পাওয়েল ঝড়ে উড়ে গেল বাংলাদেশ

পাওয়েল ঝড়ে উড়ে গেল বাংলাদেশ
Vinkmag ad

বৃষ্টিতে পরিত্যক্ত হওয়া প্রথম টি-টোয়েন্টিতে যেটুকু ব্যাট করার সুযোগ পেয়েছিল বাংলাদেশ তাতেই ব্যর্থতার ধারাবাহিকতা বজায় রাখে। কোচ রাসেল ডোমিঙ্গো বেশ আশাবাদী ছিলেন ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে আজ (৩ জুলাই) দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টিতে উন্নতি করবে শিষ্যরা। কিন্তু এই ফরম্যাটে বাংলাদেশ যেমনটা খেলে ঠিক তেমনটাই হয়েছে। ব্যাটে-বলে নাজুক পারফরম্যান্সে হারতে হয়েছে ৩৫ রানে।

ডমিনিকার উইন্ডসর স্টেডিয়ামে বাংলাদেশ এ দিন নেমেছিল দুই পরিবর্তন নিয়ে। পিঠে ব্যথা অনুভব করা মুনিম শাহরিয়ারের পরিবর্তে মোসাদ্দেক হোসেন ও নাসুম আহমেদের জায়গায় খেলেন তাসকিন আহমেদ।

টস জিতে আগে ব্যাট করা ওয়েস্ট ইন্ডিজ ৫ উইকেটে ১৯৩ রানের সংগ্রহ পায় ব্রেন্ডন কিং ও রভম্যান পাওয়েলের জোড়া ফিফটিতে। কিং (৪৩ বলে ৫৭) কিছুটা রয়ে সয়ে খেললেও পাওয়েল (২৮ বলে ৬১*) রীতিমতো ঝড় বইয়ে দিয়েছেন।

জবাবে শুরুতেই ২৩ রানে ৩ উইকেট হারিয়ে শুরুতেই ছিটকে যায় বাংলাদেশ। এক প্রান্ত আগলে রেখে সাকিব আল হাসান হাঁকান মাইলফলক স্পর্শ করা ফিফটি। ৬৮ রানের অপরাজিত ইনিংসটিও অবশ্য দলের কাজে আসেনি। ৬ উইকেটে ১৫৮ রানেই থামতে হয় বাংলাদেশকে।

তাসকিন আহমেদের করা প্রথম ওভারেই ওয়েস্ট ইন্ডিজ ওপেনার কাইল মায়ের্স হাঁকান এক চার, এক ছক্কা। শেখ মেহেদীর করা পরের ওভারেও চার দিয়ে শুরু। কিন্তু ওভারের পঞ্চম বলে হয়েছেন বোল্ড (৯ বলে ১৭ রান)। উদ্বোধনী জুটি ভাঙে ১৮ রানে।

মায়ের্স ঝড় দ্রুত থামলেও আরেক ওপেনার ব্রেন্ডন কিং খেলেছেন দেখেশুনে। ইনিংসের চতুর্থ ওভারে আক্রমণে এসে সাকিব ফেরান শামার ব্রুককে (৩ বলে ০)। পঞ্চম ওভারে আক্রমণে শরিফুল ইসলাম। টানা পাঁচ ওভারে আলাদা পাঁচ বোলার ব্যবহার করেন টাইগার দলপতি।

পাওয়ার প্লের ৬ ওভারে ক্যারিবিয়ানদের স্কোরবোর্ডে ২ উইকেটে ৪৬।

তাসকিনের করা ৭ম ওভারের দ্বিতীয় বলে ছক্কা মেরে দলীয় রান ৫০ পূর্ণ করেন অধিনায়ক নিকোলাস পুরান। শেখ মেহেদীর করা ১০ম ওভারে ব্রেন্ডন কিংয়ের সাথে পুরানের জুটির ফিফটিও পূর্ণ হয়।

১০ ওভার শেষে স্বাগতিকদের স্কোরবোর্ডে ২ উইকেটে ৮৫ রান। সাকিবের করা ১২তম ওভারেই দলীয় রান ১০০ ছুঁয়েছে।

পরের ওভারে আক্রমণে এসে জুটি ভাঙ্গেন মোসাদ্দেক। পুরানকে (৩০ বলে ৩৪ রান) ফিরিয়ে নেন উইকেট মেইডেন।

১৪তম ওভারে সাকিবকে চার মেরে ৩৬ বলে ক্যারিয়ারের তৃতীয় ফিফটি তুলে নেন কিং। ইনিংসের ১৬তম ওভারে সাকিবের উপর চড়াও হন রভম্যান পাওয়েল। তিন ছক্কার সাথে এক চারে নেন ২৩ রান। প্রথম তিন ওভারে ১৫ রান দেওয়া সাকিবের ফিগার দাঁড়ায় ৪-০-৩৮-১।

তাসকিনের করা পরের ওভারেও চলে পাওয়েল ঝড়। প্রথম দুই বলেই তার ব্যাটে ছক্কা, শেষ বলে কিং হাঁকান চার। ওভার থেকে আসে ২০ রান।

শরিফুলের করা ১৮তম ওভারের প্রথম বলেই অবশ্য ফিরতে হয় কিংকে। তার আগে ৪৩ বলে ৭ চার ১ ছক্কায় সাজান ৫৭ রানের ইনিংসটি। পরের বলে সিঙ্গেল নিয়ে ২০ বলেই ফিফটি ছুঁয়েছেন পাওয়েল।

পাওয়েল ঝড়ের সাথে শেষ দিকে ওডিন স্মিথের অপরাজিত ৪ বলে ১১ রানে ৫ উইকেটে ১৯৩ রানে থামে স্বাগতিকরা। পাওয়েল ২৮ বলে ২ চার ৬ ছক্কায় ৬১ রানে অপরাজিত ছিলেন। শেষ ৫ ওভারে যোগ হয় ৭৪ রান। ৩ ওভারে ৪৬ রান দিয়ে বাংলাদেশের খরুচে বোলার তাসকিন।

লক্ষ্য তাড়ায় নেমে আরও একটি ভিন্ন ওপেনিং জুটি বাংলাদেশের। পিঠের চোটে মুনিম শাহরিয়ার ছিটকে যাওয়ায় ৬ ম্যাচ পর ওপেনিংয়ে ফেরেন লিটন। তবে সঙ্গী বিজয়কে নিয়ে উপহার দেন হতশ্রী ব্যাটিং।

ওবেদ ম্যাকয়ের করা ইনিংসের দ্বিতীয় ওভারে প্রথম দুই বলে ফেরেন লিটন (৪ বলে ৫) ও বিজয় (৩ বলে ৪)। অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ আরেক দফা ব্যর্থ হলে (৭ বলে ১১) ২৩ রানেই ৩ উইকেট হারায় সফরকারীরা।

সেখান থেকে আফিফকে সাথে নিয়ে পরিস্থিতি সামাল দেওয়ার চেষ্টা সাকিবের। পাওয়ার প্লেতে টাইগার স্কোরবোর্ডে ৩ উইকেটে ৪৪। ১০ম ওভারে দুজনের জুটির ফিফটি পূর্ণ হয়। রোমারিও শেফার্ডের করা পরের ওভারে আফিফ (২৭ বলে ৩৪ রান) আউট হলে জুটি থামে ৫৫ রানেই।

শুরুতেই লাগাম ছুটে যাওয়া ম্যাচে আর ফিরতে পারেনি সফরকারীরা। সাকিবের ৬৮* রানের ইনিংস কেবল হারের ব্যবধানই কমিয়েছে। ৪৫ বলে ক্যারিয়ারের ১০ম ফিফটি ছুঁয়ে সাকিব অপরাজিত ছিলেন ৫২ বলে ৫ চার ৩ ছক্কায় ৬৮ রানে।

ওবেদ ম্যাকয়ের করা ১৯তম ওভারে ২ ছক্কা ১ চার হাঁকিয়ে নেন ২০ রান। শেষ বলে হাঁকানো ছক্কায় ছুঁয়েছেন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের পর আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে দ্বিতীয় বাংলাদেশী হিসেবে ২ হাজার রানের মাইলফলক।

আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টি প্রথম ক্রিকেটার হিসেবে ২ হাজার (২০০৫) রান ও ১০০ (১২০) উইকেটের মাইলফলক স্পর্শ করলেন টাইগার অলরাউন্ডার।

সংক্ষিপ্ত স্কোরঃ

ওয়েস্ট ইন্ডিজ ১৯৩/৫ (২০), কিং ৫৭, মায়ের্স ১৭, ব্রুকস ০, পুরান ৩৪, পাওয়েল ৬১*, শেফার্ড ৩, স্মিথ ১১*; মেহেদী ৪-০-৩১-১, সাকিব ৪-০-৩৮-১, শরিফুল ৪-০-৪০-২, মোসাদ্দেক ১-১-০-১

বাংলাদেশ ১৫৮/৬ (২০), বিজয় ৩, লিটন ৫, সাকিব ৬৮*, মাহমুদউল্লাহ ১১, আফিফ ৩৪, নুরুল ৭, মোসাদ্দেক ১৫, মেহেদী ৫*; আকিল ৪-০-২৭-১, ম্যাকয় ৪-০-৩৭-২, স্মিথ ৩-০-৩২-১, শেফার্ড ৪-০-২৮-২

ফলাফলঃ ওয়েস্ট ইন্ডিজ ৩৫ রানে জয়ী

ম্যাচসেরাঃ রভম্যান পাওয়েল (ওয়েস্ট ইন্ডিজ)।

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

বেয়ারস্টোর অমন ব্যাটিংয়ের পরেও ম্যাচের লাগাম ভারতের হাতে

Read Next

যুক্তরাষ্ট্রের সিনিয়র ও জুনিয়র নারী দলের হেড কোচ হলেন শিবনারায়ণ চন্দরপল

Total
15
Share