পাওনা টাকা নিয়ে শঙ্কায় ক্রিকেটাররা, ব্রাদার্স আটকে আছে ফরচুনের কাছে

ডিপিএল অধিনায়ক
Vinkmag ad

ঢাকা প্রিমিয়ার ডিভিশন ক্রিকেট লিগের (ডিপিএল) এবারের আসর শেষ হয়েছে প্রায় দেড় মাস। শেখ জামাল ধানমন্ডি, আবাহনী, মোহামেডান, প্রাইম ব্যাংক সহ বেশিরভাগ ক্লাবের ক্রিকেটারদের নেই পারিশ্রমিক ইস্যুতে কোনো অভিযোগ। তবে উল্টো চিত্র ব্রাদার্স ইউনিয়নে, বকেয়া পারিশ্রমিক নিয়ে অনিশ্চয়তা কাটছে না কোনভাবেই।

ডিপিএলে পারিশ্রমিক ইস্যুতে এর আগেও ক্লাবটি নেতিবাচকভাবে খবরের শিরোনাম হয়েছে। এবার বেশিরভাগ ক্রিকেটারই বুঝে পায়নি ৫০ শতাংশ পারিশ্রমিকও। যেখানে নিয়ম অনুসারে লিগ শুরুর আগে ৫০ শতাংশ, লিগ চলাকালীন ২৫ শতাংশ ও লিগ শেষের এক মাসের মধ্যে বাকি অর্থ পরিশোধ করতে হয়।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ব্রাদার্সের একাধিক ক্রিকেটার এই প্রতিবেদককে নিশ্চিত করেছে তারা ৫০ শতাংশ পারিশ্রমিকও এখনো পাননি। বরং নিজেদের প্রাপ্য অর্থ নিয়ে বেশ শঙ্কায় আছেন। ঘরোয়া ক্রিকেটের নিয়মিত মুখ এক ক্রিকেটার যেমন জানালেন এমন তিক্ত অভিজ্ঞতা তার এবারই প্রথম।

তিনি বলেন,

‘যতটুকু জানি আমাদের বেশিরভাগ ক্রিকেটারের পারিশ্রমিকই বকেয়া। দীর্ঘ দিন ধরে প্রিমিয়ার লিগ খেলি এমন অভিজ্ঞতা হয়নি। হ্যাঁ ক্লাবগুলো অনেক সময় দেরি করে কিছু অংশ দিতে। কিন্তু সেটারও একটা সীমা থাকে। এতো লম্বা সময় অপেক্ষার অভিজ্ঞতা নেই। এখনো ৫০ শতাংশ অর্থও পাইনি।’

আরেক ক্রিকেটার ১৫ শতাংশ অর্থ পেয়েছেন এতো দিনে। যিনি বাকি অর্থ পাওয়ার অনিশ্চয়তা থেকে এই প্রতিবেদককে আক্ষেপের সুরেই বললেন, ‘বাকিটা পেলে আপনাকে জানাবো ভাই।’

এর আগে আবাহনী, মোহামেডানের মতো ক্লাবে খেলার অভিজ্ঞতা আছে এমন একজন বলছিলেন,

‘আমার সাথে পারিশ্রমিক ইস্যুতে এবারই এমনটা ঘটলো। এখনো ৫০ শতাংশের মতো বাকি। তারা সময় নিয়েছে দেখা যাক শেষ পর্যন্ত কি হয়। এর আগে আবাহনী, মোহামেডানে খেলেছি, বড় ক্লাব, পারিশ্রমিক নিয়ে ঝামেলা হয়নি কখনো।’

২০১৮ সালেও পারিশ্রমিক নিয়ে অভিযোগ উঠে ব্রাদার্স ইউনিয়নের বিরুদ্ধে। লিগ শেষের কয়েক মাস পরেও অর্থ না পেয়ে বিসিবির দ্বারস্থও হতে হয়েছে খেলোয়াড়দের। এবার একই অভিযোগ ওঠায় বিষয়টি নিয়ে জানতে যোগাযোগ করা হয় ক্লাবের এক কর্মকর্তার সাথে।

নিজের নাম প্রকাশ না করার শর্তে তিনি জানান এবার তাদের সাথে স্পন্সর প্রতিষ্ঠান হিসেবে যুক্ত ছিল বিপিএলের রানার আপ দল ফরচুন বরিশালের মালিকপক্ষ। ফরচুন গ্রুপের মালিক মিজানুর রহমান ব্রদার্সের ক্রিকেট কমিটির প্রধানও। এমনকি এই ক্লাব থেকে বিসিবির কাউন্সিলরও তিনি। চুক্তি অনুযায়ী তাদের কাছ থেকে পাওনা এখনও বুঝে না পাওয়াতেই পরিশোধ করা যাচ্ছে না ক্রিকেটারদের পারিশ্রমিক।

ঐ কর্মকর্তা বলেন,

‘কয়েকজন ক্রিকেটারের পারিশ্রমিক বকেয়া আছে। তবে সেটাও খুব বেশি না। আসলে আমরা ঝামেলায় পড়ে গেছি ফরচুন গ্রুপের কাছ থেকে টাকাটা না পাওয়াতে। আমাদের গভার্নিং বডির চেয়ারম্যান আ.জ.ম নাসির ভাই এখন বিদেশে, উনি আসবেন ১২ তারিখে হয়তো। এরপর এই ইস্যুতে ১৫ তারিখের দিকে আমাদের ক্লাবের সদস্যদের নিয়ে বৈঠক করবো। সেখানে আমরা একটা পথ বের করার চেষ্টা করবো।’

উল্লেখ্য, দীর্ঘদিন ধরেই ডিপিএলে সুপার লিগ খেলতে পারছে না ব্রাদার্স ইউনিয়ন। এবার মোহাম্মদ আশরাফুলের নেতৃত্বে স্বপ্ন দেখেছিল। তবে স্বপ্ন পূরণ তো হয়নি বরং রেলিগেশন খেলতে হয়েছে। শেষ পর্যন্ত অবশ্য প্রথম বিভাগে অবনমন থেকে রক্ষা পেয়েছে।

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

রেকর্ড গড়ে দশ হাজারি ক্লাবে জো রুট

Read Next

জোড়া সেঞ্চুরিতে সিরিজ জিতল ওয়েস্ট ইন্ডিজ

Total
6
Share