খারাপ সময় থেকে বেরোতে মূলেই ফিরে যাচ্ছেন মুমিনুল

মুমিনুল বলছেন 'দুই-একটা', পরিসংখ্যান বলছে ভিন্ন কথা
Vinkmag ad

ঘড়ির কাটা দুপুর দেড়টা ছুঁইছুঁই, শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামের ইনডোর থেকে ফিরছেন মুমিনুল হক। মূল মাঠ হয়ে ঢুকেছেন ড্রেসিং রুমে। ততক্ষণে মিরপুরে আসা বেশিরভাগ ক্রিকেটারই ফিরে গেছেন। বৃষ্টি বাধা হওয়াতে অনেকেরই পর্যাপ্ত অনুশীলন হয়নি। যাদের অধিকাংশই বাংলাদেশ টাইগার্স ক্যাম্প ও বিশেষ স্পিন ক্যাম্পের সদস্য।

তবে মুমিনুলের লটড়াইটা ভিন্ন, দিন কয়েক পরেই উড়াল দিতে হবে ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরের উদ্দেশে। সদ্য শ্রীলঙ্কা সিরিজ শেষে দলের বেশিরভাগ ক্রিকেটারই ছুটিতে পরিবার নিয়ে ঘুরে বেড়াচ্ছেন দেশে-বিদেশে। টেস্ট কাপ্তান মুমিনুল সুযোগ থাকলেও সেটা করতে পারছেন না। এ যে নিজের প্রতি দায়বদ্ধতা!

ব্যাট হাতে ভুলে যাওয়ার মতো সময় কাটাচ্ছেন। দিনের পর দিন হতাশ করছেন দলকে। সময় এতোটাই খারাপ যাচ্ছে টেস্টে বাংলাদেশের সর্বোচ্চ সেঞ্চুরিয়ান নাকি বেসিকই ভুলে গেছেন! না, এটা খালি চোখে দেখা কোনো দর্শকের কথা নয়। মুমিনুলদের গুরু ক্রিকেট কোচ ও বিশ্লেষক নাজমুল আবেদিন ফাহিমই করেছেন এমন মন্তব্য।

আজ (৩০ মে) মিরপুর ইনডোরে দুজনে কাটিয়েছেন দীর্ঘ সময়ও। বৃষ্টির কারণে মুমিনুল-ফাহিমের কাজ সামনে থেকে দেখা সম্ভব হয়নি। তবে পরে সংবাদ মাধ্যমের সাথে আলাপে বিশেষজ্ঞ এই কোচ নিজেই খোলাসা করেছেন কোথায় সমস্যা হচ্ছে টাইগার টেস্ট কাপ্তানের।

সর্বশেষ ১০ ইনিংসে দুই অঙ্ক ছুঁয়েছেন মাত্র ২ বার, সর্বশেষ ৭ ইনিংসে ফিরেছেন দুই অঙ্কের আগে। এমন বাজে ফর্মে থেকেও নিজেকে চিন্তা মুক্ত বলে দাবি করেছেন মুমিনুল। তবে ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরের আগে নিজের একক অনুশীলনই বলে দেয় মুখ দিয়ে না বললেও ভেতরে ঠিকই চিন্তিত বাঁহাতি এই ব্যাটার। নিজের পারফরম্যান্সের সাথে অধিনায়ক হিসেবেও অবস্থান যে নড়বড়ে।

একদিন আগে সংবাদ মাধ্যমের সাথে আলাপে টিম ডিরেক্টর খালেদ মাহমুদ সুজন পরামর্শ দিয়েছেন খারাপ সময় কাটাতে হলে বেসিকে ফিরতে হবে।

তিনি বলেন, ‘বেসিকের ওপর নির্ভর করতে হবে। প্র্যাকটিসে সবই ভালো হচ্ছে, ঠিকঠাক করছে। মানসিক চাপ মাঠে যাচ্ছে কি না এটাই কথা।’

এবার নিবিড় অনুশীলন শেষে শিষ্যকে নিয়ে একই কথা নাজমুল আবেদিন ফাহিমের, ‘মুমিনুল বেশ লম্বা সময় ধরেই একটা ব্যাড প্যাচের মধ্য দিয়ে যাচ্ছে। এ সময় অনেকে ভালো করতে গিয়ে আরও খারাপ করে ফেলে। এগুলো করতে করতে মূল থেকেই সরে যায়। বেসিক নিয়েই একটু কাজ করেছি।’

‘আমার মনে হয় একসময় বেসিক ভালো ছিল, এখন সেটা নেই। সেটা নিয়ে কাজ করেছি। আগের চাইতে দেখতে ভালো লাগছে। আরও ২-১ দিন কাজ করলে আরও ভালো হবে। বেসিক থেকে বাইরে চলে গেলে এই পর্যায়ে ব্যাটিং করা খুব কঠিন। এটাই মূল কারণ। তাড়াতাড়ি কেটে গেলে ভালো করবে। দেখে মনে হচ্ছে বেশ কিছু ঠিক হয়েছে, ব্যাটে-বলে ভালো হচ্ছে। আমার মনে হয় সামনে অনেক ভালো করবে।’

অধিনায়ক মুমিনুল বর্তমানে আছেন আতশি কাঁচের নিচে। যেকোনো সময় আসতে পারে যেকোনো সিদ্ধান্ত। ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরকে শেষ পরীক্ষা হিসেবেও দেখছেন অনেকে।

ফাহিমের মতে রান না করলে এসব প্রশ্ন ওঠা স্বাভাবিক, ‘ও রান করলে অধিনায়কত্ব নিয়ে এত কিছু বলতাম না। যেহেতু ভালো করছে না, এটা নিয়ে চাপ হচ্ছে এমন কথা উঠবেই। সেটার প্রশ্নের উত্তর ওকে দিতে হচ্ছে। একটু চাপ তো থাকবেই।’

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

‘ডলার’ ম্যান রেডফোর্ডের সাথে সম্পর্কের ইতি টানছে বিসিবি

Read Next

অধিনায়কত্ব ইস্যুতে মুমিনুলের কাছেই সিদ্ধান্ত চায় বিসিবি

Total
1
Share