাচে সাকিবের উদাহরণ টেনে রিয়াদ যোগ করেন,

‘যেমন আগের ম্যাচে সাকিব যেরকম একটা ইনিংস খেলল। আমরা ১৬০ এর কাছাকাছি চলে গিয়েছিলাম। তো আমার মনে হয় আমাদের দলের এরকম কাউকে ব্যাটিং করতে হবে। সাথে ছোট ১৫-২০ রান বা ৩০ রানের ক্যামিও খেললে আমরা হয়তো ধারাবাহিকভাবে ১৬০-১৭০ রান করতে পারবো। এবং আমাদের এই বিশ্বাসটা আছে আমরা ব্যাটাররা যদি ধারাবাহিকভাবে ১৬০-১৭০ রান করতে পারি বোলাররা এটা ডিফেন্ড করতে পারবে।’

‘কারণ আমার কাছে মনে হয় আমাদের বোলাররা বেশ ভালো। হয়তো আগের ম্যাচে বোলাররা ওভাবে করতে পারেনি কিন্তু আপনি যদি খেয়াল করে দেখেন অনেক ম্যাচেই আমাদের বোলাররা ছোট ছোট টার্গেটে প্রতিপক্ষকে আটকে রেখেছে। এখনো আমার অগাদ বিশ্বাস আছে আমার বোলিং আক্রমণের উপর যে ওরা ইন শা আল্লাহ ওটা রিকভার করতে পারবে।’

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

এক ম্যাচ বিরতি দিয়ে আবারও একাদশে ফিরছেন নাসুম

Read Next

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ সামনে রেখে টাইগারদের জন্য নেই আলাদা নির্দেশনা

Total
17
Share